kalerkantho

রবিবার। ২৫ শ্রাবণ ১৪২৭। ৯ আগস্ট ২০২০ । ১৮ জিলহজ ১৪৪১

প্রতিবেশীর ছুরির আঘাতে প্রাণ গেল যুবকের

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৮ জুলাই, ২০২০ ০৩:৫৪ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



প্রতিবেশীর ছুরির আঘাতে প্রাণ গেল যুবকের

প্রতীকী ছবি

রাজধানীর মিরপুরে রুবেল হোসেন (২২) নামের এক যুবককে ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয়েছে। গত সোমবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে পশ্চিম শেওড়াপাড়ার শাপলা সরণির ৩৭৪/৩ নম্বর বাসায় এ হত্যাকাণ্ড ঘটে। নিহত রুবেল অনলাইনভিত্তিক প্রতিষ্ঠান ‘দারাজ’-এর বিক্রয়কর্মী ছিলেন।

জানা গেছে, রুবেল হোসেনের গ্রামের বাড়ি ভোলার বোরহানউদ্দিনে। চার ভাইয়ের মধ্যে তিনি ছোট। পরিবারের সঙ্গে তিনি শেওড়াপাড়ার ওই বাসাতেই থাকতেন।

রুবেলের পরিবার বলছে, রুবেলের ভাই আকবর পাশের বাসার মিজান নামের একজনকে চোর বলেছেন বলে অপবাদ দেয়। এ নিয়ে মিজানের পরিবারের সঙ্গে কয়েক দফা ঝগড়া হয়। পরে মিজানের ছোট ভাই নাজমুল হাসান নাজু রুবেলকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করে। পুলিশ বলছে, আসামি গ্রেপ্তার হওয়ার পর হত্যার কারণ নিশ্চিত হওয়া যাবে। 

নিহত রুবেলের বড় ভাই কামাল হোসেন বলেন, গত শুক্রবার রাত ১টার দিকে বড় ভাই আকবর বাসার বাইরে বের হন। তিনি বাসার পাশের একটি নারকেলগাছের আড়ালে একজনকে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখেন। পরে তিনি টর্চলাইট জ্বালিয়ে দেখেন পাশের বাসার মিজান সেখানে দাঁড়িয়ে। তাকে চিনতে পেরে আকবর কিছু না বলেই সেখান থেকে চলে যান।

পরের দিন সকালে মিজানের মা আকবরের সঙ্গে ঝগড়া করে বলেন, আকবর রাতে মিজানকে দেখতে পেয়ে তাকে চোর বলেছেন। এ নিয়েই তিন দিন ধরে তাঁদের সঙ্গে ঝগড়া চলে। সর্বশেষ সোমবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে ঝগড়া করে মিজানের পাঁচ ভাইসহ তার পরিবার। একপর্যায়ে মিজানের ছোট ভাই নাজমুল বাসার বাইরে থেকে এসেই রুবেলকে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়।

এ সময় কামালের বুকেও ছুরিকাঘাত করা হয়। পরে তাঁদের উদ্ধার করে শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিত্সক রুবেলকে মৃত ঘোষণা করেন। আর কামালের বুকে ছয়টি সেলাই করা হয়।

ডিএমপির মিরপুর জোনের এসি এম এম মঈনুল ইসলাম বলেন, এ ঘটনায় ১০-১২ জনকে আসামি করে মিরপুর মডেল থানায় নিহত রুবেলের মা আছিয়া বেগম একটি হত্যা মামলা করেছেন। আসামিদের ধরতে অভিযান চলছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা