kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৪ আশ্বিন ১৪২৭ । ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০। ১১ সফর ১৪৪২

তথ্য পাচার ও ঘুষ লেনদেন

মিজান-বাছিরের বিরুদ্ধে আরো দুজনের সাক্ষ্য

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ১৩:৪৯ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মিজান-বাছিরের বিরুদ্ধে আরো দুজনের সাক্ষ্য

অবৈধভাবে তথ্য পাচার ও ঘুষ লেনদেনের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় পুলিশের উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) মিজানুর রহমান ও দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) পরিচালক খন্দকার এনামুল বাছিরের বিরুদ্ধে আদাালতে আরো দুজন সাক্ষ্য দিয়েছেন। তারা হলেন, দুদকের উচ্চমান সহকারী জিল্লুর রহমান ও প্রধান সহকারী এএসএম আবু জাফর বিশ্বাস। 

আজ বুধবার ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৪-এর বিচারক শেখ নাজমুল আলমের আদালতে সাক্ষ্য দেন তারা। পরে আদালত পরবর্তী সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য ৭ অক্টোবর দিন ধার্য করেন। এনিয়ে মোট ১৭ সাক্ষীর মধ্যে চার জনের সাক্ষ্য শেষ হলো।

এর আগে ২ সেপ্টেম্বর মামলার রেকর্ডিং অফিসার দুদকের সহকারী পরিচালক মো. আব্দুল ওয়াদুদ সাক্ষ্য দেন। পরে আদালত ১৬ সেপ্টেম্বর পরবর্তী সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য দিন ধার্য করেন। এদিন মামলার রেকর্ডিং অফিসারের আগে মামলার এক নম্বর সাক্ষী ও বাদি দুদকের পরিচালক শেখ মো. ফানাফিল্যাকে আসামি পক্ষের আইনজীবী জেরা করেন। গত ১৯ আগস্ট ফানাফিল্য আসামিদের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দেন। এ দিন সাক্ষ্য শেষ হলেও তার সাক্ষ্যের জেরা না হওয়ায় জেরা ও পরবর্তী সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য ২ সেপ্টেম্বর দিন ধার্য করেন আদালত।

এর আগে গত ১২ আগস্ট মামলার সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য দিন ধার্য ছিল। কিন্তু মামলার এক নম্বর সাক্ষী ও বাদী দুদকের পরিচালক শেখ মো. ফানাফিল্যা অসুস্থ থাকায় আদালতে আসতে পারেননি। এজন্য আদালতে দুদকের পক্ষে সময়ের আবেদন করা হয়। আদালত সময়ের আবেদন মঞ্জুর করে সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য আগামী ১৯ আগস্ট দিন ধার্য করেন।

মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার থাকাকালে বিয়ে গোপন করতে নিজের ক্ষমতার অপব্যবহার করে স্ত্রীকে গ্রেফতার করানোর অভিযোগ ওঠে ডিআইজি মিজানের বিরুদ্ধে। এছাড়া এক সংবাদ পাঠিকাকে প্রাণনাশের হুমকি ও উত্ত্যক্ত করার অভিযোগে মিজানুরের বিরুদ্ধে বিমানবন্দর থানায় সাধারণ ডায়েরিও (জিডি) হয়।

নারী নির্যাতনের অভিযোগে ২০১৯ সালের জানুয়ারির শুরুর দিকে তাকে প্রত্যাহার করে পুলিশ সদর দফতরে সংযুক্ত করা হয়। এরপর ওই বছরের ২৪ জুন সম্পদের তথ্য গোপন ও অবৈধভাবে সম্পদ অর্জনের অভিযোগে মিজানুরের বিরুদ্ধে মামলা করে দুদক। এর অনুসন্ধান কর্মকর্তা ছিলেন দুদকের পরিচালক খন্দকার এনামুল বাছির।

মামলার তদন্ত চলাকালে ডিআইজি মিজান অভিযোগ করেন, অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ থেকে রেহাই দিতে দুদকের পরিচালক এনামুল বাছির তার কাছ থেকে ৪০ লাখ টাকা ঘুষ নিয়েছেন।

এ অভিযোগ ওঠার পর বাছিরকে সরিয়ে দুদকের আরেক পরিচালক মো. মঞ্জুর মোরশেদকে অনুসন্ধান কর্মকর্তা নিয়োগ দেয়া হয়। ঘুষ লেনদেনের অভিযোগ খতিয়ে দেখতে ফানাফিল্যাকে প্রধান করে তিন সদস্যের দলকে অনুসন্ধানের দায়িত্ব দেয়া হয়।

এ ঘটনায় ২০১৯ সালের ১৬ জুলাই মিজান ও বাছিরের বিরুদ্ধে দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয় ঢাকা-১-এ মামলাটি করেন দুদকের পরিচালক শেখ মো. ফানাফিল্যা। এ মামলার তদন্ত কর্মকর্তাও তিনি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা