kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৪ চৈত্র ১৪২৬। ৭ এপ্রিল ২০২০। ১২ শাবান ১৪৪১

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

সান্ধ্য কোর্সের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে আরো পাঁচ সপ্তাহের অপেক্ষা

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০১:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সান্ধ্য কোর্সের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে আরো পাঁচ সপ্তাহের অপেক্ষা

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়মিত কোর্সের বাইরে প্রচলিত সান্ধ্য কোর্সের বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে আরো পাঁচ সপ্তাহের অপেক্ষা বেড়েছে। সিদ্ধান্ত নিতে যাচাই-বাছাই কমিটির সুপারিশের পর একাডেমিক কাউন্সিলের সভায় ফের নতুন একটা কমিটি গঠন করা হয়েছে।

আজ সোমবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) রাতে দীর্ঘ সাড়ে সাত ঘণ্টার একাডেমিক সভা শেষে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক আখতারুজ্জামান এই তথ্য জানিয়েছেন।

সভায় সান্ধ্য কোর্সের বিষয়ে ৬০ জন শিক্ষক ও সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার বিষয়ে ২৫ জন শিক্ষক নিজস্ব মতামত তুলে ধরেন।

সভা সূত্রে জানা গেছে, সোমবার বিকাল ৩টায় একাডেমিক কাউন্সিলের সভা শুরু হয়। সভার কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অংশগ্রহণ ও সান্ধ্য কোর্স থাকবে কিনা এই বিষয়ে আলোচনা করা হয়। সভার শুরুতেই কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অংশ নেবে না বলে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। পরবর্তীতে সান্ধ্য কোর্সের বিষয়ে আলোচনা শুরু হলে পক্ষে বিপক্ষে মত দেন শিক্ষকরা। পক্ষ বিপক্ষের আলোচনার একপর্যায়ে হট্টগোলে জড়ান শিক্ষকরা। 

পরে দীর্ঘ আলোচনা শেষে রাত সাড়ে ১০টার দিকে নতুন করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক নাসরীন আহমাদকে প্রধান করে একটা কমিটি গঠন করা হয়। কমিটিকে আগামী পাঁচ সপ্তাহের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়। এই সময়ের মধ্যে সান্ধ্য কোর্সে কোনো নতুন ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ও শিক্ষার্থী ভর্তি করা যাবে না বলে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

সভা শেষে উপাচার্য অধ্যাপক আখতারুজ্জামান বলেন, দীর্ঘ সময় আলোচনা শেষে সান্ধ্য কোর্স যাচাই-বাছাই কমিটির সুপারিশগুলো একাডেমিক কাউন্সিল গ্রহণ করেছে। সিদ্ধান্তের ক্ষেত্রে সুপারিশে একটু পরিবর্তন আনা হয়েছে। সান্ধ্য কোর্সের বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক নাসরীন আহমাদকে প্রধান করে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিতে উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক মুহাম্মদ সামাদ, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক কামাল উদ্দিন, বিভিন্ন অনুষদের ডিন, ব্যবসায় প্রশাসন ইনস্টিটিউট, শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের পরিচালক সদস্য হিসেবে থাকবেন।

এই কমিটিকে আগামী পাঁচ সপ্তাহের মধ্যে একটি প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে। কিন্তু এই সময়ের মধ্যে সান্ধ্য কোর্সের কোনো ধরনের ভর্তি বিজ্ঞপ্তি বা নতুন শিক্ষার্থী ভর্তির কার্যক্রম স্থগিত থাকবে। প্রতিবেদন পাওয়ার পর তা একাডেমিক কাউন্সিলে তোলা হবে। সেখানে জাতীয় স্বার্থ, বিশ্ববিদ্যালয়ের সক্ষমতা সবকিছু মিলিয়ে দেখে নীতিমালার আলোকে এরপর সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

এছাড়াও কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষার বিষয়ে তিনি বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিনস কমিটির সভার সিদ্ধান্ত একাডেমিক কাউন্সিল গ্রহণ করেছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ে বিদ্যমান বিশ্বস্ত, পরীক্ষিত, পরিশীলিত ও দীর্ঘদিনের অভিজ্ঞতার আলোকে গ্রহণযোগ্য যে পরীক্ষা পদ্ধতি বলবৎ রয়েছে সেটিই বিদ্যমান থাকবে। কখনো কোনো সংস্কারের প্রয়োজন হলে একাডেমিক কাউন্সিল বা ডিনস কমিটি সংস্কার আনবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা