kalerkantho

শুক্রবার । ৮ মাঘ ১৪২৭। ২২ জানুয়ারি ২০২১। ৮ জমাদিউস সানি ১৪৪২

করোনাকালে গণমাধ্যমকর্মীদের ঝুঁকি ভাতা দেওয়া উচিৎ : ডা. এবিএম আবদুল্লাহ

অনলাইন ডেস্ক   

২৯ নভেম্বর, ২০২০ ১৭:১৩ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



করোনাকালে গণমাধ্যমকর্মীদের ঝুঁকি ভাতা দেওয়া উচিৎ : ডা. এবিএম আবদুল্লাহ

করোনার এই মহামারী ক্রান্তিকালে গণমাধ্যম কর্মীরা ফ্রন্টলাইন যোদ্ধা। তারাও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তাদের দায়িত্ব পালন করে জনগণকে সচেতন করার কাজটি ভালোভাবেই করে আসছেন। ইতোমধ্যে দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে অনেক সাংবাদিক মারাও গেছেন। অথচ তাদের বিষয়টি তেমনভাবে কেউ ভাবছে না। আমি মনে করি, বাংলাদেশে গণমাধ্যমে কর্মরতদের প্রয়োজনীয় চিকিৎসার জন্য আলাদা হাসপাতাল এবং ঝুঁকি ভাতা সহ প্রণোদনা অবশ্যই দেওয়া উচিত। 

আজ ২৯ নভেম্বর রোববার সোনারগাঁও হোটেলে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় গণমাধ্যম ও বেসরকারি হাসপাতালের ভূমিকা শীর্ষক এক সেমিনারে প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক, ইউজিসি অধ্যাপক ডা. এবিএম আবদুল্লাহ এসব কথা বলেন।

'ডিবেট ফর ডেমোক্রেসি'র আয়োজনে অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ। সেমিনারে আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ প্রাইভেট মেডিকেল এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক ডক্টর আনোয়ার হোসেন খান এমপি, এটিএন বাংলা ও এটিএন নিউজের চেয়ারম্যান ড. মাহফুজুর রহমান, প্রফেসর ডা: মো: এখলাসুর রহমান ও এটিএন বাংলার উপদেষ্টা তাশিক আহমেদ প্রমূখ।

অধ্যাপক ডা. এবিএম আবদুল্লাহ আরো বলেন, 'আমি অনুরোধ করব অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সংবাদমাধ্যমে কর্মরতদের যেন টিকার আওতায়ও আনা হয়। বিষয়গুলোকে গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ জানাচ্ছি। তবে গণমাধ্যমের উচিত, চিকিৎসার অব্যাবস্থাপনা যদি থাকে সেগুলোকে তুলে ধরার পাশাপাশি চিকিৎসকদের ভালো ভূমিকাগুলোও গুরুত্ব সহকারে তুলে ধরা। নচেৎ মানুষ বিভ্রান্ত হবে।'

সভাপতির বক্তব্যে ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ বলেন, বাংলাদেশে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হওয়ার সাথে সাথে মাস্কের দাম, হ্যান্ড স্যানিটাইজার সহ করোনা রোধে ব্যাবহৃত পণ্যের দাম বেড়েই চলছে। ইতোমধ্যে বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য বেড পাওয়া যাচ্ছে না। যারা একবার করোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন তারা বুঝতে পারছেন যে করোনার চিকিৎসা কতো ব্যায়বহুল। কি কারনে করোনার চিকিৎসা এতো ব্যায়বহুল তা একটা বড় প্রশ্ন হয়ে দাড়িয়েছে।

তিনি আরও বলেন, করোনার এই দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলার সময় আর যেন স্বাস্থ্যখাতে দুর্নীতি নিয়ে কোন সংবাদ শুনতে না হয়। আর যেন দেখতে না হয় করোনা আক্রান্ত রোগী নিজেই হাসপাতালে অক্সিজেনের সিলিন্ডার নিচতলা থেকে কাঁধে করে উপরে নিয়ে ব্যাবহার করছে। এক্ষেত্রে সরকারি হাসপাতালগুলোর পাশাপশি বেসরকারি হাসপাতালগুলোকেও দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করতে হবে। আমাদের মনে রাখতে হবে, করোনার টেস্ট জালিয়াতি সহ স্বাস্থ্য খাতের দুর্নীতিবাজরা এখন আদালতের কাঠগড়ায়। ভবিষ্যতে মানুষের জীবন নিয়ে এই ধরনের ছিনিমিনি খেলায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক ও দৃশ্যমান বিচার করা হলে সরকারের প্রতি জনগণের আস্থা আরো বেড়ে যাবে।

বাংলাদেশ প্রাইভেট মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক ডক্টর আনোয়ার হোসেন খান এমপি বলেন, সকল চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে বাংলাদেশে সর্বপ্রথম আমরাই বেসরকারিভাবে করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতাল চালু করি। যদিও শুরুতে চিকিৎসা প্রদানে কিছুটা বেগ পেতে হয়েছিলো। তবে এখন আমরা অনেকটা গুছিয়ে নিয়েছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শ ও নির্দেশনায় করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলায় আমরা সক্ষম হবো ইনশাআল্লাহ। তিনি চিকিৎসা প্রদানে চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীদের অক্লান্ত পরিশ্রম ও ত্যাগের কথা গুরুত্বের সাথে উল্লেখ করেন।

এটিএন বাংলা ও এটিএন নিউজের চেয়ারম্যান ড. মাহফুজুর রহমান বলেন, এ কথা বলার অপেক্ষা রাখেনা যে, করোনায় মৃত্যুহার কমাতে বাংলাদেশের হাসপাতাল তথা চিকিৎসকের ভূমিকা অপরিসীম। তারা জীবন বাজি রেখে চিকিৎসাকাজে নিয়োজিত ছিলো বলেই এদেশে করোনায় সেভাবে প্রাণহানী ঘটেনি। বড় আশার কথা যে, এখন তারা এই চিকিৎসাকে অনেকটাই তাদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসতে পেরেছেন।

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশী চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রতি অনুরোধ আপনারা রোগী ও রোগীর স্বজনদের প্রতি আরেকটু যত্নবান হবেন। তাদের রোগ এবং চিকিৎসার বিষয়টি বুঝিয়ে বললে তারা আশ্বস্থ হন। এতে অনাকাঙ্খিত পরিস্থিতি এড়ানো যায় ও জটিলতার অবসান হয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা