kalerkantho

বুধবার । ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ২৭  মে ২০২০। ৩ শাওয়াল ১৪৪১

কাঁচামালের আড়ালে মাদক-অস্ত্র, আটক ৪

অনলাইন ডেস্ক   

২৩ মে, ২০২০ ১২:০২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কাঁচামালের আড়ালে মাদক-অস্ত্র, আটক ৪

কক্সবাজার থেকে কাঁচামাল পরিবহনের আড়ালে মাদক ও অস্ত্রের চালান পাচার করা হবে। কতিপয় অস্ত্রধারী মাদক কারবারি একটি মাদক ও অস্ত্রের চালান নিয়ে ঢাকার মাদক ও অস্ত্র কারবারির নিকট হন্তান্তরের জন্য আসবে- এমন একটি তথ্য আসে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন ২ এর ক্রাইম প্রিভেনশন স্পেশালাইজড কম্পানির কমান্ডার পুলিশ সুপার মুহম্মদ মহিউদ্দিন ফারুকীর কাছে। সংবাদ পেয়ে গাড়ির গতিবিধি জেনে ঢাকার আদাবর থানাধীন রিং রোডস্থ হক সাহেবের মোড়ে চেকপোস্ট পরিচালনা করে তল্লাশি শুরু করে তাঁর কম্পানি। এ সময় কাঁঠাল ও ডাবভর্তি একটি পিকআপে ড্রাইভারসহ ৩ যাত্রী/হেলপার দেখতে পেয়ে চালককে 'কোথা থেকে এসেছে' জিজ্ঞাসা করলে 'কক্সবাজার থেকে' জানায়।

এর পর চেকপোস্টের আশপাশের স্থানীয় সাক্ষীগণের সম্মূখে পিকআপে থাকা চারজনের দেহ তল্লাশি করে দুজনের পিঠে থাকা ব্যাকপ্যাক তল্লাশি করে ২টি দেশি তৈরি বন্দুক, ৬ রাউন্ড গুলি ও চারজনের প্রত্যেকের কাছ থেকে মোট ৭০০০ পিস ইয়াবা উদ্ধার ও অস্ত্র/মাদক পরিবহনে ব্যবহৃত গাড়ি জব্দ করে চারজন গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলো মো. ওসমান (৩৭), শাহজাহান সরকার (৩৬), সেলিম সরকার (৪৫) ও নুর ইসলাম (৩৫)।

আসামিরা তাদের গডফাদারদের অর্থ ও পরিবহন সহযোগিতা নিয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ কক্সবাজার এলাকা হতে জব্দকৃত পিকআপটিতে সাদা কাগজে 'জরুরী প্রাণিখাদ্য উৎপাদন কাজে নিয়োজিত' স্টিকার সাঁটিয়ে অবৈধ অস্ত্র ও ইয়াবার চালান বহন করে ঢাকা ও গাজীপুরে সরবরাহ করে থাকে।

অস্ত্র পাচার বিষয়ে আসামিরা জানায়, মাদক কারবার নির্বিঘ্ন করার লক্ষ্যে কারবারিদের চাহিদামতো কক্সবাজার হতে অস্ত্রের চালান গ্রহণ করে তাদের নিকট চড়া দামে বিক্রয় করে থাকে। আসামিরা জানায়, কক্সবাজার থেকে রওনা করার সময় তাদের সামনে প্রাইভেট কারযোগে একটি এসকর্ট পার্টি থাকে। রাস্তায় চেকপোস্ট থাকলে বা গাড়ি তল্লাশি হলে এসকর্ট পার্টি সতর্ক করে দেয়।  

আসামিরা লাইসেন্সবিহীন স্বয়ংক্রিয় আগ্নেয়াস্ত্র, গুলি ও মাদক নিজ নিজ হেফাজতে রাখায় তাদের বিরুদ্ধে রাজধানীর আদাবর থানায় অস্ত্র আইন ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে পৃথক ২টি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা