kalerkantho

মঙ্গলবার । ৪ কার্তিক ১৪২৭। ২০ অক্টোবর ২০২০। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

রেজিস্ট্রারকে ‘রুটিন ভিসি’ করায় শিক্ষকরা বিব্রত: শেকৃবি শিক্ষক সমিতি

শেকৃবি প্রতিনিধি    

২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ২১:৩১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রেজিস্ট্রারকে ‘রুটিন ভিসি’ করায় শিক্ষকরা বিব্রত: শেকৃবি শিক্ষক সমিতি

শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শেকৃবি) উপাচার্য, উপ উপাচার্য ও কোষাধ্যক্ষের পদ শূন্য হয় চলতি বছরের আগস্ট মাসের ১৪ তারিখ। অবিভাবক শূন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে থমকে যায় সার্বিক কাজ। যেকোনো কাজের দীর্ঘসূত্রিতা, শিক্ষক-শিক্ষিকা, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন আটকে যাওয়াসহ নানা সমস্যা দেখা দেয়। এমতাবস্থায় চলতি মাসের ২০ তারিখে শিক্ষা মন্ত্রণালয় শেকৃবির রেজিস্ট্রার শেখ রেজাউল করিমকে রুটিন ভিসি হিসিবে দায়িত্ব দেয়। কিন্তু এতে বিব্রত বোধ করছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা। বুধবার শেকৃবি শিক্ষক সমিতি এক লিখিত বিবৃতি ও অনলাইন সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এটা জানান। সেই সঙ্গে শেকৃবিতে কর্মরত অধ্যাপকদের মধ্য থেকে একাডেমিক, প্রশাসনিক ও রাজনৈতিক প্রজ্ঞাসম্পন্নদের উপাচার্য, উপ উপাচার্য ও কোষাধ্যক্ষ পদে স্বল্পতম সময়ের মধ্যে নিয়োগ প্রদানের দাবি জানান। 

লিখিত বিবৃতিতে শেকৃবি শিক্ষক সমিতি জানায়, শিক্ষা মন্ত্রণালয় রেজিস্ট্রার শেখ রেজাউল করিমকে উপাচার্যের রুটিন কাজের দায়িত্ব প্রদান করায় বিশ্ববিদ্যালয়ের চলমান সমস্যার আংশিক সমাধান হলেও প্রকৃত সমস্যার সমাধান হয়নি। রুটিন ভিসি অনেক কাজই করতে পারবেন না। তারা দাবি করেন, শেকৃবিতে কর্মরত অধ্যাপকদের মধ্যে একাডেমিক, প্রশাসনিক ও রাজনৈতিক প্রজ্ঞাসম্পন্নদের উপাচার্য, উপ উপাচার্য ও কোষাধ্যক্ষ পদে স্বল্পতম সময়ের মধ্যে নিয়োগ প্রদানের।

শেকৃবি শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. মো. নজরুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মো. মিজানুর রহমান এক যৌথ বিবৃতিতে সাংবাদিকদের জানান, রুটিন ভিসি শুধু বেতনের জন্য সাইন করা ছাড়া আর কিছুই করতে পারনে না। তারপর রেজিস্ট্রারকে এ রকম দায়িত্ব প্রদান করায় শিক্ষকরাও বিব্রত। সংকট নিরসনে উপাচার্য, উপ উপাচার্য ও কোষাধ্যক্ষ তিনটি পদে স্থায়ীভাবে (চার বছর মেয়াদে) নিয়োগ প্রদান করা জরুরি। এ সময় তারা আরো বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক শৃঙ্খলা রক্ষার্থে শেকৃবিতে কর্মরতদের মধ্য থেকে এসব পদে নিয়োগ দেওয়া উচিৎ। 

রুটিন ভিসি ও রেজিস্ট্রার শেখ রেজাউল করিম বুধবার সাংবাদিকদের বলেন, বেতন ভাতার কাগজে সাইন করা ও দৈনন্দিন কাজ চালিয়ে নিতে আমাকে দায়িত্ব প্রদান করা হয়েছে। কোনো নীতিমালা প্রণনয়ন আমার কাজ না।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা