kalerkantho

শুক্রবার । ১০ বৈশাখ ১৪২৮। ২৩ এপ্রিল ২০২১। ১০ রমজান ১৪৪২

ক্ষমতা অপব্যবহারের অভিযোগ

সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ ইউএনও-এসি ল্যান্ডের বিরুদ্ধে বিচার বিভাগীয় তদন্ত চেয়ে রিট

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৩১ জানুয়ারি, ২০২১ ২০:০৭ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ ইউএনও-এসি ল্যান্ডের বিরুদ্ধে বিচার বিভাগীয় তদন্ত চেয়ে রিট

সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এবং সহকারী কমিশনারের (এসি ল্যান্ড-ভূমি) বিরুদ্ধে বিচার বিভাগীয় তদন্ত চেয়ে হাইকোর্টে রিট আবেদন করা হয়েছে। একইসঙ্গে আবেদনে বগুড়ার শেরপুরের একটি পরিবারের নিরাপত্তা চাওয়া হয়েছে। বগুড়ার শেরপুরের এক বাসিন্দাকে ভ্রাম্যমাণ আদালত কর্তৃক দুই মাসের কারাদণ্ড দেওয়ায় এবং একই পরিবারের অপর দু’জনের বিরুদ্ধে এখতিয়ার বহির্ভূত ব্যবস্থা নেওয়ার অভিযোগে এ রিট আবেদন করা হয়েছে।

রবিবার হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় বগুড়ার শেরপুরের মো. তৌহিদুল ইসলাম বিশ্বাসের পক্ষে অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ শিশির মনির এ রিট আবেদন দাখিল করেন। রিট আবেদনে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সচিব, রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার, রাজশাহী জেলা প্রশাসক (ডিসি), পুলিশ সুপার (এসপি), রায়গঞ্জ উপজেলা ইউএনও মো. রাজিবুল আলম, রায়গঞ্জ উপজেলার এসি ল্যান্ড সুবির কুমার দাস ও রায়গঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসিকে) বিবাদী করা হয়েছে।

অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ শিশির মনির জানান, সিরাজগঞ্জ জেলার রায়গঞ্জ উপজেলায় নিজস্ব ডেইরি ফার্মে রিট আবেদনকারীর ছোট ভাই বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া আহসান হাবিবের সঙ্গে ওই উপজেলার এসি ল্যান্ড সুবির কুমার দাসের কথা কাটাকাটি হয় ২০২০ সালের ২ ডিসেম্বর। এ ঘটনায় ওইদিনই আবেদনকারীর আরেক ছোট ভাই সরকারি কলেজ শিক্ষক তারিকুল ইসলামের উপস্থিতিতে বিষয়টি মিমাংসা করা হয়। কিন্তু মিমাংসা বৈঠকের একঘণ্টা পর এসি ল্যান্ড আবেদনকারীর শেরপুরের বাড়িতে রায়গঞ্জ থানার ১০ পুলিশ সদস্যকে পাঠিয়ে আরেক ছোট ভাই আরিফুল ইসলামকে ধরে থানায় নিয়ে যান। পরবর্তীতে উপজেলায় মোবাইল কোর্ট বসিয়ে আরিফুলকে ২ মাসের কারাদণ্ড দেন এসি ল্যান্ড। এছাড়াও এসি ল্যান্ডের নির্দেশে আবেদনকারীর ভাই কলেজ শিক্ষক তারিকুল ইসলামকে বেদম প্রহার করা হয়। এরপর ওইদিনই রায়গঞ্জ উপজেলার ইউএনও কলেজ শিক্ষক তারিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়, রংপুর কারমাইকেল কলেজ, পুলিশ ও প্রশাসনের কাছে চিঠি পাঠান। পাশাপাশি আহসান হাবীবের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের ডিন এবং সভাপতি বরাবর পৃথক চিঠি দেন। মোবাইল কোর্টের আদেশের কপি ৫ দিনের মধ্যে সরবরাহ করার বিধান থাকলেও ২৩ দিন পর দেওয়া হয়।

এ কারণে সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এবং এসি ল্যান্ডের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সচিবসহ সংশ্লিষ্টদের প্রতি গত ১৪ জানুয়ারি আইনি নোটিশ পাঠানো হয়। কিন্তু কোনো পদক্ষেপ না নেওয়ায় রিট আবেদন করা হয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা