kalerkantho

রবিবার । ৪ আশ্বিন ১৪২৮। ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১১ সফর ১৪৪৩

ড্রাগন গ্রুপ শ্রমিকদের শ্রম মন্ত্রণালয় ঘেরাওয়ে পুলিশের বাধা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ১৭:৫৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ড্রাগন গ্রুপ শ্রমিকদের শ্রম মন্ত্রণালয় ঘেরাওয়ে পুলিশের বাধা

দীর্ঘ পাঁচ মাসব্যাপী আন্দোলনরত ড্রাগন গ্রুপ শ্রমিকদের আইনগত পাওনা পরিশোধের দাবিতে আজ বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১২টায় সচিবালয় অবস্থিত শ্রম মন্ত্রণালয় ঘেরাও কর্মসূচি পালন করেছে। শ্রমিকরা জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে সমাবেত হয়ে মিছিল করে সচিবালয়ের দিকে অগ্রসর হলে সচিবালয় লিংক রোডে ব্যাপক পুলিশি বাধার মুখে পড়ে। এ সময় আন্দোলনরত শ্রমিকদের সাথে পুলিশের ধাক্কা-ধাক্কির ঘটনায় নারীসহ কয়েকজন শ্রমিক আহত হয়।

এদিকে পুলিশি বাধার মুখে লিংক রোডে অবস্থিত সচিবালয় গেটে শ্রমিকরা অবস্থান নিয়ে সমাবেশ করে। ওই সমাবেশে বক্তৃতা করেন গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র-এর সাধারণ সম্পাদক জলি তালুকদার, শ্রমিক নেতা মঞ্জুর মঈন, হযরত আলী, ড্রাগন শ্রমিক রমেসা বেগম, শিল্পী আক্তার, আব্দুল কুদ্দুস প্রমুখ।

সমাবেশে শ্রমিক নেতা জলি তালুকদার বলেন, দীর্ঘ ৫ মাস ধরে শ্রম মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট ক্রাইসিস ম্যানেজমেন্ট কমিটি এবং অন্যান্য শীর্ষ কর্মকর্তাগণ আলোচনার নাম করে শ্রমিকদের ঘোরাচ্ছে। তারা ৬ থেকে ৭ বার মালিকপক্ষের সঙ্গে বৈঠক করেও আইন প্রতিপালনে তাকে বাধ্য করতে পারেনি।

তিনি বলেন, ড্রাগন মালিক মোস্তফা গোলাম কুদ্দুস বিজিএমইএ’র প্রথম সভাপতি ও অত্যন্ত প্রভাবশালী হওয়ায় তার অন্যায়ের বিরুদ্ধে কোনো প্রকারের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে কেউ আগ্রহী নয়। শ্রমিকের আইনানুগ পাওনা পরিশোধে সদর্পে অস্বীকৃতি জানানোর মাধ্যমে ড্রাগন মালিক শিল্প এবং দেশের স্থিতিশীলতা বিনষ্ট করার উষ্কানি দিচ্ছেন বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, শ্রমিকদের বিরুদ্ধে যেভাবে বল প্রয়োগ করা হয়, সরকার তার সামান্য মালিকের বিরুদ্ধে ব্যবহার করলে এতোদিনে শ্রমিকের সঙ্কট সুরাহা হয়ে যেত। কিন্তু সরকারের সংশ্লিষ্টরা বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে দেখছেন না। তিনি অবিলম্বে ড্রাগন মালিককে গ্রেপ্তারের মাধ্যমে শ্রম আইন প্রতিপালনে মালিকপক্ষকে বাধ্য করার দাবি জানান।

সমাবেশ থেকে দাবি আদায়ে আগামীকাল ১৯ সেপ্টেম্বর শনিবার জাতীয় জাদুঘরের সামনে ছাত্র-শিক্ষক-লেখক-শিল্পী-জনতার সংহতি সমাবেশ ও ২০ সেপ্টেম্বর গণভবন অভিমুখে শ্রমিকদের ভুখা মিছিলের কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।



সাতদিনের সেরা