kalerkantho

রবিবার । ১২ আশ্বিন ১৪২৭ । ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০। ৯ সফর ১৪৪২

কক্সবাজারে ১০০ জীবিত ও ২০০ জবাই করা গরুর মাংস জব্দ সংবাদের প্রতিবাদ

অনলাইন ডেস্ক   

১০ আগস্ট, ২০২০ ১৫:২৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কক্সবাজারে ১০০ জীবিত ও ২০০ জবাই করা গরুর মাংস জব্দ সংবাদের প্রতিবাদ

কক্সবাজারে তুরস্কের দিয়ানেত ফাউন্ডেশনের কোরবানি কর্মসূচি নিয়ে গত ৩ আগস্ট ২০২০ তারিখে কালের কণ্ঠ পত্রিকায় প্রকাশিত ‌'কক্সবাজারে জঙ্গি সম্পৃক্ত এনজিওর ১০০ জীবিত ও ২০০ জবাই করা গরুর মাংস জব্দ' শীর্ষক সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছেন বাংলাদেশে তুরস্কের রাষ্ট্রদূত মুস্তাফা ওসমান তুরান। এক চিঠিতে তিনি জানিয়েছেন, ঈদুল আজহার সময় তুরস্কের দিয়ানেত ফাউন্ডেশনের বিনা অনুমতিতে কার্যক্রম পরিচালনার খবরটি সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন।

চিঠিতে বলা হয়, দিয়ানেত হলো একটি প্রতিষ্ঠান, যা তুরস্ক প্রজাতন্ত্রের ধর্মবিষয়ক রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান দ্বারা পরিচালিত হয়। এটি প্রতিষ্ঠার পর থেকে বিশ্বের অনেক দেশে এর কর্মকাণ্ড চালু রয়েছে এবং ২০১২  সাল থেকে বাংলাদেশের সব অভাবী নাগরিককে সেবা দিয়ে আসছে। দিয়ানেত ফাউন্ডেশন কক্সবাজারে রোহিঙ্গাদেরও বাংলাদেশের আইন-কানুন অনুযায়ী সহায়তা করে থাকে।

দিয়ানেত হলো একটি বৈশ্বিক প্রতিষ্ঠান, যা তুরস্ক প্রজাতন্ত্রের ধর্মবিষয়ক রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানের পক্ষে ২০১৯ সালে ১৪৯টি দেশে সব সময়ের মতো সেসব দেশের আইন অনুযায়ী বৃহত্তম কোরবানি (ঈদুল আজহা) কর্মসূচি পরিচালনা করে আসছে।

তুরস্কের রাষ্ট্রদূত জানান, ২০২০ সালের কোরবানি কর্মসূচির আওতায় বাংলাদেশি অভাবী জনগণ (৬০%) এবং রোহিঙ্গা শরণার্থীদের (৪০%) জন্য মোট ৬০০টি গবাদি পশু কেনা হয়েছে, জবাই করা হয়েছে এবং বিতরণ করা হয়েছে। সব জবাই ও বিতরণপ্রক্রিয়া সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে পরিকল্পনা ও সমন্বয় করা হয়েছে এবং তারা সরকারি লিখিত অনুমতি পেয়েছে। ঈদুল আজহার সময়ে তুরস্কের দিয়ানেত ফাউন্ডেশনের বিনা অনুমতিতে কার্যক্রম পরিচালনার খবরটি সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন।

চিঠিতে বলা হয়, এই ভিত্তিহীন দাবি এবং বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক নিষিদ্ধ অন্য কয়েকটি সংস্থার সঙ্গে দিয়ানেতের কথা উল্লেখ করা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক এবং তা আমাদের বাংলাদেশি ভাই-বোনদের প্রচেষ্টাকে সমর্থন করার জন্য বাংলাদেশে পরিচালিত তুর্কি প্রতিষ্ঠানগুলোকে গভীরভাবে দুঃখ দিয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা