kalerkantho

সোমবার। ৪ মাঘ ১৪২৭। ১৮ জানুয়ারি ২০২১। ৪ জমাদিউস সানি ১৪৪২

আর্টিকেল নাইনটিনের ওয়েবিনারে বক্তারা

সহিংসতার শিকার নারীর প্রতি আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর আচরণ সহানুভূতিশীল নয়

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৭ নভেম্বর, ২০২০ ১৮:৫৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সহিংসতার শিকার নারীর প্রতি আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর আচরণ সহানুভূতিশীল নয়

নির্যাতনের শিকার নারীরা মামলা করতে চাইলে অনেক ক্ষেত্রেই আইন শৃঙ্খলা বাহিনী বিভিন্ন অজুহাতে মামলা নিতে চায় না। সহিংসতার শিকার নারীর প্রতি তাদের আচরণও সহানুভূতিশীল হয় না। নিজের পরিবার-সমাজেও নির্যাতিতারা বৈরি আচরণের শিকার হন। এসব কারণে বিচারের জন্য নারীদের প্রবেশগম্যতা (access to justice) অনেক কম। আবার বিচার ব্যবস্থার দীর্ঘসূত্রতার জন্য মামলার রায় পেতেও দীর্ঘসময় অপেক্ষা করতে হয়।

আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষের ১৬ দিনব্যাপী কর্মসূচির অংশ হিসেবে আর্টিকেল নাইনটিন আয়োজিত ‘কভিডকালে জেন্ডার সহিংসতা : ব্যক্তি, পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্রের দায়’ শীর্ষক একটি অনলাইন আলোচনা সভায় (ওয়েবিনার) বক্তারা এসব কথা বলেন।

জেন্ডারভিত্তিক সহিংসতা এবং নারীর প্রতি পদ্ধতিগত সহিংসতা বিষয়ক বিশেষজ্ঞ ও অধিকারকর্মী এতে অংশ নেন। আর্টিকেল নাইনটিন বাংলাদেশ ও দক্ষিণ এশিয়ার আঞ্চলিক পরিচালক ফারুখ ফয়সলের সঞ্চালনায় ওয়েবিনারে আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আইন ও সালিশ কেন্দ্রের (আসক) জ্যেষ্ঠ উপপরিচালক (প্রোগ্রাম) নিনা গোস্বামী, ট্রান্স জেন্ডার নারী ও অধিকারকর্মী হো চি মিন ইসলাম, সুপ্রীম কোর্টের আইনজীবী ও অধিকারকর্মী আব্দুল্লাহ আল নোমান, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক স্নিগ্ধা রেজওয়ানা এবং ব্র্যাকের জেন্ডার, জাস্টিস ও ডাইভার্সিটি কর্মসূচির প্রধান সেলিনা আহমেদ।

অনুষ্ঠানে মতপ্রকাশের স্বাধীনতাসহ সকল ক্ষেত্রে নারী-পুরুষ, ছেলে-মেয়ে নির্বিশেষে সকল জেন্ডারের জন্য সমান অধিকার, সহিংসতার ঘটনা প্রকাশ করা, নারী ও তৃতীয় লিঙ্গের মানুষদের জানার ও তথ্য পাওয়া অধিকার প্রভৃতি বিষয়ের ওপর আলোকপাত করা হয়। অনুষ্ঠানে জেন্ডার জাস্টিস নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে প্রচলিত আইন ও বিচার ব্যবস্থার ফাঁকফোকর এবং অনেক ক্ষেত্রে অসারতার দিকগুলো আলোচকরা তুলে ধরেন।

এ ছাড়া দেশের নারী, রূপান্তরকামী, রূপান্তরিত এবং নন-বাইনারি ব্যক্তিরা যে ধরনের সহিংসতার শিকার ও চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হন; প্রচলিত বিচার ব্যবস্থা সেগুলো মোকাবেলায় ব্যর্থ বলে মন্তব্য করেন বক্তারা।

আর্টিকেল নাইনটিনের আঞ্চলিক পরিচালক ফারুখ ফয়সল বলেন, জেন্ডারভিত্তিক সহিংসতা নিয়ে রাখঢাকের দিন শেষ হয়ে এসেছে। সময় এখন ‘হাটে হাঁড়ি ভেঙে’ দেওয়ার। এজন্য সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা