kalerkantho

শনিবার । ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৮ নভেম্বর ২০২০। ১২ রবিউস সানি ১৪৪২

এগারো বছরে দৈনিক ডেইলি সান

অনলাইন ডেস্ক   

২৪ অক্টোবর, ২০২০ ১৮:১০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



এগারো বছরে দৈনিক ডেইলি সান

ইংরেজি দৈনিক ‘ডেইলি সান’ সাফল্যের সঙ্গে পথচলার দশম বর্ষ অতিক্রম করে এগারো বছরে পদার্পণ করেছে।

আজ শনিবার সকালে দেশের শীর্ষস্থানীয় শিল্পগোষ্ঠী বসুন্ধরা গ্রুপের প্রকাশনাটির ১১তম বর্ষে পদার্পণ উপলক্ষে ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের মিডিয়া হাউজে ডেইলি সান কার্যালয়ে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এ সময় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কেক কাটেন ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের পরিচালক ও কালের কণ্ঠ সম্পাদক ইমদাদুল হক মিলন, ডেইলি সান সম্পাদক এনামুল হক চৌধুরী, নিউজটোয়েন্টিফোর টেলিভিশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক নঈম নিজাম।

এ সময় ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের পরিচালক ও কালের কণ্ঠ সম্পাদক ইমদাদুল হক মিলন বলেন, ডেইলি সান পরিবারকে অন্তর থেকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। শুরু থেকেই ডেইলি সান একটি স্টান্ডার্ড অবস্থান ধরে রেখেছে। আজকে পত্রিকাটির দশম বর্ষপূতির অনুষ্ঠান হচ্ছে। আমি আশা করবো ডেইলি সানের এরকম বহু বহু বর্ষপূর্তি পালন করা হবে।
 
এ সময় ডেইলি সান সম্পাদক এনামুল হক চৌধুরী বলেন, ডেইলি সান প্রকাশের জন্য পিয়ন থেকে শুরু করে এডিটিং, রির্পোটিং, ডেস্ক, প্রোডাকশনের লোক এ টু জেড সবাই আমাকে সার্বিক সহযোগিতা করে যাচ্ছেন। এ বছর আমাদের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করার পরিকল্পনা ছিল না। ক্রোড়পত্রও করার ইচ্ছা ছিল না, সীমিত পরিসরে হয়ে গেছে। এজন্য বাইরের কাউকে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি। আগামীতে সুযোগ পেলে আমাদের শুভানুধ্যায়ীদের ডাকার চেষ্টা করবো।
 
তিনি আরও বলেন, আজকের দিনে যারা বিজ্ঞাপন দিয়েছেন, বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করেছেন, অনেক গুণীজন লেখা দিয়ে পত্রিকাটি সমৃদ্ধ করেছেন তাদের কৃতজ্ঞতা জানাই। কৃতজ্ঞতা জানাই রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যানের প্রতি। তারা বাণী দিয়ে আজ আমাদের পত্রিকাকে সমৃদ্ধ করেছেন। আমি নঈম নিজাম ও ইমদাদুল হক মিলনের প্রতি কৃতজ্ঞ। আমি ডেইলি সানে যোগদানের পর থেকে তারা দু’জন আমাকে সবসময় সহযোগিতা করে আসছেন। পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছেন।  
 
বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক নঈম নিজাম বলেন, আমি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান আনভীরের প্রতি। করোনাকালে যখন এই বিশাল মিডিয়া হাউজ সংকটে পড়লো। সেই সংকট উত্তরণের জন্য তারা বলিষ্ঠ ভূমিকা রেখে আজকের অবস্থান অব্যাহত রাখার একটি গাইডলাইন দিতে সক্ষম হয়েছিলেন। এর ফলে আজকে আমরা বাংলাদেশ প্রতিদিন, কালের কণ্ঠ, ডেইলি সান প্রকাশনা অব্যাহত রাখতে সক্ষম হয়েছি।
 
নঈম নিজাম বলেন, ডেইলি সানের জন্য অনেক শুভ কামনা। একটি পত্রিকা প্রতিষ্ঠার পর ধারাবাহিকভাবে চালিয়ে নেওয়া কঠিন ও কষ্টসাধ্য বিষয়। ডেইলি সান সেই বিষয়টিতে সক্ষম হয়েছে। কালের বিবর্তনে, বর্তমান বাস্তবতা, চ্যালেঞ্জকে মোকাবিলা করে আগামী দিনে বাংলাদেশকে নতুন পথে, নতুন যাত্রায় সাংবাদিকতাকে এবং মহামারির মধ্যেও সংবাদপত্রকে এগিয়ে নেওয়ার পথকে আরও সাবির্কভাবে সুগম করে এগিয়ে এনেছে। এজন্য ডেইলি সান সম্পাদক এনামুল হক চৌধুরীসহ পত্রিকার সর্বস্তরের সাংবাদিক, কর্মকর্তাদেরকে অভিনন্দন। আপনারা যারা ডেইলি সানকে আজকের এই পর্যায়ে আনতে সক্ষম হয়েছেন, সবার প্রতি আমার অভিবাদন। আগামীতেও আপনাদের সফলতা কামনা করি। আমি মনে করি ডেইলি সান যেভাবে যাত্রা শুরু করেছিল সেটা অব্যাহত রেখেছে। আগামী দিনেও তা ধরে রাখতে সক্ষম হবে।

এ সময় ডেইলি সানের সাংবাদিক-কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

২০১০ সালের ২৪ অক্টোবর আত্মপ্রকাশ করে ডেইলি সান। বস্তুনিষ্ঠতা ও অনুসন্ধানী সাংবাদিকতার জন্য প্রকাশের অল্প দিনের মধ্যেই ডেইলি সান দেশের অন্যতম জনপ্রিয় দৈনিকে পরিণত হয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা