kalerkantho

শনিবার । ১০ আশ্বিন ১৪২৮। ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৭ সফর ১৪৪৩

‘তোকে আমি জানি চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের উত্তাল দিনের মিছিলে...’

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৮ জুন, ২০২০ ১১:৫০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



‘তোকে আমি জানি চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের উত্তাল দিনের মিছিলে...’

ডাক্তার ফেরদৌস খন্দকার

বাংলাদেশে করোনাভাইরাস (কভিড-১৯) মোকাবেলায় সহযোগিতা করতে নিউ ইয়র্ক থেকে ঢাকায় এসেই অপপ্রচারের শিকার হয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রপ্রবাসী ডাক্তার ফেরদৌস খন্দকার। তবে তাঁর বিরুদ্ধে এসব অপপ্রচারের বিরুদ্ধে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তথ্য উপস্থাপন করেছেন তাঁর শুভাকাঙ্ক্ষী ও চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ছাত্র সংসদের (চমেকসু) সতীর্থ তিতাস মাহমুদ। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে লেখা তাঁর পোস্ট তুলে ধরা হলো-

‘আমি তো রীতিমত ‘থ বনে গেলাম। তোর নিন্দুকেরা, না সঠিক হলো না, হিংসুটেরা বিনে পয়সায় বিরাট উপকার করলো তোর। এখন সারা পৃথিবীতে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা বাংলাদেশের প্রতিটি মানুষ তোকে আরো জানলো। তুই সবার কাছে আরো বেশি জনপ্রিয় এবং গ্রহণযোগ্য হয়ে উঠলি।

তোর দুর্ভাগ্য এই যে, তোর নামের শেষে ‘খন্দকার’ আর তোর আদি বাসস্থান কুমিল্লায়। দুর্মুখেরা আর কিছু না পেয়ে তোর সাথে বঙ্গবন্ধুর স্বঘোষিত খুনীদের মামা ভাগ্নে সম্পর্ক জুড়ে দিলো। কতটা কুৎসিত বেজন্মার দল এরা, টেলিভিশনে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মিথ্যা খবর পাঠ করালো, তুই নাকি বিএনপির রাজনীতির সাথে যুক্ত, ওদেরকে পয়সাপাতি দিস (ভালোই হলো, বিএনপির মানুষজন থেকেও তুই এবার তোর কাজের সমর্থন পাবি)। আমি অবাক হয়ে যাই, কারা এরা? যারা বঙ্গবন্ধুর চাইতেও বড় আওয়ামীলীগার। ভ্যাটিকান সিটির পোপের চাইতেও বড় খ্রিস্টান!

তোকে আমি জানি চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের উত্তাল দিনের মিছিলে, মশালে, রাজপথে। অহেতুক এইসব রাজনৈতিক পরিচয় টেনে আনাই বা কেন এখানে। কোভিডে আক্রান্ত বাংলাদেশের বিপন্ন মানবতাকে সহযোগিতার জন্যে নিঃস্বার্থ তোর ছুটে যাওয়া! মায়ের ডাকে দামোদর নদী সাঁতরে পার হওয়া। কী হীনমন্য আর অসম্ভব দুর্বল এইসব তথাকথিত প্রতিপক্ষ! তোর দেশপ্রেমের একটু টোকাতেই নড়ে উঠলো ওদের ভিত্।

যাগ গে, তোর আর কোন বাধা নেই, দুশ্চিন্তাও নাই। তুই এখন সকল কুৎসিত কালিমা ধুয়ে মুছে ওঠা পবিত্র, পরিষ্কার মানুষ এক। তুই কভিড-১৯ সার্ভাইবার, এন্টিবডি পজিটিভ পুনর্জন্ম পাওয়া এক পরিশ্রমী পুরুষ। তোর আত্মবিশ্বাস আরো জোরালো হোক। আগামী ৬ সপ্তাহ বাংলাদেশে রাতদিন ২৪ ঘণ্টা খেটে কোভিড এবং নন কোভিড রোগীদের সেবা ও পরামর্শ দেবার যে সুন্দর পরিকল্পনা নিয়ে তুই দেশে গেছিস, সুষ্ঠুভাবে তা সম্পন্ন হোক।

তবে ফেরদৌস খন্দকার, চমেকসুর সহ সভাপতি ( ৯০-৯১) হিসেবে নয়, তোর বড় ভাই হিসেবে ছোট্ট একটা উপদেশ দেই। বাংলাদেশের মানুষই ঘরে ঘরে তোর কথা বলবে। তুই নিজে ফেসবুকে এতো মাতামাতি, লেখালিখি করিস নে। এতে কিছু কুটীল, পরাজিত, নীচু মানসিকতার মানুষদের রাতের ঘুম হারাম হয়। চলতি পথে অহেতুক আগাছা তৈরী হয়। বারবার আগাছা কেটে ফেলার এতো সময় তোর হাতে কোথায়?

(ফেসবুকে তিতাস মাহমুদের পোস্ট থেকে)



সাতদিনের সেরা