kalerkantho

শনিবার । ২৫ জানুয়ারি ২০২০। ১১ মাঘ ১৪২৬। ২৮ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

আপিল বিভাগে হট্টগোল-স্লোগান : পাল্টাপাল্টি আইনি নোটিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ ২১:৩৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



আপিল বিভাগে হট্টগোল-স্লোগান : পাল্টাপাল্টি আইনি নোটিশ

সাবেক প্রধানমন্ত্রী বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জামিন আবেদনের ওপর শুনানিকালে গত ৫ ডিসেম্বর সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের এক নম্বর বেঞ্চে সৃষ্ট হট্টগোল ও স্লোগানের ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে তদন্ত করে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা নিতে আইনি নোটিশ দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী রাশিদা চৌধুরী। সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল এবং আপিল বিভাগ ও হাইকোর্ট বিভাগের রেজিস্ট্রারের প্রতি আজ রবিবার এ নোটিশ দেওয়া হয়েছে। নোটিশ পাওয়ার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে। অন্যথায় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছে। 

এদিকে সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল এবং দুই রেজিস্ট্রারকে দেওয়া নোটিশদাতা আইনজীবীকে আজই পাল্টা আইনি নোটিশ দিয়েছেন বিএনপিপন্থী আইনজীবী অ্যাডভোকেট জুলফিকার আলী ঝুনু। 

রাশিদা চৌধুরীর নোটিশ
সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী রাশিদা চৌধুরীর দেওয়া নোটিশে বলা হয়, সুপ্রিম কোর্টের তত্বাবধায়ক হিসেবে আদালত কক্ষে উপস্থিত থাকার কথা আপনাদের। কিন্তু ওইদিন আপনারা উপস্থিত ছিলেন না এবং হট্টগোল বন্ধ করতে কোনো ব্যবস্থা নেননি। ফলে ওইদিন আদালতের স্বাভাবিক বিচার কাজ পরিচালিত হতে পারেনি। এছাড়া ওই ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে আপনারা বাধ্য। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো ব্যবস্থা নেননি। 

জুলফিকার আলী ঝুনুর পাল্টা নোটিশ
সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসনকে নোটিশ দেওয়ার সংবাদ পেয়ে নোটিশদাতাকে পাল্টা নোটিশ দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আরেক আইনজীবী অ্যাডভোকেট জুলফিকার আলী ঝুনু। নোটিশদাতার বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার অভিযোগ কেন আনা হবে না তা জবাব চেয়ে আজ দেওয়া নোটিশে বলা হয়েছে, সুপ্রিম কোর্টের ভেতরে সংগঠিত কোনো বিষয়ে কোনো আইনজীবী কর্তৃক সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসনকে আইনি নোটিশ পাঠানোর আইনগত বৈধতা নেই। এছাড়া আপনি (নোটিশদাতা) হাইকোর্ট বিভাগের একজন আইনজীবী। তাই আপিল বিভাগের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে লিগ্যাল নোটিশ পাঠানো আপিল বিভাগের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ ও পেশাগত অসদাচরণের সামিল। 

খালেদা জিয়ার জামিন আবেদনের ওপর শুনানিকে কেন্দ্র করে গত ৫ ডিসেম্বর দেশের সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে নজীরবিহীন অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়। বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের মুহুর্মুহু স্লোগান, মাঝে মাঝে সরকার সমর্থক আইনজীবীদের প্রতিবাদের মুখে চরম হৈচৈ-হট্টগোলের সৃষ্টি হয়। ফলে বিচার কাজ বন্ধ হয়ে যায়। বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা ‘উই ওয়ান্ট জাস্টিস’, ‘খালেদা, জিয়া; জিয়া, খালেদা’ বলে শ্লোগান দিতে থাকেন। এ প্রেক্ষাপটে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে আপিল বিভাগের ৬ বিচারপতি প্রথম ধাপে এজলাস ত্যাগ করেন। পরবর্তীতে সোয়া এক ঘন্টার বেশি সময় নির্বিকার এজলাসে বসে থাকেন বিচারপতিরা। আইনজীবীদের এই আচরণে প্রধান বিচারপতি চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেন। 

এ ঘটনার দুইদিন পর আজ আইনি নোটিশ দিলেন সুপ্রিম কোর্টের এক আইনজীবী। এ আইনজীবী জানান, গত ৫ ডিসেম্বর আপিল বিভাগে আদালত অবমাননার মত অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটেছে। এরসঙ্গে জড়িতদের চিহ্নিত করে কেন তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে না সেজন্য নোটিশ দেওয়া হয়।    

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা