kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৮ আষাঢ় ১৪২৭। ২ জুলাই ২০২০। ১০ জিলকদ  ১৪৪১

দোকানের তালা কেটে ২০ লাখ টাকার মোবাইল-ল্যাপটপ লুট

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৫ জুন, ২০২০ ২০:২৩ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



দোকানের তালা কেটে ২০ লাখ টাকার মোবাইল-ল্যাপটপ লুট

রাজধানী মালিবাগ চৌধুরী পাড়ার একটি মোবাইল ফোনের দোকানের তালা কেটে ২০ লাখ টাকার মালামাল লুটের অভিযোগ পেয়েছে পুলিশ।  

করোনাভাইরাসের এই সময়ে সব হারিয়ে দিশেহারা দোকান মালিক আফতাব উদ্দিন সুমন রামপুরা থানায় একটি মামলা করেছেন। তিনি চুরি হওয়া মালামাল উদ্ধারে পুলিশের সহযোগিতা চেয়ে কান্না করছেন।

তবে তার চুরির মালামাল উদ্ধারের আশ্বাস দিয়ে রামপুরা থানার ওসি মাসুদ পারভেজ কালের কণ্ঠকে বলেন, অভিযোগ পেয়ে ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। চেষ্টা চলছে মালামাল উদ্ধারের। ওই দোকানের আশপাশ থেকে উদ্ধার করা সিসিটিভি ফুটেজে দেখা গেছে, কয়েকজন যুবক দোকানের তালা কেটে মালামাল নিয়ে পালিয়ে যাচ্ছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত বুধবার (৩ জুন) দিবাগত রাতের কোনো এক সময় মালিবাগ চৌধুরী পাড়া এলাকায় একটি মোবাইলের দোকানের তালা কেটে মালামাল চুরি হয়। ওই দোকানের মালিক সুমন বৃহস্পতিবার (৪ জুন) রাতে একটি লিখিত অভিযোগ করেন থানায়। শুক্রবার (৫ জুন) সকালে ঘটনার সত্যতার ভিত্তিতে মামলা হিসেবে নথিভুক্ত হয়েছে বলে পুলিশ জানায়।

তদন্ত সংশ্লিষ্ট পুলিশ জানায়, মামলাটি গুরুত্বের সঙ্গে তদন্ত করা হচ্ছে।দোকানের আশপাশ থেকে সিসি ক্যামেরার ফুটেজ সংগ্রহের কাজ চলছে। এছাড়া আশপাশের এটিএম বুথ ও নৈশপ্রহরীদেরও জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, গত ৩ জুন রাতে দোকানের চারটি সিকিউরিটি তালা কেটে ল্যাপটপ, বিভিন্ন ব্রান্ডের মোবাইল ফোনসহ প্রায় ২০ লাখ টাকার মালামাল চুরি হয়ে যায়। ৪ জুন সকাল ৯টার দিকে দোকান খুলতে গিয়ে মালিক সুমন দেখতে পান, সবকটি তালা কাটা। দোকানের ভেতরে ঢুকে দেখেন কোনো মালামাল নেই।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে আফতাব উদ্দিন তালুকদার সুমন জানান, ওইদিন বিকেলে দোকান বন্ধ করে বাসায় চলে যাওয়ার পরেই চুরি হয়েছে।

তিনি বলেন, আমার দোকানটি ঠিক মালিবাগ চৌধুরী পাড়া উত্তরা ব্যাংক এবং যমুনা ব্যাংকের মাঝখানে। মেইন রাস্তার সঙ্গে দোকান। আশপাশে ইসলামী ব্যাংক ও আল আরাফাহ ইসলামী ব্যাংকও রয়েছে। সব জায়গায় সিসি ক্যামেরা আর নৈশপ্রহরী থাকে। এরপরও দোকানটি চুরি হয়ে গেল। পথে বসে গেছি।

গত জানুয়ারিতে দোকানটা দিয়েছেন জানিয়ে তিনি বলেন, ব্যাংক থেকে লোন নিয়েছি। এক মাস পরই লকডাউন শুরু হলে দোকান বন্ধ হয়। দু’মাস পর দোকান খুলেছি মাত্র। এর মধ্যেই চুরি। যা ছিল সব নিয়ে গেছে। এখন কি করব বুঝতে পারছি না।

সুমন বলেন, মামলার পর আজ সকালে পুলিশ কিছু সিসিটিভির ফুটেজ সংগ্রহ করেছে। সেখানে দেখলাম রাত সাড়ে নয়টা থেকে ১০টার মধ্যে বেশ কয়েকজন যুবক তালা কেটে চুরি সম্পাদন করে। তখনও রাস্তা ও ফুটপাত দিয়ে লোকজন চলাচল করছে। এ সময় কেউ বাইরে দাঁড়িয়ে গল্প করছে আর কেউ চুরির কাজটি করছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা