kalerkantho

মঙ্গলবার । ৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৪ নভেম্বর ২০২০। ৮ রবিউস সানি ১৪৪২

বিনামূল্যে জাতীয় চিড়িয়াখানা দর্শনের সুযোগ

অনলাইন ডেস্ক   

৩০ অক্টোবর, ২০২০ ১১:৫৪ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বিনামূল্যে জাতীয় চিড়িয়াখানা দর্শনের সুযোগ

ছবি: জাতীয় চিড়িয়াখানা।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে আগামী ১ নভেম্বর থেকে ২০২১ সালের মার্চ পর্যন্ত মাসের প্রথম রবিবার দর্শনার্থীদের জন্য উন্মুক্ত থাকবে জাতীয় চিড়িয়াখানা। এসময়ে দর্শনার্থীরা বিনামূল্যে চিড়িয়াখানায় প্রবেশ করতে পারবেন। এক্ষেত্রে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে।

শুক্রবার (৩০ অক্টোবর) মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে গত ২০ মার্চ থেকে জাতীয় চিড়িয়াখানা বন্ধ থাকার পর সম্প্রতি স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাসহ বেশকিছু শর্তসাপেক্ষে আগামী ০১ নভেম্বর থেকে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরকে চিড়িয়াখানা দর্শনার্থীদের জন্য উন্মুক্ত করার নির্দেশনা দিয়েছে  মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়।

গত ১৫ অক্টোবর মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, খুলে দেয়ার ক্ষেত্রে চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষকে ১০ ও দর্শনার্থীদের ৬টি শর্ত পালন করতে হবে।

চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষের জন্য পালনীয় শর্ত

১. চিড়িয়াখানায় প্রবেশের ক্ষেত্রে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার লক্ষ্যে অমোচনীয় রঙ দিয়ে বৃত্তাকার স্থান চিহ্নিত করতে হবে।

২. প্রবেশ গেটগুলোতে জীবাণুনাশক টানেল ও ফুটবাথ স্থাপন করতে হবে।

৩. প্রবেশ গেটে থার্মাল স্ক্যানারের সাহায্যে দর্শনার্থীর দৈহিক তাপমাত্রা পরীক্ষার ব্যবস্থা করতে হবে।

৪. চিড়িয়াখানার অভ্যন্তরে গুরুত্বপূর্ণ স্থানসমূহে হাত ধোয়ার জন্য বেসিন ও সাবানের ব্যবস্থা রাখতে হবে।

৫. দর্শনার্থীদের জন্য হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা রাখতে হবে।

৬. দর্শনার্থীর সংখ্যা দৈনিক সর্বোচ্চ ২ হাজারের মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখতে হবে।

৭. প্রতিদিন গুরুত্বপূর্ণ প্রাণির এনক্লোজারের চারপাশে জীবাণুনাশক স্প্রে করতে হবে।

৮. পরিদর্শন সময় সকাল ৯টা থেকে বেলা ৩টা পর্যন্ত নির্ধারিত রাখতে হবে।

৯. ডিজিটাল ডিসপ্লের মাধ্যমে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত সতর্কতামূলক প্রচারণা চালাতে হবে এবং

১০. ষাটোর্ধ্ব বয়সের ব্যক্তিদের চিড়িয়াখানায় প্রবেশাধিকার বন্ধ রাখতে হবে।

দর্শনার্থীদের জন্য পালনীয় বিষয়

১. চিড়িয়াখানায় প্রবেশের ক্ষেত্রে অমোচনীয় রঙ দিয়ে চিহ্নিত বৃত্তাকার স্থানে অবস্থান করতে হবে।

২. প্রবেশ গেটগুলোতে স্থাপিত জীবাণুনাশক টানেল ও ফুটবাথ ব্যবহার করতে হবে।

৩. চিড়িখানার ভেতর প্রবেশের পর দিক নির্দেশক অনুসরণ করে একমুখী পথ ব্যবহার করতে হবে।

৪. বাধ্যতামূলকভাবে মাস্ক ব্যবহার করতে হবে।

৫. চিড়িয়াখানায় খাবার নিয়ে প্রবেশ করা যাবে না।

৬. চিড়িয়াখানার ভেতরে এক জায়গায় ভীড় বা জটলা করা যাবে না।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা