kalerkantho

বুধবার । ৬ ফাল্গুন ১৪২৬ । ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ২৪ জমাদিউস সানি ১৪৪১

গোপীবাগের সংঘর্ষ : বিএনপির পাঁচ কর্মী-সমর্থক রিমান্ডে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৭ জানুয়ারি, ২০২০ ২১:৫৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



গোপীবাগের সংঘর্ষ : বিএনপির পাঁচ কর্মী-সমর্থক রিমান্ডে

ঢাকা দিক্ষণ সিটি করপোরেশনের নির্বাচনে প্রচারাভিযানের সময় রাজধানীর গোপীবাগে সেন্ট্রাল উইমেনস কলেজের গেটে সংঘর্ষের ঘটনায় করা মামলায় বিএনপির পাঁচ কর্মীতে একদিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে।

আজ সোমবার ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতের নির্দেশে তাদের রিমান্ডে নেয় ওয়ারী থানা পুলিশ। রিমান্ডে নেওয়া বিএনপি কর্মী সমর্থক হলেন জামিল আহমেদ তুহিন, বিল্লাল হোসেন, সোহেল, মো. ফারুক ও আকরাম হোসেন মুন্না।

সোমবার বিকালে এই পাঁচজনকে আদালতে পাঠায় ওয়ারী থানা পুলিশ। তদন্ত কর্মকর্তা এসআই মো. জুলফিকার আলী প্রত্যেককে সাত দিনের পুলিশ রিমান্ডের আবেদন করেন। অন্যদিকে রিমান্ড আবেদন বাতিল করে তাদের জামিনের আবেদন করেন আইনজীবীরা। মহানগর হাকিম আবু সুফিয়ান মো. নোমানের আদালতে শুনানি হয়। শুনানি শেষে আদালত প্রত্যেকের এক দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। জামিনের আবদন নামঞ্জুর করেন।

রিমান্ড আবেদনে বলা হয়, আসামিরা আরো বিএনপির নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে অস্ত্র-শস্ত্রসহ বেআইনি সমাবেশ করে রাজধানীর গোপীবাগের সেন্ট্রাল ইউইমেন্স কলেজের পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় নিরীহ জনগনের ওপর ইটপাটকেল ছোঁড়ে। প্রতিপক্ষের ওপর হামলা করে এলাকায় ব্যাপক ভাঙচুর করে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে। প্রতিপক্ষের লোকজনকে হত্যার চেষ্টা করে। তাদের হামলায় কয়েকজন গুরুতর জখমপ্রাপ্ত হন। আসামিদের গ্রেপ্তারর পর তাদের রিমান্ডে নিয়ে পলাতক অন্যদের গ্রেপ্তার ও এই ঘটনার পেছনে যারা আছে তাদের চিহ্নিত করা প্রয়োজন।

গতকাল রবিবার দুপুর পৌনে একটার দিকে নির্বাচনী প্রচার চালানোর সময় বিএনপি ও আওয়ামী লীগ সমর্থকদেও মধ্যে সংঘর্ষ হয়। ইটপাটকেল ছোঁড়াসহ লাঠিসোটা নিয়ে হামলা হয়। ফাঁকা গুলিবর্ষণেরও ঘটনা ঘটে। এতে সাংবাদিকসহ বেশ কয়েকজন আহত হন।

এ ঘটনায় ৩৯ নম্বর ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগ সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী রোকন উদ্দিন আহমেদেও নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব মাকসুদ আহমদ বাদী হয়ে রবিবার রাতেই বিএনপির ৫০ নেতাকর্মীসহ  এক-দেড় শ অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিকে আসামি করে মামলা করেন। রাতেই পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা