kalerkantho

সোমবার । ১০ কার্তিক ১৪২৭। ২৬ অক্টোবর ২০২০। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

হোমিওপ্যাথি বোর্ডের সংবাদ সম্মেলনে তথ্য

দেশের ৩০ শতাংশ মানুষ হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা নিচ্ছেন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ২১:০১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দেশের ৩০ শতাংশ মানুষ হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা নিচ্ছেন

দেশের ৩০ শতাংশ মানুষ হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসার আওতায় রয়েছেন। তাঁরা এই চিকিৎসার ওপরে আস্থা রাখেন। এমনকি করোনাভাইরাসের মহামারির মধ্যেই সারা দেশে প্রায় ১৫ লাখ মানুষ হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা সেবা নিয়েছেন। বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথি বোর্ডের এক সংবাদ সম্মেলনে বুধবার এ তথ্য জানান বোর্ড চেয়ারম্যান ডা. দিলীপ কুমার রায়।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসায় ব্যাপক উন্নতি হয়েছে। সম্ভবনা থাকার পরেও বাংলাদেশে এই চিকিৎসা ব্যবস্থা অবহেলিতই থেকে গেছে। তারপরও করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের সুস্থ করে তুলতে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতে হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা সফল হয়েছে। করোনাভাইরাসসহ বিভিন্ন বৈশ্বিক মহামারি প্রতিরোধ এবং এই চিকিত্সা ব্যবস্থাকে আরো জনপ্রিয় করে তুলতে হোমিওপ্যাথির উচ্চতর গবেষণার জন্য জাতীয় রিসার্চ সেন্টার, উচ্চতর শিক্ষার জন্য হোমিওপ্যাথিক মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় এবং আধুনিক হোমিওপ্যাথিক হাসপাতাল প্রতিষ্ঠার দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথি বোর্ডের নেতারা। এছাড়া দেশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নাম অনুসারে একটি হোমিওপ্যাথি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার প্রক্রিয়া এগিয়ে চলছে বলেও জানান বোর্ড চেয়ারম্যান।

‘করোনা প্রতিরোধে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসার ভূমিকা ও উন্নয়ন’ বিষয়ে সংবাদ সম্মেলন ও মতবিনিময় সভায় বোর্ডের রেজিস্ট্রার ও সচিব ডা. জাহাঙ্গীর আলম, বোর্ডের সদস্য ডা. শেখ মো ইফতেখার উদ্দিন, ডা. আশীষ শংকর নিয়োগী, ডা. কায়েম উদ্দিন, ডা. মো আতাহার আলী, ডা. মো. ইসরাফিল হোসেন মুন্সি, ডা. মো. রাশেদুল হক, হোমিওপ্যাথিক মেডিক্যাল কলেজ শিক্ষক সমিতি বাংলাদেশের সভাপতি ডা. কামারুজ্জামান ভূঁঞাসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা