kalerkantho

বুধবার । ২২ জানুয়ারি ২০২০। ৮ মাঘ ১৪২৬। ২৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

'বিচারবহির্ভূত হত্যাকে তারা নাম দিয়েছে বন্দুকযুদ্ধ'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১০ ডিসেম্বর, ২০১৯ ১৪:১৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



'বিচারবহির্ভূত হত্যাকে তারা নাম দিয়েছে বন্দুকযুদ্ধ'

'গত ১০ বছরে ১৫৯৯ জনকে বিচারবহির্ভূত হত্যা করা হয়েছে। তারা এর নাম দিয়েছে বন্দুকযুদ্ধ। বিএনপির হিসেব মতে এ সংখ্যা আরো বেশি। ৩৫ লাখের ওপর রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে মামলা দেওয়া হয়েছে।'

আজ মঙ্গলবার (১০ ডিসেম্বর) সকাল ১১টায় রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনির্ধারিত এক সংবাদ সম্মেলনে  এসব কথা বলেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

মির্জা ফখরুল বলেন, জাতিসংঘ ঘোষিত মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে আমাদের কার্যালয়ের সামনে থেকে একটি র‌্যালি বের হওয়ার কথা ছিল। সেইভাবে প্রস্তুতিও নিয়েছিলাম। কিন্তু সকালে পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, নেতাকর্মীরা কার্যালয় থেকে নিচে নামলে আমাদের ব্যবস্থা আমরা নেব।

বিএনপির মহাসচিব বলেন, 'বিএনপি এ মুহূর্তে কোনো সংঘাতে যেতে চায় না। আমাদের অধিকারগুলোর কথা বলছি। আপনারা দেখেছেন, সভা-সমাবেশ করতে হলে অনুমতি নিতে হয়। এমনকি সাংগঠনিক কার্যক্রম করতেও অনুমতি নিতে হয়। দলীয় রাজনীতির উর্ধ্বে সারা বিশ্বে স্বীকৃত মানবাধিকার। সেই মানবাধিকার রক্ষা করার জন্য আজকে র‌্যালি করার কথা ছিল।' তিনি বলেন, 'আজকে আমাদের পূর্ব ঘোষিত র‌্যালি করতে না দেওয়ায় আমাদের মানবাধিকার হরণ করা হয়েছে।' 

বাংলাদেশে বিচারবহির্ভূত হত্যার ঘটনা ঘটছে উল্লেখ করে ফখরুল বলেন, আইন ও সালিশ কেন্দ্রের তথ্য অনুযায়ী গত ১০ বছরে ১৫৯৯ জনকে বিচারবহির্ভূত হত্যা করা হয়েছে। তারা এর নাম দিয়েছে 'বন্দুকযুদ্ধ'। বিএনপির হিসেব মতে এর সংখ্যা আরো  বেশি। ৩৫ লাখের ওপর রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে মামলা দেওয়া হয়েছে। আজকে দেশে মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিষয়টি সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

খালেদা জিয়াকে জামিন না দেওয়া প্রসঙ্গে বিএনপি মহাসচিব বলেন, দেশনেত্রী খালেদা জিয়া দেশের জনপ্রিয় নেত্রী হওয়ায় তাকে অন্যায়ভাবে কারাগারে বন্দী রাখা হয়েছে। তাঁর যে প্রাপ্য জামিন সেটাও তাঁকে দেওয়া হচ্ছে না। তাঁর চিকিৎসার সুযোগ দেওয়া হচ্ছে না। আমরা এর তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, মানবাধিকার বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আসাদুজ্জামান, মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহমেদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা