kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ১ ডিসেম্বর ২০২০। ১৫ রবিউস সানি ১৪৪২

খুলছে বিনোদনের আরো দরজা

তানজিদ বসুনিয়া   

৩০ অক্টোবর, ২০২০ ০২:২৪ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



খুলছে বিনোদনের আরো দরজা

সাত মাস দর্শনার্থীদের পা পড়েনি। এই সুযোগে জেগে উঠেছে সবুজ। করোনাবিরতি কাটিয়ে নতুন রূপ পাচ্ছে জাতীয় চিড়িয়াখানা। খুলছে আগামী রবিবার। ছবি : কালের কণ্ঠ

প্রধান ফটকের সামনে জনা পঁচিশেক মানুষের সে কী ব্যস্ততা। বাহারি সাজে মূল ফটক সাজাতে যেন বিশাল কর্মযজ্ঞ। রঙের প্রলেপ লাগছে ফুটপাতেও। টিকিট কাউন্টারের সামনে দর্শনার্থীদের লাইনে দাঁড়ানোর সময় যেন সামাজিক দূরত্ব বজায় থাকে, সে জন্য করা হচ্ছে বৃত্ত। দর্শনার্থী প্রবেশের ফটকে স্থাপন করা হয়েছে জীবাণুনাশক টানেল। করোনাবিরতি কাটিয়ে নতুন রূপ পাচ্ছে রাজধানীর মিরপুরের জাতীয় চিড়িয়াখানা। নীরবতা ভেঙে নতুন চেহারার এই চিড়িয়াখানা দর্শনার্থীদের জন্য খুলে দেওয়া হচ্ছে আগামী রবিবার।

শুধু কি চিড়িয়াখানা, সেদিন খুলবে করোনায় বন্ধ হওয়া দেশের আরো অনেক বিনোদনের দরজা। নতুন নিয়মে খুলছে জাতীয় জাদুঘর। জাদুঘরের টিকিট মিলবে অনলাইনে। রবিবার থেকেই ঢোকা যাবে গাজীপুর ও কক্সবাজারের চকরিয়ার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কে। সুন্দরবন ও হবিগঞ্জের চুনারুঘাটের সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানে পর্যটকরা ঘুরে দেখতে পারবে নভেম্বরের প্রথম দিন থেকেই।

চিড়িয়াখানায় দিনে সর্বোচ্চ দুই হাজার দর্শনার্থী : প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের ১০ শর্ত মেনে দর্শনার্থীরা চিড়িয়াখানায় ঢুকতে পারবে। সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত পরিদর্শনের সময় নির্ধারণ করা হয়েছে। দিনে সর্বোচ্চ দুই হাজারের বেশি দর্শনার্থী চিড়িয়াখানায় প্রবেশ করতে পারবে না। দর্শনার্থীদের অবশ্যই সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে জীবাণুনাশক টানেল দিয়ে প্রবেশ করতে হবে। থার্মাল স্ক্যানারের মাধ্যমে দেহের তাপমাত্রা মেপে দর্শনার্থীদের ভেতরে ঢুকতে হবে। চিড়িয়াখানার গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে হাত ধোয়ার বেসিন, সাবান ও হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা রাখা হবে। এ ছাড়া একমুখী পথ ও মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

জাতীয় চিড়িয়াখানার কিউরেটর ডা. মো. আব্দুল লতিফ বলেন, ‘দীর্ঘদিন পর আমরা নতুন করে চিড়িয়াখানা দর্শনার্থীদের জন্য খুলে দিচ্ছি। এরই মধ্যে আমাদের সব ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। করোনা সংক্রমণের কথা মাথায় রেখে আমরা প্রতিদিন দুই হাজার দর্শনার্থীকে চিড়িয়াখানায় প্রবেশের সুযোগ দেব। সামাজিক দূরত্বকে ব্যাপকভাবে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে।’ তিনি বলেন, ‘চিড়িয়াখানাকে আরো সমৃদ্ধ করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। চিড়িয়াখানায় যেসব প্রাণীর উপস্থিতি নেই, সেগুলো নিয়ে আসার কাজ শুরু হয়েছে।’

জাতীয় জাদুঘরের টিকিট অনলাইনে : করোনা পরিস্থিতিতে বেশ কিছু নিয়মে পরিবর্তন এনে আগামী রবিবার খুলছে জাতীয় জাদুঘর। দর্শনার্থীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য জাদুঘরে প্রবেশের টিকিট অনলাইন  (http://nationalmuseumticket.gov.bd/) থেকে সংগ্রহ করতে হবে। টিকিটের দাম আগের মতোই। তবে ৪ শতাংশ অতিরিক্ত সার্ভিস চার্জ দিতে হবে। দর্শনার্থীদের স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত ও সামাজিক দূরত্ব বজায়ের ওপরও জোর দেওয়া হয়েছে। স্বাভাবিক অবস্থায় আগে প্রতিদিন গড়ে তিন হাজার থেকে চার হাজার দর্শনার্থী জাদুঘর পরিদর্শনে যেত। এখন সকালের শিফটে ২০০ জন এবং বিকেলের শিফটে ৩০০ জন দর্শনার্থী জাদুঘর পরিদর্শন করতে পারবে।

পর্যটকদের জন্য বিশ্ব ঐতিহ্য সুন্দরবনের দ্বার খুলছে : বিশ্ব ঐতিহ্য সুন্দরবন পর্যটকদের জন্য আগামী রবিবার থেকে উন্মুক্ত হচ্ছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে পর্যটকদের জন্য সুন্দরবন খুলে দেওয়ার সরকারি এই আদেশ এরই মধ্যে সুন্দরবন বিভাগের সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলোতে পৌঁছে গেছে। করোনার কারণে সরকার ১৯ মার্চ থেকে সুন্দরবন ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা জারি করে। পর্যটকদের ভ্রমণের জন্য সুন্দরবন বিভাগ এবং ট্যুর অপারেটররা সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছে। ট্যুর অপারেটররা একটি বড় লঞ্চে একসঙ্গে ৫০ জনের বেশি পর্যটক বহন করতে পারবে না। সামাজিক দূরত্ব আর স্বাস্থ্যবিধি মেনে পর্যটকদের ভ্রমণ করতে হবে সুন্দরবনে। পর্যটকদের মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। 

চকরিয়ার বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্ক : দেশের একমাত্র প্রাকৃতিক বনাঞ্চলে গড়ে তোলা কক্সবাজারের চকরিয়ার ডুলাহাজারার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কও আগামী রবিবার থেকে খুলে দেওয়া হচ্ছে। দর্শনার্থীদের জন্য পার্ক উন্মুক্ত করতে মন্ত্রণালয়ের নির্দেশ পাওয়ার পর নতুন করে সাজিয়ে তোলা হয়েছে পার্ক। এদিকে দীর্ঘ সাত মাসের বেশি সময় পর্যন্ত পার্কের ভেতরে সব ধরনের দর্শনার্থীর আগমন বন্ধ থাকলেও সাফারি পার্কের বিভিন্ন বন্য প্রাণী ও পশু-পাখির প্রজননে বিরাট সফলতা এসেছে। বিরল প্রজাতির প্রাণীর ঘরেও এসেছে নতুন অতিথি। নতুন করে জন্ম নেওয়া এসব অতিথি পার্কে আগত পর্যটক-দর্শনার্থীদের ভ্রমণে আনন্দের নতুন মাত্রা যোগ করবে বলে পার্ক কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

গাজীপুরের বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্ক : গাজীপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্ক আগামী রবিবার খুলে দেওয়া হচ্ছে। একই সঙ্গে খুলে দেওয়া হচ্ছে জাতীয় উদ্যান, উদ্ভিদ উদ্যান, অ্যাভিয়ারি পার্ক, অভয়ারণ্য কেন্দ্র ও ইকো পার্কটিও। করোনার কারণে গত ২০ মার্চ থেকে বন্ধ রয়েছে এই পার্কগুলো।

সাফারি পার্কের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তবিবুর রহমান জানান, স্বাস্থ্যবিধি মেনে দর্শনার্থীদের পার্কে ঢুকতে হবে।

সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান : হবিগঞ্জের চুনারুঘাটের সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান আগামী রবিবার খুলে দেওয়া হচ্ছে। চুনারুঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সত্যজিত রায় দাশ এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

[প্রতিবেদনটিতে তথ্য দিয়ে সহায়তা করেছেন সংশ্লিষ্ট প্রতিনিধিরা]

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা