kalerkantho

মঙ্গলবার । ৪ কার্তিক ১৪২৭। ২০ অক্টোবর ২০২০। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

বিবিসি বাংলার প্রতিবেদন

কতো দূর এগিয়েছে গ্লোব বায়োটেকের টিকা তৈরির কাজ?

অনলাইন ডেস্ক   

১৮ অক্টোবর, ২০২০ ১৯:৫১ | পড়া যাবে ৭ মিনিটে



কতো দূর এগিয়েছে গ্লোব বায়োটেকের টিকা তৈরির কাজ?

বাংলাদেশে কভিড-১৯ শনাক্ত হওয়ার পর থেকে এই রোগটির জন্য ভ্যাকসিন উন্নয়নের কাজ করতে শুরু করে গ্লোব বায়োটেক। আর তাদের তৈরি করা তিনটি ভ্যাকসিনকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ভ্যাকসিন প্রি-ক্লিনিক্যাল ক্যান্ডিডেটের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা অবশ্য এটাও জানিয়েছে যে, নভেল করোনাভাইরাস মহামারি নিয়ে তথ্য প্রদানের উদ্দেশ্যেই এই ল্যান্ডস্কেপ ডকুমেন্টটি তৈরি করা হয়েছে। এই তালিকাভুক্তির মাধ্যমে কোনো নির্দিষ্ট একটি পণ্যের বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অনুমোদন পাওয়া বোঝায় না।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ল্যান্ডস্কেপ ডকুমেন্টে ক্লিনিক্যাল ইভালুয়েশনের তালিকায় মোট ৪২টি এবং প্রি-ক্লিনিক্যাল ইভালুয়েশনের তালিকায় ১৫৬টি ভ্যাকসিনের নাম রয়েছে। প্রি-ক্লিনিক্যাল ইভালুয়েশনের তালিকায় তিনটি ভ্যাকসিন স্থান পেয়েছে যেগুলো বাংলাদেশের গ্লোব বায়োটেক লিমিটেড তৈরি করছে। এগুলো হলো DNA plasmid vaccine, Adenovirus Type 5 Vector, D614G variant LNP-encapsulated mRNA । গত ৮ মার্চ থেকে তারা এই টিকা আবিষ্কারের কাজ শুরু করে।

প্রতিষ্ঠানটি জানিয়েছে এর মধ্যে D614G variant LNP-encapsulated mRNA ভ্যাকসিনটির উন্নয়নের কাজ সবচেয়ে বেশি এগিয়ে আছে।

কিভাবে শুরু হলো?

বাংলাদেশে কভিড-১৯ শনাক্ত হওয়ার পর থেকে এই রোগটির জন্য ভ্যাকসিন উন্নয়নের কাজ করতে শুরু করে গ্লোব বায়োটেক। তখন আন্তর্জাতিকভাবে যেসব জেনোম সিকোয়েন্স ছিল, সেগুলো বিশ্লেষণ করে একটি বিশেষ ধরনের মিউটেশনের খোঁজ পান গ্লোব বায়োটেকের বিজ্ঞানীরা। এই মিউটেশনটি হলো D614G। তখন এই মিউটেশনের সংখ্যা খুবই কম ছিল বলে জানান গ্লোব বায়োটেকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ড. কাকন নাগ। তিনি বলেন, ওই সময়ে তারা বুঝতে পেরেছিলেন যে, এই জেনোম মিউটেশনটি ভবিষ্যতে মারাত্মক প্রভাব তৈরি করবে। তখন তারা এটি নিয়ে কাজ করার সিদ্ধান্ত নেন। তিনি বলেন, ওই সময়ে আসলে কেউ ধারণা করতে পারেনি যে এই স্ট্রেইনটি সারা বিশ্বে একচ্ছত্র আধিপত্য বিস্তার করবে। 

গ্লোব বায়োটেক বলছে, বর্তমানে সারা বিশ্বে যতগুলো স্ট্রেইন আছে তার মধ্যে D614Gটি ১০ গুণ বেশি সংক্রামক এবং এর বিরুদ্ধে এখনো পর্যন্ত কেউ ভ্যাকসিন ক্যান্ডিডেট বানায়নি।

কোন পর্যায়ে আছে?

তিনটি ভ্যাকসিন ক্যান্ডিডেটের মধ্যে উন্নয়নের দিক থেকে সবচেয়ে বেশি এগিয়ে রয়েছে এলএনপি ভিত্তিক D614G variant LNP-encapsulated mRNA ক্যান্ডিডেটটি। মূলত এটির প্রি-ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল এরই মধ্যে শেষ হয়েছে। বর্তমানে এটি ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল পর্যায়ে অন্তর্ভুক্ত হচ্ছে।

গ্লোব বায়োটেকের কোয়ালিটি অ্যান্ড রেগুলেটরি অপারেশনের ব্যবস্থাপক ড. মোহাম্মদ মহিউদ্দিন বলেন, এই ভ্যাকসিনটির তিনটি ক্যান্ডিডেটের মধ্যে একটির প্রি-ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে। এখন ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের প্রস্তুতি চলছে।

এ নিয়ে গত ১৪ অক্টোবর আইসিডিডিআরবির সাথে একটি সমঝোতা চুক্তি হয়। তারাই এই ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালটি পরিচালনা করবে। বর্তমানে আইসিডিডিআরবির প্রটোকল ডেভেলপমেন্ট রিভিউ নিয়ে কাজ করছে। ড. মোহাম্মদ মহিউদ্দিন বলেন, তাদের নিজস্ব কিছু ব্যবস্থা আছে যা তারা অনুসরণ করে কাজ করছেন।

মহিউদ্দিন জানান, আইসিডিডিআরবি দ্রুততার সাথে এ বিষয়ে একটি আবেদন বাংলাদেশ মেডিক্যাল রিসার্চ কাউন্সিল-বিএমআরসি'কে জমা দেবে। বাকি দুটো স্ট্রেইন এখনো প্রি-ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল পর্যায়ে রয়েছে।

আর কী কী ধাপ বাকি?

একটি ভ্যাকসিন উন্নয়নের বেশ কয়েকটি ধাপ থাকে। D614G variant LNP-encapsulated mRNA ক্যান্ডিডেটটি এরই মধ্যে ছয়টি ধাপ পার হয়ে এসেছে। এটি এখন সপ্তম ধাপে রয়েছে। এই ধাপে ক্লিনিক্যাল বা হিউম্যান ট্রায়াল করা হয়। এই ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের মধ্যে আবার তিনটি ধাপ রয়েছে। অনেক জায়গায় চারটি ধাপও থাকে। গ্লোব বায়োটেকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ড. কাকন নাগ বলেন, এই টোটাল হিউম্যান ট্রায়ালটি বাকি আছে।

এর বাইরে ভ্যাকসিন ডেভেলপমেন্ট বা উন্নয়নের কাজটি এরই মধ্যে শেষ হয়ে গেছে। ড. কাকন নাগ বলেন, এটি মানব শরীরে কভিড-১৯ ভাইরাসের বিরুদ্ধে প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা গড়ে তুলতে পারে কি না এবং মানব দেহে এর কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া আছে কি না সে বিষয়টি এখন দেখতে হবে। 

নাগ জানান, এরই মধ্যে এই ভ্যাকসিনটি প্রাণীদেহে পরীক্ষা করা হয়েছে এবং সেখান থেকে খুবই আশাপ্রদ ও ভালো ফল পাওয়া গেছে। যার ফলশ্রুতিতেই আসলে হিউম্যান ট্রায়ালে যাওয়া হচ্ছে বলেও জানান তিনি। নাগ বলেন, বর্তমানে যে তথ্য-উপাত্ত আছে সেটি খুবই আশাপ্রদ যে মানব শরীরেও এটি খুব ভালো ফলাফল দেবে।

কবে নাগাদ আসবে?

গ্লোব বায়োটেক জানায়, নিয়ম অনুযায়ী এই ভ্যাকসিনের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল পাঁচ থেকে ছয় মাসের মধ্যেই শেষ হয়ে যাওয়ার কথা। কিন্তু ব্যবস্থাপনা ও অনুমোদনের বিষয়গুলো গ্লোব বায়োটেকের হাতে নেই বলে জানান তারা।

এই বিষয়গুলোর জন্য আলাদা কর্তৃপক্ষ রয়েছে। তারা এটি দ্রুততম সময়ে অনুমোদন দিলে ছয় মাস সময়ে মধ্যে এই ভ্যাকসিন পাওয়া যাবে বলে জানিয়েছেন গ্লোব বায়োটেকের কর্মকর্তারা।

কতদূর যাবে এই ভ্যাকসিন? 

নাগ বলেন, বর্তমানে D614G ভ্যাকসিনটি প্রথম ধাপের ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে যাচ্ছে। এর পরে বাকি ধাপগুলো অতিক্রম করে এই ভ্যাকসিনটি সবার ব্যবহারের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়ার কথা ভাবা হচ্ছে বলে জানায় গ্লোব বায়োটেক লিমিটেড। প্রতিষ্ঠানটি বলছে, এরই মধ্যে বেশ কয়েকটি দেশ তাদের তৈরি করা ভ্যাকসিনটি ট্রায়াল করে দেখার আগ্রহের কথা জানিয়েছে। নাগ বলেন, বাংলাদেশ যেমন চাইনিজ, ইন্ডিয়ান কিংবা রাশিয়ার ভ্যাকসিনের জন্য ছুটছে ঠিক তেমনি অন্য দেশগুলোও আমাদের ভ্যাকসিন তাদের দেশে ট্রায়ালের ব্যাপারে আগ্রহের কথা জানিয়েছে।

ভ্যাকসিনের D614G ক্যান্ডিডেটটি অন্য আর কারো কাছে নেই উল্লেখ করে তিনি বলেন, তারা আশা করছেন যে এটি একটি "সুপিরিয়র" ভ্যাকসিন হবে।

ভ্যাকসিনের তিনটি ক্যান্ডিডেটের মধ্যে পার্থক্য কোথায়?

ব্যানকোভিড নামে যে ভ্যাকসিনটি গ্লোব বায়োটেক লিমিটেড বানাচ্ছে তার যে তিনটি ক্যান্ডিডেট রয়েছে তাদের মধ্যে মূলত প্রযুক্তিগত পার্থক্য রয়েছে। এছাড়া তিনটি ক্যান্ডিডেটের উদ্দেশ্যই কভিড-১৯ প্রতিহত করা। এই ভ্যাকসিনটির যে মলিকিউলটি ভাইরাসের বিরুদ্ধে কার্যকর হবে সেটি সব ক্যান্ডিডেটের ক্ষেত্রেই এক। আর সেটি হচ্ছে D614G। কিন্তু এই ক্যান্ডিডেটগুলো উৎপাদন করার প্রযুক্তি ভিন্ন। এর মধ্যে যে ক্যান্ডিডেটটি সবচেয়ে এগিয়ে আছে অর্থাৎ D614G variant LNP-encapsulated mRNA- এটির উৎপাদন প্রযুক্তি এখনো পর্যন্ত বিশ্বের সবচেয়ে আধুনিক এবং সবচেয়ে বেশি নিরাপদ বলে তারা দাবি করছেন।

এরপরে Adenovirus Type 5 Vector নামে যে ক্যান্ডিডেটটি রয়েছে সেটি অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় যে প্রযুক্তি ব্যবহার করছে ভ্যাকসিন তৈরি করছে তার প্রায় কাছাকাছি বলে উল্লেখ করেন নাগ। আর ভ্যাকসিনটি যাতে সস্তায় দেয়া যায় তার জন্য আরেকটি প্রযুক্তি নিয়েও কাজ চলছে বলে তিনি জানান। সেটি হচ্ছে ডিএনএ প্রযুক্তি। কিন্তু এই প্রযুক্তি খুব নিরাপদ বলে অতীতে প্রমাণিত হয়নি। তাই এর উন্নয়নের কাজটিও পিছিয়ে রাখা হয়েছে বলে জানানো হয়।

কিভাবে কাজ করবে ব্যানকোভিড ভ্যাকসিন?

এ বিষয়ে গ্লোব বায়োটেক লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ড. কাকন নাগ বলেন, ব্যানকোভিড ভ্যাকসিন যখন মানবদেহে প্রয়োগ করা হবে তখন এর এমআরএনএ নামে মলিকিউলটি দেহের নির্দিষ্ট কিছু কোষে প্রবেশ করবে।

এই মলিকিউলটি কভিড-১৯ ভাইরাস সার্স-কভ-২- তার স্পাইক প্রোটিনের সান্নিধ্যে আসবে। এই স্পাইক প্রোটিনটি তখন অ্যান্টিজেন হিসেবে কাজ করবে এবং পরবর্তীতে অ্যান্টিবডি তৈরি হবে। নাগ বলেন, টিকা দেয়া হলে শরীরে এই অ্যান্টিবডি তৈরির প্রক্রিয়া এবং এর মেমোরি সেল ও টি-সেল তৈরি হয়ে যাবে। ফলে ওই ব্যক্তি সার্স-কভ-২ ভাইরাসে আক্রান্ত হলে এই অ্যান্টিবডি সেটি শনাক্ত করতে পারবে এবং দ্রুত তারা সেটি দেহ থেকে সরিয়ে দেবে। তখন আর এই জীবাণুটি মানুষকে রোগাক্রান্ত করতে পারবে না বলে তিনি জানান।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা