kalerkantho

বুধবার । ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ২৭  মে ২০২০। ৩ শাওয়াল ১৪৪১

ত্রাণ দেওয়ার কথা বলে ধর্ষণ, মহিলা পরিষদের প্রতিবাদ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৬ এপ্রিল, ২০২০ ২০:১৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ত্রাণ দেওয়ার কথা বলে ধর্ষণ, মহিলা পরিষদের প্রতিবাদ

ত্রাণ দেওয়ার নাম করে ১০ বছর বয়সী এক শিশুকে নিজ বাড়িতে ডেকে নিয়ে চার ঘণ্টা আটকে রেখে একাধিবার ধর্ষণের ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ। একইসাথে এই ঘটনায় জড়িত মীর খলিলের (৪৫) দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করা হয়েছে।

মহিলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ডা. ফওজিয়া মোসলেম ও সাধারণ সম্পাদ মালেকা বানু স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এই প্রতিবাদ জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, করোনাভাইরাসের মহামারির সংক্রমণ ঠেকানোর সরকারি সিদ্ধান্তে অঘোষিত লকডাউনের এই সময় নারী ও শিশু নির্যাতন অনেক গুণ বেড়ে। ভুক্তভোগীদের মধ্যে কেউ ধর্ষণের শিকার, কেউবা যৌন নিপীড়নের শিকার।

এই সংকটময় অবস্থায় নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রতি আহবান জানিয়ে বলা বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ভয়াবহ করোনাভাইরাসে সারাবিশ্ব যখন মানুষের জীবন রক্ষা করার জন্য লড়াই করছে তখন এই পরিস্থিতিতে নারী ও কন্যাশিশুর প্রতি সহিংতায় বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ ঘটনায়ক্ষুব্দ্ধ ও উদ্বিগ্ন। ঢাকা মহানগরীর বিভিন্ন এলাকাসহ সারা দেশে বিভিন্ন স্থানে নারী ও কন্যাশিশুসহ বিভিন্ন বয়সের নারী ধর্ষণের শিকার, যৌন হয়রানির শিকার হওয়ার ঘটনার সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ তদন্ত সাপেক্ষে ঘটনার সাথে জড়িতদের আইনি ব্যবস্থা গ্রহণসহ দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির জোর দাবি জানাচ্ছে।’

এ সময় ধর্ষণ, নারী ও শিশুর প্রতি সংহিসতার ঘটনা প্রতিরোধে সকলের প্রতি বিশেষভাবে সচেতন ও সতর্ক থাকার আহ্বান জানানো হয়।

উল্লেখ্য, গতকাল রবিবার ঢাকার কেরানীগঞ্জ থানার খেজুরবাগ এলাকায় ত্রাণ দেওয়ার নাম করে নিজ বাড়িতে ডেকে নিয়ে ১০ বছর বয়সী এক কন্যা শিশুকে চার ঘণ্টা আটকে রেখে একাধিবার ধর্ষণ করে মীর খলিল (৪৫)। বিকাল তিনটায় শিশুটি নিখোঁজ হলে পরিবারের সদস্যরা ওই এলাকায় মাইকিং করে। পরে রাত আটটায় শিশুটিকে তার বাড়ি সামনে রেখে পালিয়ে যায় ধর্ষক মীর খলিল।

এলাকাবাসী শিশুটির মুখে ধর্ষকের নাম পরিচয় পেয়ে রবিবার রাত ১০টায় খলিলকে আটক করে পুলিশের কাছে সোপার্দ করে। এ বিষয়ে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা হয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা