kalerkantho

বুধবার । ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ২৭  মে ২০২০। ৩ শাওয়াল ১৪৪১

ঘরে ঘরে সবজি দিচ্ছে কাউন্সিলর আসাদ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৮ এপ্রিল, ২০২০ ১৫:১১ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ঘরে ঘরে সবজি দিচ্ছে কাউন্সিলর আসাদ

করোনাভাইরাসের কারণে বের হতে না পারা মানুষের ঘরে ঘরে সবজি দিচ্ছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ২১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আসাদুজ্জামান আসাদ। কারওয়ান বাজার থেকে সবজি কিনে বিতরণ করছেন সাধারণ মানুষের মাঝে।

আজ বুধবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক এলাকা, শাহবাগ, পরিবাগ ও বাংলামোটরে বিনামূল্যে সবজি বিতরণ করেছেন তিনি।

দেশে করোনা আক্রান্ত রোগী চিহ্নিত হওয়ার পর থেকেই সচেতনতায় কাজ করছেন তিনি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় ব্লিচিং পাউডার মেশানো পানি ছিটানোর পাশাপাশি ঘরে ঘরে খাবার পৌঁছে দিয়েছেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আশপাশেই ছিন্নমূল দরিদ্র মানুষের হাতে তুলে দিয়েছেন খাবার। কখনো চাল ডাল তেল আলু আবার কখনো রান্না করা খাবার নিয়ে যা মানুষের কাছে ছুটে গেছেন তিনি। 

সময় গড়ানোর সাথে করোনা প্রকোপ বৃদ্ধি পাওয়ায় জোরেশোরে কাজে নেমেছেন তিনি। প্রতিদিন দুপুরে রান্না করা খাবার বিতরণ করছেন। করোনায় ঢাকা শহরে অচলাবস্থায় তিনি এখন সবজি বিতরণ শুরু করেছেন। কারণ মানুষ ঘর থেকে বের হতে পারছে না। সবজি বাজারগুলো আগে বন্ধ হয়ে যাওয়ায় প্রয়োজন হলেও কিনতে পারছে না। 

নিম্নবিত্ত ও শ্রমজীবী মানুষের কথা চিন্তা করে সকাল থেকে বিতরণ করছেন নানা পদের সবজি। পালং শাক, পেঁপে, লাউ, টমেটো ও মিষ্টি কুমড়া বিতরন করছেন। প্রত্যেকে পালং শাক ও পেঁপের সঙ্গে লাউ অথবা মিষ্টিকুমড়া নিতে পারছেন। শাক ও পেঁপে সবাই নিতে পারলেও একটি করে মিষ্টি কুমড়া অথবা লাউ নিতে পারছেন। ঘরের দুয়ারে সব ধরনের সবজি পেয়ে খুশি স্থানীয় মানুষজন। 

সরেজমিনে দেখা যায়, হ্যান্ড মাইক ও সবজি পিকআপ নিয়ে হাঁটছেন আসাদ। আশপাশের সকল মানুষকে সবজি নিয়ে যেতে অনুরোধ করছেন তিনি। নিজের প্রয়োজনের বাইরে যেন কেউ সবজি না নেই সে বিষয়েও কথা বলছেন তিনি। 

আসাদুজ্জামান আসাদ কালের কণ্ঠকে বলেন, করোনায় কারণে বিপদে পড়েছে নিম্নবিত্ত ও শ্রমজীবী মানুষ। তাদের পাশে দাঁড়াতেই এই ক্ষুদ্র চেষ্টা। মানুষ ঘরে ঘরে থাকায় নিত্য প্রয়োজনীয় খাবারের পাশাপাশি সবজি সংকটে পড়েছে। ঘর হতে বের হতে না পারায় বাজার যেতে পারছে না। বাজারগুলো আগেভাগে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে।'

তিনি বলেন, আমি এখন আনুষ্ঠানিক দায়িত্ব পাইনি তবে সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছি। করোনায় মানুষকে সচেতন করতে কাজ করছি। জীবাণু ধ্বংস করতে বিভিন্ন ধরনের ওষুধ স্প্রে করছি। দরিদ্র মানুষের মাঝে খাবার বিতরণ করছি। পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত খাবার বিতরণ ঘরে ঘরে সবজি পৌঁছে দেওয়া কার্যক্রম চলবে।'

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা