kalerkantho

সোমবার । ২৩ ফাল্গুন ১৪২৭। ৮ মার্চ ২০২১। ২৩ রজব ১৪৪২

যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত জেএমবি সদস্যের জামিন বাতিল হাইকোর্টে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৮ জানুয়ারি, ২০২১ ২১:১৪ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত জেএমবি সদস্যের জামিন বাতিল হাইকোর্টে

সারা দেশে ২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট একযোগে সিরিজ বোমা হামলার দিনে ফেনীর জেলা প্রশাসক কার্যালয় চত্বর ও পৌরসভা এলাকায় বোমা বিষ্ফোরণের মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত জেএমবি সদস্য মো. রেদওয়ানুল হককে দেওয়া জামিন বাতিল করেছেন হাইকোর্ট।

বিচারপতি এ কে এম আসাদুজ্জামান ও বিচারপতি কাজী মো. ইজারুল হক আকন্দের হাইকোর্ট বেঞ্চ এক আদেশে আগের আদেশ প্রত্যাহার করে জামিনের আবেদন খারিজ করেন। জামিন বাতিল চেয়ে রাষ্ট্রপক্ষের করা আবেদনে এ আদেশ দেন আদালত। আদালতে আসামিপক্ষে আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট হাসিনা জাহান হাজারী। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. আমিনুল ইসলাম, সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল মোহাম্মদ রেজাউল হক।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. আমিনুল ইসলাম জানান, জামিন আবেদনকারী রেদওয়ান নিষিদ্ধ ঘোষিত জামায়াতুল মুজাহেদিনের (জেএমবি) সদস্য। তার জামিন আবেদনের ওপর শুনানিতে এই তথ্য গোপন করা হয়। এই আসামি ১৫ বছর ধরে কারাগারে রয়েছে। এটা বিবেচনায় নিয়ে আদালত গত ১৪ জানুয়ারি তার জামিন মঞ্জুর করেন। কিন্তু আমরা রাষ্ট্রপক্ষ থেকে তার জামিন আদেশ প্রত্যাহারের জন্য আবেদন করি। আদালত আগের আদেশ রিকল করে জামিন আবেদন খারিজ করে আজ আদেশ দিয়েছেন।

তবে তথ্য গোপন করার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন আসামিপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট হাসিনা জাহান হাজারী। তিনি বলেন, এ মামলার এজাহারে রেদওয়ানের নাম ছিল না। সে চার্জশিটভুক্ত আসামি। তিনি বলেন, আদালতের মনে হয়েছে জামিন দেওয়া ঠিক হয়নি। তাই আগের আদেশ রিকল করেছেন।

২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট ফেনীর জেলা প্রশাসক কার্যালয় চত্বর ও পৌরসভা এলাকায় বোমা বিস্ফোরণের ঘটনায় ফেনী থানায় বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে পৃথক দুটি মামলা হয়। এ মামলায় তদন্ত শেষে ওই বছরের ১০ নভেম্বর রেদওয়ানসহ ৬ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেওয়া হয়। এরপর ২০০৬ সালেল পহেলা জানুয়ারি রেদওয়ানকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। মামলার বিচার শেষে দুই মামলায় ২০০৬ সালের ৩ ও ১৭ জুলাই পৃথকভাবে দেওয়া রায়ে সকল আসামিকে যাবজ্ঝবিন কারাদণ্ড দেওয়া হয়। এই রায়ের বিরুদ্ধে ওইবছরই কারাবন্দি রেদওয়ান হাইকোর্টে আপিল করেন। যা হাইকোর্টে বিচারাধীন। এ অবস্থায় হাইকোর্টে জামিন আবেদন করে রেদওয়ান। রেদওয়ানের বাড়ি পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা