kalerkantho

রবিবার । ১৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ৩১  মে ২০২০। ৭ শাওয়াল ১৪৪১

শ্যামপুরে ঘরের ভেতর মিলল ব্যবসায়ীর গলাকাটা লাশ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১ এপ্রিল, ২০২০ ০২:১৪ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



শ্যামপুরে ঘরের ভেতর মিলল ব্যবসায়ীর গলাকাটা লাশ

প্রতীকী ছবি

রাজধানানীর শ্যামপুরের মীর হাজীবাগের একটি বাসা থেকে গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে আহসান আশিক সুজন (৪৫) নামে এক ব্যক্তির গলাকাটা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সুজন যাত্রাবাড়ী এলাকাতেই টিন ব্যবসায়ের সঙ্গে জড়িত ছিলেন।

পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, শোবার কক্ষে ভেতর থেকে দরজা আটকানো অবস্থায় মৃতদেহটি পাওয়া যায়। পাশেই পড়েছিল রক্তমাখা বটি। স্ত্রীর সঙ্গে দাম্পাত্য কলহের কারণে সুজনের স্ত্রী -সন্তান আলাদা থাকে। তিনি বৃদ্ধা খালার সঙ্গে ওই বাসায় থাকতেন। খালার দাবি, সুজন আগে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছিলেন। এবারও করতে পারেন। তবে পুলিশ ঘটনাটিকে হত্যাকাণ্ড বলেই সন্দেহ করছে।
 
শ্যামপুর থানার ওসি মফিজুল ইসলাম বলেন, ঘটনাটি রহস্যজনক মনে হচ্ছে। বাসার কক্ষের তালা ভেঙে সুজনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। মূল দরজা এবং বারান্দার দরজা ভেতর থেকে আটকানো ছিল। গলাকাটা ছাড়াও পেটে বটির আঘাত রয়েছে। প্রাথমিকভাবে হত্যা করা হয়েছে বলেই সন্দেহ করা হচ্ছে। খালাসহ কয়েকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। সিআইডির ক্রাইমসিন ইউনিট নানা আলামতও সংগ্রহ করেছে। এসব আলামত পরীক্ষা, ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন এবং পুলিশের তদন্ত শেষে সুজনের মৃত্যুর বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া যাবে।

পুলিশ জানিয়েছে, পারিবারিক কলহের কারণে সুজনের স্ত্রী একমাত্র শিশু সন্তান নিয়ে ডেমরায় তাদের বাড়িতে থাকেন। এরপর থেকে বছরখানেক ধরে সুজন মীর হাজীরবাগে বৃদ্ধা খালার বাসায় থাকতেন। ঘটনার সময়ে তার খালা বাসাতে থাকলেও কিছু দেখেননি বলে দাবি করছেন।

তিনি বলছেন, পারিবারিক কলহে আগেও একবার সুজন আত্মহত্যার চেষ্টা চালিয়েছিল। এবারও সে আত্মহত্যা করে থাকতে পারে। তিনি চিৎকার করলে আশপাশের বাসিন্দারা দোতলা বাসায় ছুটে গিয়ে জানালা দিয়ে সুজনের রক্তাক্ত দেহ পড়ে থাকতে দেখেন। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা