kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৪ আশ্বিন ১৪২৭ । ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০। ১১ সফর ১৪৪২

মুর্তজা বশীরের মৃত্যুতে ডিএনসিসি মেয়রের শোক

নিজস্ব প্রতিবেদক    

১৫ আগস্ট, ২০২০ ১৩:৪৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মুর্তজা বশীরের মৃত্যুতে ডিএনসিসি মেয়রের শোক

বরেণ্য চিত্রশিল্পী মুর্তজা বশীরের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম।

আজ শনিবার (১৫ আগস্ট) এক শোকবার্তায় মেয়র মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা এবং তাঁর শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।

আতিকুল ইসলাম বলেন, মুর্তজা বশীর একজন চিত্রশিল্পী, কার্টুনিস্ট এবং ভাষা আন্দোলনের সক্রিয় কর্মী ছিলেন। প্রখ্যাত জ্ঞানতাপস ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহর ছেলে হলেও মুর্তজা বশীর স্বীয় কর্ম ও গুণে পরিচিত হতে চেয়েছিলেন। একুশে পদক ও স্বাধীনতা পুরস্কারপ্রাপ্ত এই শিল্পী চিত্রকলার বিভিন্ন মাধ্যমে কাজ করেছেন। তাঁর মৃত্যুতে দেশের শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতি অঙ্গনের জন্য এক অপূরণীয় ক্ষতি হলো। তিনি তাঁর কর্মের মধ্য দিয়ে মানুষের মাঝে চিরকাল বেঁচে থাকবেন।

রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালের নিবিড় পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ শনিবার (১৫ আগস্ট) মৃত্যুবরণ করেন মুর্তজা বশীর। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৮ বছর৷

গত বৃহস্পতিবার (১৪ আগস্ট) দিবাগত রাত দেড়টার দিকে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালের মেডিক্যাল ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে (এমআইসিইউ) ভর্তি করা হয় মুর্তজা বশীরকে।

গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় এভারকেয়ার হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায়, মুর্তজা বশীরের শরীরে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। তিনি হৃদরোগ, ফুসফুস ও কিডনি জটিলতায়ও ভুগছিলেন।

ভাষাবিদ ড. মুহাম্মদ শহীদুল্লাহর ছেলে চিত্রশিল্পী মুর্তজা বশীর ১৯৩২ সালের ১৭ আগস্ট ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন। চিত্রকলায় গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য ১৯৮০ সালে একুশে পদক পান তিনি। একই কাজে স্বাধীনতা পুরস্কার পান ২০১৯ সালে। কর্মজীবনে তিনি দীর্ঘদিন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগের অধ্যাপক ও চেয়ারম্যান হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

বাংলাদেশে বিমূর্ত ধারার চিত্রকলার অন্যতম পথিকৃৎ মুর্তজা বশীরের 'দেয়াল', 'শহীদ শিরোনাম', 'পাখা', 'রক্তাক্ত ২১শে' শিরোনামের চিত্রকর্মগুলো বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা