kalerkantho

শুক্রবার। ২৬ আষাঢ় ১৪২৭। ১০ জুলাই ২০২০। ১৮ জিলকদ ১৪৪১

সঙ্কটাপন্ন অবস্থায় নাসিম

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৬ জুন, ২০২০ ১২:৪১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সঙ্কটাপন্ন অবস্থায় নাসিম

সঙ্কটাপন্ন অবস্থায় রয়েছেন সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ নেতা মোহাম্মদ নাসিম। রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালের আইসিইউতে ভেন্টিলেশনে আছেন তিনি।

আজ শনিবার (৬ জুন) সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানিয়েছেন মোহাম্মদ নাসিমের ছেলে তানভির শাকিল জয়। তিনি জানান, ৭২ ঘণ্টা পার হলে চিকিৎসকরা পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবেন। বাবার রোগমুক্তির জন্য সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন তিনি।

এর আগে গতকাল শুক্রবার মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণজনিত কারণে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য, কেন্দ্রীয় ১৪ দলের মুখপাত্র ও সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের মস্তিষ্কে অস্ত্রোপচার করা হয়।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে রাজধানীর শ্যামলীর বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মোহাম্মদ নাসিমের গতকাল শুক্রবার ভোররাতে স্ট্রোক করেন। এর পর তাঁকে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়।

গতকাল অস্ত্রোপচারের পর মোহাম্মদ নাসিমের ছেলে ও সাবেক সংসদ সদস্য তানভীর শাকিল জয় কালের কণ্ঠকে বলেছিলেন, 'আব্বুর অপারেশন সফল হয়েছে। তাঁকে হাসপাতালের আইসিইউতে রাখা হয়েছে। আগামী দুদিন তাঁকে বিশেষ পর্যবেক্ষণে রাখা হবে। প্রধানমন্ত্রী ফোনে ডাক্তার ও আমার সঙ্গে কথা বলেছেন। তিনি খোঁজখবর রাখছেন। আপনারা সবাই ওনার জন্য দোয়া করবেন।'

গত ১ জুন করোনা উপসর্গ নিয়ে শ্যামলীর বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতালে ভর্তি হন সিরাজগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য মোহাম্মদ নাসিম। সেদিনই পরীক্ষায় তাঁর করোনায় আক্রান্ত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত হয়। এরপর তাঁকে আইসিইউতে নেওয়া হয়। তাঁর রোগমুক্তি কামনায় গতকাল সিরাজগঞ্জের বিভিন্ন মসজিদে বিশেষ দোয়া ও মিলাদের আয়োজন করা হয়। অনলাইনে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও নাসিমের রোগমুক্তি কামনা করে পোস্ট দিয়েছেন বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীরা।

১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে নিহত জাতীয় চার নেতার একজন এম মনসুর আলীর ছেলে মোহাম্মদ নাসিম কয়েক দশক ধরে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা। তিনি আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দলেরও মুখপাত্র।

১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন মন্ত্রিসভায় মোহাম্মদ নাসিম কয়েকটি মন্ত্রণালয়ে দায়িত্ব পালন করেছেন। সে সময় তিনি স্বরাষ্ট্র, ডাক, তার ও টেলিযোগাযোগ, গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। এ ছাড়া বিগত সরকারের তিনি স্বাস্থ্যমন্ত্রী হিসেবে টানা পাঁচ বছর দায়িত্ব পালন করেছেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা