kalerkantho

বুধবার । ৩১ আষাঢ় ১৪২৭। ১৫ জুলাই ২০২০। ২৩ জিলকদ ১৪৪১

কভিড-১৯ সম্মুখযোদ্ধাদের ধন্যবাদ জানাতে দেয়ালচিত্র উন্মোচন

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২ জুন, ২০২০ ১৯:৫৬ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



কভিড-১৯ সম্মুখযোদ্ধাদের ধন্যবাদ জানাতে দেয়ালচিত্র উন্মোচন

কভিড-১৯ মহামারিতে যারা প্রয়োজনীয় সেবা প্রদান অব্যাহত রেখেছেন সে সকল সম্মুখযোদ্ধাদের উদ্ভাবনী আঙ্গিকে স্বীকৃতি দিতে ও ধন্যবাদ জানাতে জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচি এবং ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন (ডিএনসিসি) গত ৩০ মে ২০২০ গুলশান সোসাইটি, কার্টুন পিপল ও অ্যাকুয়া পেইন্টস এর সহযোগিতায় ডিসিসি মার্কেট, গুলশান-২ এ উন্মোচন করে ২টি দেয়ালচিত্র।
 
দেয়ালচিত্র ২টির একটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের “অপরাজেয় বাংলা” ভাস্কর্য এবং অপরটি ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় তোলা নায়েব উদ্দিন আহমেদ এর একটি ছবির সাথে সাদৃশ্যপূর্ণ। যারা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ক্লান্তিহীনভাবে প্রয়োজনীয় সেবা প্রদান করছেন যা করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে সহায়তা করছে সে সকল সম্মুখযোদ্ধাদের সম্মান জানাতে দেশব্যাপী লকডাউন চলাকালীন এই উদ্যোগটি নেওয়া হয়েছিল।
 
দেয়ালচিত্র উন্মোচনকালে ডিএনসিসি মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, “কভিড-১৯ এবং ডেঙ্গুর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে আমাদের সর্বাত্মক প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে। এই যুদ্ধে সকলেই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। আমি আন্তরিকভাবে স্বীকৃতি জানাই তাদের যারা সমাজের অগ্রভাগে থেকে সাহসিকতার সাথে কোভিড-১৯ মোকাবেলা করছেন। ডিএনসিসি সবসময় তাদের পাশে থাকবে এবং প্রয়োজনীয় সহায়তা দিতে প্রস্তুত।”
 
তিনি আরও বলেন, “সম্মুখযোদ্ধাদের নিকট আমরা গভীরভাবে কৃতজ্ঞ। ১৯৭১ সালে মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বাত্মক ত্যাগের বিনিময়ে আমরা স্বাধীনতা পেয়েছিলাম এবং ২০২০ সালে সম্মুখযোদ্ধাদের সহায়তায় করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধে অবশ্যই জয় লাভ করব। এই দেয়ালচিত্রগুলো আমাদের পক্ষ থেকে তাদের জন্য শ্রদ্ধার নিদর্শনস্বরূপ এবং পরবর্তীতে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন এর অন্যান্য স্থানে এর সম্প্রসারণ করা হবে।”
 
জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচির আবাসিক প্রতিনিধি সুদীপ্ত মুখার্জী বলেন, “যখন করোনাভাইরাস মহামারি সকলের জীবনে ভয়াবহ প্রভাব ফেলছে তখন সম্মুখ সারির যোদ্ধারা আমাদের রক্ষা করতে এবং গুরুত্বপূর্ণ সেবা দিতে নির্ভয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। ঐতিহাসিকভাবে এবং বিশ্বব্যাপী আমরা তাদের ভুমিকা কে স্বীকৃতি জানাতে ব্যর্থ হয়েছি এবং এখনই সময় আমাদের মূল্যবোধ ও চিন্তাধারায় পরিবর্তন আনার – আশা করি ভবিষ্যতে আমরা সমাজ হিসেবে এ সকল সামাজিক যত্নদাতাদের প্রতি আরও শ্রদ্ধাশীল হব। প্রথম পদক্ষেপ হিসেবে ইউএনডিপি ইতোমধ্যে সরকার ও অন্যান্য উন্নয়ন সহযোগীর সাথে সুরক্ষা নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে ব্যক্তিগত প্রতিরক্ষামূলক সরঞ্জাম (পিপিই) প্রদানে কাজ করছে।”
 
গুলশানকে নিরাপদ রাখার জন্য গুলশান সোসাইটি ও অ্যাকুয়া পেইন্টস বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করেছে যেমন – গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট (বাজার, ওষুধের দোকান) জীবাণুমুক্ত করা এবং স্বল্প আয়ের মানুষ ও রিকশা চালকদের মত দিনমজুরদের ক্রমাগত খাদ্য সরবরাহ করা। সম্প্রতি, স্বাস্থ্যসেবা সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের সহায়তায় সংস্থাটি কোভিড নির্ণয় পরীক্ষাও শুরু করেছে।
 
গুলশান সোসাইটি ও অ্যাকুয়া পেইন্টস এর পক্ষ থেকে সায়ান সিরাজ মেয়র এর আগ্রহ ও উদ্দীপনার প্রশংসা করেছেন এবং স্থানীয় জনগোষ্ঠী ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহকে সামনে এগিয়ে আশার ও আমাদের সম্মুখযোদ্ধাদের অনুপ্রাণিত করার অনুরোধ করেছেন।
 
কার্টুন পিপল এর পক্ষ থেকে তরুণ কার্টুনিস্ট মোর্শেদ মিশু এই দেয়ালচিত্র অঙ্কনে নেতৃত্ব দিয়েছেন যিনি ফোর্বস সাময়িকীর অনূর্ধ্ব ৩০ তালিকাতেও আছেন। অ্যাকুয়া পেইন্টস রঙ এবং অন্যান্য কারিগরি সহায়তা প্রদান করেছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা