kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৭ ফাল্গুন ১৪২৭। ২ মার্চ ২০২১। ১৭ রজব ১৪৪২

এসএসসি-এইচএসসি সিলেবাসের পরিধি আরো কমল

নিজস্ব প্রতিবেদক    

৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৩:২১ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



এসএসসি-এইচএসসি সিলেবাসের পরিধি আরো কমল

এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের জন্য ফের সংক্ষিপ্ত সিলেবাস প্রকাশ করা হয়েছে। জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি) প্রণীত এই সিলেবাস গত বৃহস্পতিবার রাতে প্রকাশ করে সব শিক্ষা বোর্ড। এর আগে গত ২৫ জানুয়ারি এসএসসির সংক্ষিপ্ত সিলেবাস প্রকাশ করার পর তা প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়।

জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার এনসিটিবিতে আয়োজিত এক সভায় আন্ত শিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাবকমিটির কাছে সংক্ষিপ্ত সিলেবাস জমা দেওয়া হয়। এনসিটিবির পক্ষ থেকে আন্ত শিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাবকমিটির সভাপতি ও ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক নেহল আহমেদ সিলেবাসটি গ্রহণ করেন। এরপর সব বোর্ডের কাছে সেগুলো পাঠানো হয় এবং রাতেই তা প্রকাশ করা হয়।

সূত্র জানায়, আগামী জুনে এসএসসি ও জুলাই-আগস্টে এইচএসসি পরীক্ষা গ্রহণের পরিকল্পনা রয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের। ফলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পর এসএসসিতে ৬০ কর্মদিবস এবং এইচএসসিতে সর্বোচ্চ ৮০ কর্মদিবস ক্লাস করানোর পরিকল্পনা করে এবারের সিলেবাস প্রণয়ন করা হয়েছে।

এনসিটিবির একজন কর্মকর্তা জানান, যেটুকু না পড়লেই না নয়, শুধু সেটুকু অধ্যায় দিয়েই নতুন করে বিষয়ভিত্তিক সিলেবাস প্রণয়ন করা হয়েছে। ছোট হওয়া সিলেবাসে সব বিষয়েই প্রশ্নের বিভাজন ও নম্বর কাঠামো ঠিকই থাকবে। অর্থাৎ যে সিলেবাস প্রণয়ন করা হয়েছে সেখান থেকেই প্রশ্নপত্র প্রণয়ন করা হবে। তবে ইংরেজি বিষয়ে প্রশ্নের কাঠামোতে কিছু পরিবর্তন হয়েছে। এর মধ্যে ইংরেজির গ্রামার অংশের ন্যারেশন, বাক্য গঠনসহ বেশ কিছু অংশ বাদ দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি ইংরেজিতে রচনাও লিখতে হবে না।

প্রথম দফায় গত ২৫ জানুয়ারি এসএসসির সংক্ষিপ্ত সিলেবাস প্রকাশ করেছিল ঢাকা শিক্ষা বোর্ড। যা নিয়ে শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে আপত্তি ওঠে। প্রকাশিত সংক্ষিপ্ত সিলেবাস তিন বা চার মাসের মধ্যে শেষ করা সম্ভব নয় বলে শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা জানান। এরপর শিক্ষামন্ত্রীর নির্দেশে সিলেবাস আরো সংক্ষিপ্ত করার উদ্যোগ নেওয়া হয়। গত ২৭ জানুয়ারি সিলেবাসটি আরো সংক্ষিপ্ত করার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল এনসিটিবিকে। গত ৪ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত তাদের সময় বেঁধে দেওয়া হয়েছিল।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, প্রথম দফায় প্রকাশিত সিলেবাসে ২০ থেকে ৩০ শতাংশ বাদ দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু এবার প্রতিটি বিষয়ে ৩০ থেকে ৩৫ শতাংশ অধ্যায় নির্বাচন করে সিলেবাস প্রণয়ন করা হয়েছে। যেহেতু এবার কোনোভাবেই অটোপাস দেওয়ার পক্ষে রাজি নয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়, তাই শিক্ষার্থীরা যাতে সহজেই উত্তীর্ণ হতে পারে সে লক্ষ্যেই এসএসসি-এইচএসসির সংক্ষিপ্ত সিলেবাস প্রণয়ন করা হয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা