kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৩ আষাঢ় ১৪২৭। ৭ জুলাই ২০২০। ১৫ জিলকদ  ১৪৪১

করোনা নিয়ে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন

মোকাবেলা করতে না পারলে মৃত্যুর হার অন্তত ভারতের চেয়েও বেশি হতো

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৩ জুন, ২০২০ ২০:২৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মোকাবেলা করতে না পারলে মৃত্যুর হার অন্তত ভারতের চেয়েও বেশি হতো

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের পর থেকে পৃথিবীর কোনো দেশ মুক্ত থাকেনি। শুধু তাই নয় ইউরোপ-আমেরিকার উন্নত দেশগুলোতে আক্রান্তদের মধ্যে মৃত্যুর হারও অনেক বেশি। আমরা যদি করোনা মোকাবেলা সঠিকভাবে করতে না পারতাম, তাহলে মৃত্যুর হার অন্তত ভারত-পাকিস্তানের চেয়ে বেশি হতো বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ সরকারের তথ্য মন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ। 

বুধবার (৩ জুন) দুপুরে রাজধানীতে বাংলাদেশ সচিবালয়ে তথ্য মন্ত্রণালয় সভাকক্ষে মন্ত্রণালয়ের দপ্তরপ্রধানদের সাথে সভার শুরুতে সাংবাদিকদের সাথে সংক্ষিপ্ত মতবিনিময়কালে তিনি একথা বলেন।

এসময় তিনি আরো বলেন, করোনাভাইরাস মোকাবেলা একটি যুদ্ধাবস্থা। এ যুদ্ধ একটি জীবাণুর বিরুদ্ধে। সুতরাং এই সময়ে আমরা সবাই হাত গুটিয়ে বসে থাকবো, সেটি যেমন সমীচীন নয়, সেইসাথে নিজেদের সুরক্ষা নিশ্চিত করেই কাজ করতে হবে। আর মনে রাখতে হবে, এটি একটি খেটে খাওয়া মানুষের দেশ, এখানে জীবন ও জীবিকার মধ্যে সমন্বয় রাখতে হয়। প্রায় আড়াই মাস সবকিছু বন্ধ থাকলেও সরকারের প্রাণান্ত প্রচেষ্টা ও সৃষ্টিকর্তার দয়ায় একজন মানুষও অনাহারে মৃত্যুবরণ করেনি। কিন্তু মানুষের জীবন ও জীবিকা রক্ষার তাগিদেই সীমিত আকারে অনেক কিছু খোলা হয়েছে।

ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, শুধু আমাদের দেশে কার্যক্রম খোলা হয়েছে তা নয়, যুক্তরাজ্য, বেলজিয়াম, স্পেন, পর্তুগালসহ ইউরোপে প্রায় ১০ থেকে ১২ দিন আগে সবকিছু খুলে দেওয়া হয়েছে। পাকিস্তানে অনেক আগেই সবকিছু খোলা হয়েছে। ভারতে আমাদের অন্তত দশদিন আগে গণপরিবহন সীমিত আকারে চালু হয়েছে। 

স্বাস্থ্যবিধি মেনে জনগণকে সেবাদান চলমান রয়েছে জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, সরকারি অফিস-আদালত সীমিত আকারে খুললেও এখানে শারীরিক ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে জনগণের জন্য কাজ চলছে। কেউ অফিসে না এলে বাসায় থেকেও কিন্তু কাজ করছেন। সুতরাং জনগণের জন্য সরকারের পক্ষ থেকে যা যা করণীয় সেটি করা হচ্ছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা