kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৪ ফাল্গুন ১৪২৭। ৯ মার্চ ২০২১। ২৪ রজব ১৪৪২

টিকার কাজ আইভারমেকটিনে!

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৯ ডিসেম্বর, ২০২০ ০৩:৪২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



টিকার কাজ আইভারমেকটিনে!

আবার আইভারমেকটিন নিয়ে আলোচনায় উঠে এলেন বাংলাদেশ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে মেডিসিন বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডাক্তার তারেক আলম ও সম্মান ফাউন্ডেশনের অধ্যাপক ডাক্তার রবিউল মোর্শেদ। আগে শুধু আইভারমেকটিনের সঙ্গে ডক্সিসাইক্লিন ব্যবহারে দ্রুত করোনা মুক্ত হওয়ার পথ দেখিয়েছিলেন তাঁরা, যা পরবর্তী সময়ে আইসিডিডিআরবির গবেষণায় প্রমাণ মেলে। এবার বাংলাদেশ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসকদের মধ্যে একটি ছোট পরিসরের সমীক্ষায় মাসে একবার শুধু আইভারমেকটিন (১২ এমজি) গ্রহণে করোনাভাইরাস প্রতিরোধের উপায় খুঁজে পেয়েছেন তাঁরা।

তাঁদের এই সমীক্ষা প্রতিবেদন গত ১৫ ডিসেম্বর প্রকাশ পেয়েছে ‘ইউরোপিয়ান জার্নাল অব মেডিক্যাল অ্যান্ড হেলথ সায়েন্সে।’ জার্নালটিতে সমীক্ষার বিস্তারিত তুলে ধরা হয়েছে। সমীক্ষার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, এই ওষুধ করোনার ক্ষেত্রে অনেকটা প্রতিষেধক হিসেবে কাজ করছে।

এ বিষয়ে অধ্যাপক তারেক আলম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমরা আমাদের হাসপাতালে চিকিৎসকদের দুটি ভাগে ভাগ করে এক গ্রুপে ৬০ জন ডাক্তারকে আলাদা করে রেখেছিলাম কন্ট্রোল হিসেবে, যাঁরা আইভারমেকটিন গ্রহণ করেননি। অন্যদিকে আরেকটি গ্রুপের ৫৮ জনকে মাসে একবার করে ১২ এমজি ডোজের আইভারমেকটিন দিয়েছি চার মাস। পরে আমরা দেখতে পেয়েছি, প্রথম গ্রুপের (আইভারমেকটিন যাঁরা গ্রহণ করেননি) ৬০ জনের মধ্যে ৪৪ জন বা ৭৩.৩ শতাংশ করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। অন্যদিকে যাঁরা আইভারমেকটিন গ্রহণ করেছেন সেই ৫৮ জনের মধ্যে মাত্র চারজন (৬.৯ শতাংশ) করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন, তাও মৃদু লক্ষণযুক্ত। বাকি কেউ এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হননি।’

তারেক আলম বলেন, ‘এটি আমাদের ছোট একটি স্টাডি। এখন আমাদের পরিকল্পনা আছে বড় আকারে গবেষণা করার। এর আগে চূড়ান্ত কোনো মতামতে পৌঁছানো যাবে না নীতিগতভাবে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা