kalerkantho

রবিবার। ৩ মাঘ ১৪২৭। ১৭ জানুয়ারি ২০২১। ৩ জমাদিউস সানি ১৪৪২

প্রতিবন্ধীবান্ধব পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা চায় ইউএনডিপি ও ডিজ্যাবিলিটি এল্যায়েন্স

অনলাইন ডেস্ক   

২ ডিসেম্বর, ২০২০ ২১:২৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



প্রতিবন্ধীবান্ধব পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা চায় ইউএনডিপি ও ডিজ্যাবিলিটি এল্যায়েন্স

জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচি (ইউএনডিপি) এবং ডিজ্যাবিলিটি এল্যায়েন্স অন এসডিজিস বাংলাদেশ ২০২১-২০২৫ সালের বাংলাদেশ সরকারের ৮ম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা প্রতিবন্ধীবান্ধব করার আহ্বান জানিয়েছে। ইউএনডিপি এবং ডিজ্যাবিলিটি এল্যায়েন্স অন এসডিজিস বাংলাদেশ--প্রতিবন্ধিতা বিষয়ক আয়োজিত কর্মশালা ’’সামাজিক সুরক্ষা নীতিমালা ও কর্মসূচি সমূহকে প্রতিবন্ধীতা-বান্ধব করি’’-তে এই দাবি জানায়।

পরিকল্পনা কমিশনের সাধারণ অর্থনৈতিক বিভাগের সদস্য অধ্যাপক ড. শামসুল আলম উক্ত কর্মশালায় প্রধান অতিথী হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এবং ইমপ্যাক্ট ফাউন্ডেশনের ট্রাস্ট্রি মনসুর আহমেদ চৌধুরী অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন বলে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানা গেছে।

ডিজ্যাবিলিটি এল্যায়েন্স অন এসডিজিস বাংলাদেশ ২৫টি দেশীয় ও আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অধিকার সুরক্ষায় কাজ করছে এমন সংগঠনের নেটওয়ার্ক।

কর্মশালায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন যথাক্রমে ইউএনডিপি থেকে আমিনুল আরিফিন এবং সাইটসেভার্স থেকে অয়ন দেবনাথ। মূল প্রবন্ধে উঠে আসে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিরা কোভিড-১৯ মহামারিতে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্থ সম্প্রদায়ের মধ্যে অন্যতম। এছাড়াও সরকারের সামাজিক সুরক্ষার বেষ্ঠনীর বর্তমান পরিধী প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের জন্য পর্যাপ্ত নয়। এ কারণে আগামী ২০২১-২০২৫ সালের ৮ম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা প্রতিবন্ধীতা-বান্ধব করার জন্য সরকারের প্রতি সুনির্দীষ্ট প্রস্তাবনা করেছে এবং সামাজিক সুরক্ষার বেষ্ঠনীতে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের জন্য অধিকতর বাজেট বরাদ্দের জোর দাবী জানিয়েছেন বক্তারা।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথী ড. শামসুল আলম বলেন, ”বাংলাদেশ সরকার প্রতিবন্ধীতা বিষয়ে যথেষ্ট সংবেদনশীল। বর্তমান সরকার প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অধিকার সুরক্ষা আইন-২০১৩ এবং প্রতিবন্ধীতা বিষয়ক জাতীয় কর্মপরিকল্পনা-২০১৯ প্রণয়ন করেছে।”

ড. শামসুল আলম আরো বলেন, ’’জাতীয় সামাজিক সুরক্ষা কৌশল-এর আওতায় ১ লক্ষ গরিব প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের ইতিমধ্যে অনর্ভুক্ত করা হয়েছে।”

ডিজ্যাবিলিটি এল্যায়েন্স অন এসডিজিস বাংলাদেশ এর কনভেনার ও সাইটসেভার্সের কান্ট্রি ডিরেক্টর অমৃতা রেজিনা রোজারিও অনুষ্ঠানে বলেন, ’’যদিও বাংলাদেশ সরকার সামাজিক সুরক্ষার বেষ্ঠনীর পরিধী বৃদ্ধি করেছে, প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের জন্য বরাদ্দ এখনো মাত্র ২ শতাংশের কাছাকাছি যা প্রয়োজনের তুলনায় অনেক কম। তাই ৮ম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনায় প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের জন্য বরাদ্দ বাড়ানো বিশেষ ভাবে প্রয়োজন।”

কর্মশালায় উপস্থিত প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের পক্ষ থেকে জাহাংগীর আলম আগামী ২০২১ সালের গণশুমারিতে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের তথ্য নিরুপণ করার আহবান জানান।

অনুষ্ঠানের অন্যান্য বক্তারা কোভিড-১৯ এর কারণে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের বিভিন্ন সমস্যার কথা তুলে ধরেন। এ বিষয়ে একটি প্রমাণ্যচিত্রও প্রদর্শিত হয় কর্মশালায়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা