kalerkantho

রবিবার । ১৫ ফাল্গুন ১৪২৭। ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১। ১৫ রজব ১৪৪২

টিম ঐকতানের 'মুক্তিযুদ্ধে নারীর ভূমিকা' শীর্ষক ভার্চুয়াল আলোচনা অনুষ্ঠিত

'মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে নারীসমাজ লড়াই করেছে'

অনলাইন ডেস্ক   

১৭ ডিসেম্বর, ২০২০ ১৭:১৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



'মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে নারীসমাজ লড়াই করেছে'

মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে টিম ঐকতান কর্তৃক 'মুক্তিযুদ্ধে নারীদের ভূমিকা' শীর্ষক ভার্চুয়াল আলোচনা অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়েছে।

বুধবার (১৬ ডিসেম্বর) অনলাইন প্লাটফর্ম জুমে এই অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। মোঃ আশিকুর রহমান এর উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন টিম ঐকতান এর মেন্টর জান্নাতুল নাঈম। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ছিলেন দৈনিক কালের কণ্ঠের সহকারী সম্পাদক আলী হাবিব, প্রধান বক্তা হিসেবে জাককানইবি শিক্ষক সমিতির সাবেক সভাপতি মোঃ শফিকুল ইসলাম, বিশেষ অতিথি হিসেবে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর পিস অ্যান্ড জাস্টিস এর প্রোগ্রাম কো-অর্ডিনেটর নিলুফা সুলতানা শ্বেতা সংযুক্ত ছিলেন। আলোচনা অনুষ্ঠানে বক্তারা মুক্তিযুদ্ধে নারীদের ভূমিকা, অবদান, ত্যাগ, সাহসিকতা ইত্যাদি বিষয়ে আলোকপাত করেন।

জান্নাতুল নাঈম স্বাগত বক্তব্যে বলেন, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের পূর্ব প্রেক্ষাপটের দিকে দৃষ্টি দিলে দেখা যাবে, এই সংগ্রাম পরিণতি অর্জন করেছে ধাপে ধাপে, যেখানে নারীর বলিষ্ঠ ভূমিকা বিদ্যমান।

বিশেষ অতিথি নিলুফা সুলতানা শ্বেতা বলেন, মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে বহুমাত্রিকভাবে নারীরা সেই যুদ্ধে অংশ নিয়েছেন। মুসলমান-হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান—সব ধর্মের নারীই মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন। কেবল বাঙালি নয়, সর্বাত্মকভাবে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছেন আদিবাসী নারীরাও।

প্রধান বক্তা মোঃ শফিকুল ইসলাম বলেন, একাত্তরের রণাঙ্গনে দাঁড়িয়েও বিপুল বিক্রমে লড়েছেন নারীরা। তবু আফসোসের সঙ্গে বলতে হয়, মুক্তিযুদ্ধে নারীর অবদানের সঠিক মূল্যায়ন আজও হয়নি। এ ক্ষেত্রে কেবল আমাদের মুক্তিযুদ্ধ নয়, বিশ্ব ইতিহাসের দিকে তাকালেও দেখা যাবে, যেকোনো অমানবিকতার বিরুদ্ধে প্রতিরোধমূলক যুদ্ধ অথবা স্বাধীনতাযুদ্ধে নারীর অবদান কোনো অংশেই কম নয়।

প্রধান অতিথি আলী হাবিব বলেন, মুক্তিযুদ্ধের প্রতিকূল পরিস্থিতিতে পাকিস্তানি বাহিনী কর্তৃক নারীর ওপর নিপীড়ন, ধর্ষণ, লাঞ্ছনা ও সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে বাছবিচারহীনভাবে। নারীরা ধর্ষণের শিকার বা অত্যাচারিত হয়েছেন, মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে এটা যেমন বড় হয়ে উঠেছে, তার চেয়েও বড় সত্য এই যে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে নারীসমাজ লড়াই করেছে, দেশের ভেতরে মুক্তিযোদ্ধাদের আশ্রয় দিয়েছে, রক্ষা করেছে।

উল্লেখ্য, নারীদের আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী ও মানসিক স্বাস্থ্য উন্নয়ন করে নারীর প্রতি নিপীড়ন, সহিংসতা হ্রাস করে সমাজের সামগ্রিক শান্তি প্রতিষ্ঠায় কাজ করছে টিম ঐকতান। উদ্যোগটির সার্বিক সহযোগিতায় রয়েছেন ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের, সেন্টার ফর পিস এন্ড জাস্টিস (সিপিজে)। ইউএন উইমেনের অর্থায়নে ও উইমেন পিস ক্যাফে জাককানইবির উদ্যোগে প্রজেক্টটি বাস্তবায়িত হচ্ছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা