kalerkantho

শনিবার । ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ৩০  মে ২০২০। ৬ শাওয়াল ১৪৪১

ঝুঁকি নিয়েই বাসা বদলাচ্ছেন ভাড়াটিয়ারা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১ এপ্রিল, ২০২০ ১৬:২০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঝুঁকি নিয়েই বাসা বদলাচ্ছেন ভাড়াটিয়ারা

করোনা পরিস্থিতির কারণে জনজীবন স্থবির হয়ে পড়েছে। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বেরোনোতে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। তারপরও ঝুঁকি নিয়ে গত দুই দিনে রাজধানীর ভাড়াটিয়াদের বাসা বদল করতে দেখা গেছে। এক্ষেত্রে করোনাভাইরাসের নিরাপত্তা নির্দেশনা পালন করছেন না শ্রমিকসহ অন্যান্যরা।

মাসের শেষ ও শুরুতে ভাড়াটিয়ারা বাসা বদল করে থাকেন। গত ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনা রোগীর সন্ধান পাওয়ার পর একের পর এক নিষেধাজ্ঞা আসতে থাকে। সর্বশেষ সামাজিক বিচ্ছিন্নকরণ কর্মসূচির অংশ হিসেবে সকলকে গৃহবন্দি থাকার নির্দেশনা দেওয়া হয়। কিন্তু এর আগেই গত মাসের শুরুতে অনেকেই বাসা পাল্টানোর সিদ্ধান্ত নেন। নতুন বাসা দেখার পাশাপাশি তারা পুরাতন বাসার মালিককে বাসা ছাড়ার সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেন। কিন্তু মাসের শেষে সার্বিক পরিস্থিতি তাদেরকে বিপাকে ফেলে। পুরানো ভাড়াটিয়া ছাড়লে নতুন ভাড়াটিয়া উঠবে। তাই বাধ্য হয়েই অনেককে ঝুঁকি নিয়ে বাসা বদল করতে হচ্ছে।

একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা মো. রফিকুল ইসলাম থাকতেন রাজধানীর মিরপুর শেওড়াপাড়া এলাকায়। দুই পিকআপে বাসার মালামাল ভর্তি করে এসেছেন হাজারিবাগের সুলতানগঞ্জ এলাকায়। বুধবার দুপুরে নতুন বাসার ওঠার সময়ে তিনি বলেন, আগেই বাসা ছেড়ে দিয়েছি। পরিস্থিতির কারণে চাইছিলাম আরো পরে আসতে। কিন্তু ওই বাসায় নতুন ভাড়াটিয়া উঠবে, তাই বাধ্য হলাম চলে আসতে।

এ সময় বাসা বদলের কাজে নিয়েজিত শ্রমিকদের মাস্ক বা অন্য কোনো নিরাপত্তা সরঞ্জাম ব্যবহার করতে দেখা যায়নি। ভাড়াটিয়াদের সঙ্গে ৫/৬ জন শ্রমিক মিলে মালামাল ওঠানামার কাজ কলেও করোনাভাইরাসের সতর্কতার বিষয়ে তাদের কোনো আগ্রহ দেখা যায়নি।

মোহাম্মদপুরের হাশেম খান রোডে ভ্যানে করে বাসার মালামাল নিয়ে আসা ভাটাদিয়া ও শ্রমিকদেরও ছিল একই অবস্থা। এ ছাড়া রাজধানী বিভিন্ন এলাকায় ভ্যান, পিকআপ বা ট্রাকে মালামাল বহনকারীদের মধ্যে করোনা সচেতনতার অভাব দেখা গেছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা