kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৬ আশ্বিন ১৪২৭ । ১ অক্টোবর ২০২০। ১৩ সফর ১৪৪২

বাসার সামনে থেকে বিদ্যুতের ট্রান্সফরমার সরানোর আবেদন

মোশতাক আহমদ   

৪ আগস্ট, ২০২০ ১৮:৩৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বাসার সামনে থেকে বিদ্যুতের ট্রান্সফরমার সরানোর আবেদন

রাজধানীর হাতিরঝিলে মহানগর আবাসিক এলাকায় ভবনের সামনে বিদ্যুতের ট্রান্সফরমার স্থাপনের কারণে আতঙ্কে আছেন সংশ্লিষ্ট অর্ধশতাধিক পরিবার। যে কোন সময় ট্রান্সফরমারটি বিস্ফোরণের আশঙ্কায় ওই এলাকার আবাসিক ভবনে বসবাস এবং নির্মাণ কাজ ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে। এ বিষয়ে বিদ্যুৎ অভিসে অভিযোগ জানিয়েও কোন প্রতিকার পাননি স্থানীয় বাসিন্দারা। বড় ধরনের প্রাণঘাতি ক্ষতি থেকে রক্ষা পেতে দ্রুত ওই ট্রান্সফরমার নিরাপদ স্থানে সরানোর দাবি জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

জানা গেছে, সম্প্রতি হাতিরঝিলে মহানগর আবাসিক এলাকার এক বাসিন্দা ঝুঁকিপূর্ণ বিদ্যুতের ট্রান্সফরমার সরানোর জন্য ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির (ডিপিডিসি) ব্যবপস্থাপনা পরিচালকের কাছে লিখিত আবেদন জানিয়েছেন। ৮ নম্বর রোডের ২০০ নম্বর বাড়ির মালিক নাজমা আক্তার তার আবেদনে বলেন, আমার মিটার নম্বর-১৬৩৩৪৫৯, আমার বাড়ির সামনেই এমনকি বাড়ি থেকে শূন্য মিটার দূরে ডিপিডিসির ট্রান্সফরমার পি-২৯ অবস্থিত। বর্তমানে আমার উক্ত প্লটে বহুতল ভবন নির্মাণের কাজ চলছে। এমতাবস্থায় ওই ট্রান্সফরমার থাকার ফলে যে কোন সময় প্রাণঘাতি দূর্ঘটনাসহ বড় ধরণের দূর্ঘটনার আশংকা করছি। 

তিনি উল্লেখ করেন, এ বিষয়ে এর আগেও ডিপিডিসির নির্বাহী প্রকৌশলীর সঙ্গে মৌখিকভাবে কথা বলেছিলেন। এরইপ্রেক্ষিতে নির্বাহী প্রকৌশলী সরেজমিনে পরিদর্শন করেছেন। কিন্তু অদ্যবদি ট্রান্সফরমারটি নিরাপদ স্থানে সরানোর ব্যাপারে কোন উল্লেখযোগ্য পদক্ষে দেখা যাচ্ছে না। ডি ব্লকের ৮ নম্বর রোডের উত্তর এবং দক্ষিণ দিকে পর্যাপ্ত পরিমাণ খালি জমি আছে, যেখানে ট্রান্সফরমারটি স্থানান্তরিত করা যেতে পারে।

দ্রুত সমাধানের জন্য একই আবেদনের কপি ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র এবং বিদ্যুৎ বিভাগের সচিবের কাছেও দিয়েছেন ভুক্তভোগী নাজমা আক্তার।

স্থানীয়রা জানান, ঝুকিপূর্ণ ট্রান্সফরমারের ১০০ গজের মধ্যে বিভিন্ন ফ্লাটে অর্ধশতাধিক পরিবারের বসবাস। প্রায়ই বজ্রপাত হলে ট্রান্সফরমার বিস্ফোরণ হয়। এসময় বাসিন্দাদের মধ্যে চরম আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। তাই ট্রান্সফরমারটি অন্তত ২০০ ফিট সামনে তিন রাস্তার মাথায় নিয়ে স্থাপন করলে অনেকটা ঝুঁকিমুক্ত হওয়া যাবে। এ বিষয়ে অতি সত্ত্বর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন ভুক্তভোগী বাসিন্দারা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা