kalerkantho

শুক্রবার । ১০ বৈশাখ ১৪২৮। ২৩ এপ্রিল ২০২১। ১০ রমজান ১৪৪২

প্রতিবন্ধীদের স্বাবলম্বী করতে পাটজাত পণ্য তৈরির প্রশিক্ষণ

নিজস্ব প্রতিবেদক, সাভার (ঢাকা)   

১৮ জানুয়ারি, ২০২১ ১৭:১৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



প্রতিবন্ধীদের স্বাবলম্বী করতে পাটজাত পণ্য তৈরির প্রশিক্ষণ

পরিবেশ সহায়ক আত্মকর্মসংস্থান বৃদ্ধির পাশাপাশি হাতে-কলমে প্রশিক্ষণ নিয়ে একেকজন প্রতিবন্ধী ব্যক্তি হয়ে উঠবে একেকজন উদ্যেক্তা- এই লক্ষ্যে সাভারে প্রতিবন্ধীদের স্বাবলম্বী করতে পাটজাত পণ্য তৈরি বিষয়ক তিন দিনের প্রশিক্ষণ কর্মসূচি শুরু হয়েছে। রবিবার সকালে পক্ষাঘাতগ্রস্তদের পুনর্বাসন কেন্দ্রের (সিআরপি) হল রুমে এ প্রশিক্ষণটির উদ্বোধন করেন সিআরপির প্রতিষ্ঠাতা ভ্যালেরি টেইলর। প্রশিক্ষণ কর্মসূচিটি চলবে আগামী ১৯ জানুয়ারি পর্যন্ত।

প্রশিক্ষণের আয়োজকরা জানান, প্রাথমিক অবস্থায় ২০ জন প্রতিবন্ধী ব্যক্তিকে এ প্রশিক্ষণ প্রদান করা হবে। যা পরে চলতেই থাকবে। এ প্রশিক্ষণের কর্মসূচির আয়োজন করে স্পাইনাল কর্ড ইনজুরিস ডেভলপমেন্ট অ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশ (সিডাব)। সহযোগিতা করছে ই-ক্যাবের মানবসেবা, পিডিএএফ, ক্রাফটিভিশন ও কালের কণ্ঠের শুভসংঘ সিআরপি শাখা। 

এই প্রশিক্ষণের প্রশিক্ষক ও ক্রাফটিভিশনের প্রোপ্রাইটর ইব্রাহিম খলিল বলেন, প্রতিবন্ধী ব্যক্তিরা মনে করেন যে তারা মরে গেছেন। কিন্তু না, এ ধরনের মানুষরা বাইরের দেশে কাজ করে খাচ্ছেন। এ কারণে তাঁর ২০২১ সালের উদ্দেশ্য হলো- এ ধরনের মানুষদের স্বাবলম্বী করে তোলা। এই প্রশিক্ষণের মাধ্যমে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিরা পাটের নানা পণ্য তৈরি করা শিখতে পারবে। এছাড়া তাদের তৈরি পণ্যগুলোর কাঁচামাল ক্রাফটিভিশনই সরবরাহ করবে ও পণ্যগুলো বিক্রির ব্যবস্থা করে দেবে। 

পক্ষাঘাতগ্রস্তদের পুনর্বাসন কেন্দ্রের (সিআরপি) নির্বাহী পরিচালক ডা. সোহরাব হোসেন বলেন, এই পণ্যটি একটি বিশেষ শিল্প। দেশে-বিদেশে পাটজাত পণ্যের অনেক চাহিদা রয়েছে। এই কর্মশালা প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের জন্য অত্যন্ত কার্যকরী। এই পাটজাত পণ্য উৎপাদন করে তারা দেশে বড় ভূমিকা রাখবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

শুভসংঘ সিআরপি শাখার সভাপতি তামজিদ হোসেন বলেন, যে কোনো শুভ কাজে শুভসংঘ সবার পাশে থেকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিবে। 

উদ্বোধন অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, স্পাইনাল কর্ড ইনজুরিস ডেভলপমেন্ট অ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশের (সিডাব) সভাপতি ফরিদ উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন ও শুভসংঘ সিআরপি শাখার সভাপতি তামজিদ হোসেন প্রমুখ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা