kalerkantho

শনিবার । ১৪ ফাল্গুন ১৪২৭। ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১। ১৪ রজব ১৪৪২

বাম গণতান্ত্রিক জোটের স্বাস্থ্য কনভেনশন

জাতীয় স্বার্থে ‘সকলের জন্য স্বাস্থ্য’ মডেল তৈরির আহ্বান

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৭ ডিসেম্বর, ২০২০ ১৯:০৭ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



জাতীয় স্বার্থে ‘সকলের জন্য স্বাস্থ্য’ মডেল তৈরির আহ্বান

বাম গণতান্ত্রিক জোট আয়োজিত কনভেনশনে বিশেষজ্ঞরা জাতীয় স্বার্থে ‘সকলের জন্য স্বাস্থ্য’ মডেল তৈরির জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর পুরানা পল্টনস্থ মুক্তি ভবনের মৈত্রী মিলনায়তনে আয়োজিত কনভেশনে তারা স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা ও স্বাস্থ্য প্রশাসন পুনর্বিন্যাস করার দাবি জানান।

‘করোনা অতিমারি: সর্বজনের স্বাস্থ্য’ বিষয়ক কনভেনশনে সভাপতিত্ব করেন বাম জোটের সমন্বয়ক আবদুল্লাহ ক্বাফী রতন। কনভেনশনে বক্তৃতা করেন ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, অধ্যাপক ডা. রশীদ ই মাহাবুব, অধ্যাপক ডা. আবু সাঈদ, অধ্যাপক হারুন-আর রশীদ, অধ্যাপক ডা. শাকিল আখতার, ডা. মাহফুজুর রহমান, অধ্যাপক ডা. লিয়াকত আলী, ডা. মুশতাক হোসেন, অধ্যাপক ডা. কাজী রকিবুল ইসলাম, ডা. লেলিন চৌধুরী, যুক্তরাজ্য প্রবাসী ডা. রফিকুল হাসান জিন্নাহ, ডা. মনীষা চক্রবর্তী, অনুজীব বিজ্ঞানী ডা. রুবায়েৎ হাসান তানভীর, অভিনু কিবরিয়া ইসলাম, অধ্যাপক ডা. রওশন আরা, অধ্যাপক ডা. ফজলুর রহমান, সিপিবি’র সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ শাহ আলম, বাসদ সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামান, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাইফুল হক, বাসদ-এর বজলুর রশীদ ফিরোজ, গণসংহতি আন্দোলনের জোনায়েদ সাকি, বাসদ (মার্কসবাদী)’র মানস নন্দী, ইউসিএলবি’র নজরুল ইসলাম, সমাজতান্ত্রিক আন্দোলনের সভাপতি হামিদুল হক, গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির নজরুল ইসলাম, ওয়ার্কার্স পার্টি (মার্কসবাদী)’র হাবিব বসুনিয়া প্রমূখ।

কনভেনশনে আলোচকবৃন্দ বলেন, সরকার এই মহামারি মোকাবিলায় শুরু থেকেই উদাসিনতা দেখিয়েছে, যে কারণে জনস্বাস্থ্য রক্ষায় কার্যকর উদ্যোগ নিতে ব্যর্থ হয়েছে। করানা শনাক্তে পরীক্ষা কেন্দ্র দেশের জেলাগুলোতে ও স্থাপন করতে পারেনি। তাই ব্যাপক মানুষ করোনা সনাক্তের বাইরে থেকে গেছে এবং আক্রান্ত ব্যক্তি তা ব্যাপকভাবে ছড়িয়েছে। সরকারের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কোনো ধরনের যাছাই-বাছাই ছাড়া করোনা টেস্টের জন্য নিম্নমানের হাসপাতালকে দায়িত্ব দিয়েছে। সেই হাসপাতালগুলো পরীক্ষা না করে ভুয়া রিপোর্ট ও সার্টিফিকেট দিয়েছে। যা স্বাস্থ্য ঝুঁকি বাড়িয়েছে, মৃত্যুর কারণ হয়েছে। এসময় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সাথে যুক্ত ব্যক্তিরা ব্যাপক দুর্নীতি অনিয়ম করে কোটি কোটি টাকা লুটপাট করেছে।

কনভেনশন থেকে দেশে করোনা নমুনা পরীক্ষার বৈরী পরিবেশের পরিবর্তে টেস্টবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টি করে প্রতিদিন বিনামূল্যে কমপক্ষে এক লাখ টেস্ট করার উদ্যোগ গ্রহণের সুপারিশ করা হয়। আর মাস্ক পরিধান ও শারীরিক দূরত্ব বাজায় রাখা জন্য ব্যাপক প্রচারণার মাধ্যমে জনগণকে সচেতন করার আহ্বান জানানো হয়। এছাড়া কনভেনশনে করোনা ভ্যাকসিন নিয়ে ব্যবসায়ীক অপচেষ্ট রুখে দিয়ে বিনামূল্যে দেশের সকল মানুষকে করোনা ভ্যাকসিন সরবরাহের দাবি জানানো হয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা