kalerkantho

মঙ্গলবার । ৫ ফাল্গুন ১৪২৬ । ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ২৩ জমাদিউস সানি ১৪৪১

বিবিসি বাংলার প্রতিবেদন অবলম্বনে

বাংলাদেশেও 'নিচু জাত' এড়িয়ে চলে কথিত 'ভদ্র সমাজ'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৯ জানুয়ারি, ২০২০ ১৬:৩৭ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বাংলাদেশেও 'নিচু জাত' এড়িয়ে চলে কথিত 'ভদ্র সমাজ'

প্রতিবেশি দেশ ভারতে দলিত সম্প্রদায়ের লোকজনের ওপর কথিত 'উঁচু সম্প্রদায়ের' নির্যাতনের ঘটনা প্রায় নিয়মিতই ঘটে থাকে। বাংলাদেশও তার বাইরে নয়। এদেশেও নানা ধরণের বৈষম্যের শিকার হয় দলিত সম্প্রদায়ের সদস্যরা। সম্প্রতি মৌলভীবাজারে হরিজন হওয়ার কারণে একটি শিশুকে স্কুল থেকে বিতাড়িত করার পর ইউএনও'র হস্তক্ষেপে আবারো শিশুটিকে স্কুলে ফিরিয়ে নিতে বাধ্য হয়েছে কর্তৃপক্ষ।

কুলাউড়া উপজেলার ওই বেসরকারি কিন্ডারগার্টেন স্কুলটির প্রধান শিক্ষক জানান, অন্য বাচ্চাদের অভিভাবকদের আপত্তির কারণে শিশুটিকে ক্লাস করতে বাধা দেয়া হয়েছিল। কিন্তু পরে আবার প্রথম শ্রেণীর ওই শিক্ষার্থীকে ক্লাস করার অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এরপর থেকে ৭ বছর বয়সী ওই শিশুটি নিয়মিত ক্লাস করছে বলেও জানানো হয়।

ওই শিশুটির বাবা জানান, গত ১৩ই জানুয়ারি ছেলেকে স্কুলে ভর্তি করান তিনি। কিন্তু সেদিন রাতেই স্কুল কর্তৃপক্ষ তাকে ফোন করে জানায় যে, তারা হরিজন সম্প্রদায়ের হওয়ার কারণে তার সন্তানকে ওই স্কুলে ক্লাস করতে দেয়া সম্ভব নয়। তাকে যেন অন্য কোন স্কুলে ভর্তি করে দেয়া হয়। তাকে জানানো হয় যে, 'অন্য বাচ্চার অভিভাবকরা নাকি সমস্যা করতেছে'। এরপর শিশুটির বাবা এ ঘটনার প্রতিকার চেয়ে কুলাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর একটি আবেদন করেন।

এর পর গত ১৬ই জানুয়ারি বৃহস্পতিবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা স্কুল কর্তৃপক্ষকে ডেকে ক্লাস করতে না দেয়ার কারণ জানতে চান।সেসময় স্কুল কর্তৃপক্ষ জানায় যে, তারা শিশুটিকে ভর্তি করালেও অন্য শিশুদের অভিভাবকরা আপত্তি তোলে যে, একজন হরিজন শিশুর সাথে তাদের বাচ্চা পড়াশুনা করবে না। এ কারণেই তারা এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। কিন্তু ইউএনওর হস্তক্ষেপে শনিবার স্কুল কর্তৃপক্ষ শিশুটিকে আবার ক্লাস করার অনুমোদন দিতে বাধ্য হয়।

জীবনের নানা ক্ষেত্রে বৈষম্য:
মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় হরিজন ঐক্য পরিষদের সভাপতি মংলা বাসপর জানান, শুধু স্কুলে ভর্তির ক্ষেত্রে নয়, দৈনন্দিন জীবনের বিভিন্ন কাজ-কর্মেও তাদের এ ধরণের বৈষম্যের মুখে পড়তে হয়। তিনি জানান, কুলাউড়া থানায় ৪০টির মতো হরিজন পরিবার রয়েছে। এসব পরিবারের সদস্যদের সামাজিক কোন অধিকার নেই। তিনি বলেন, হোটেলে খাবার খেতে গেলেও বৈষম্যের শিকার হতে হয় তাদের। অন্যদের সাথে চেয়ার টেবিলে বসে খাবার খেতে দেয়া হয় না। তাদের বাচ্চারা বাইরে কাগজে নিয়ে মাটিতে বসে খায়!এছাড়া চাকরি এবং বাসস্থানের মতো সমাজের প্রতিটি স্তুরে হরিজন সম্প্রদায়ের মানুষেরা বৈষম্যের শিকার।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা