kalerkantho

সোমবার । ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯। ১ পোষ ১৪২৬। ১৮ রবিউস সানি                         

‘আমাকে নিয়ে কেউ অপপ্রচার করবেন না’

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৩ ডিসেম্বর, ২০১৯ ১৯:৫০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



‘আমাকে নিয়ে কেউ অপপ্রচার করবেন না’

ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফের সঙ্গে গোলাগুলির ঘটনায় রাজশাহীর বিজিবি-১ ব্যাটেলিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল ফেরদৌস জিয়াউদ্দিন মাহমুদের বিরুদ্ধে কোর্ট মার্শাল হচ্ছে-এমন গুজব ও অপপ্রচার ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। যা ইতোমধ্যেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে গেছে।

একটি মহল গুজব ছড়াচ্ছে, তাকে বিচারের মুখোমুখি করা হচ্ছে। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে তিনি স্বপদে বহাল থেকে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। কোর্ট মার্শালের বিষয়টি সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন ও বানোয়াট।

এ বিষয়ে রাজশাহী বিজিবির-১ ব্যাটলিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল ফেরদৌস জিয়াউদ্দিন মাহমুদ বলেন, ‘আমি স্বপদে সসম্মানে চাকরিতে বহাল আছি। আমাকে বরখাস্ত করা হয়নি। কোনো ধরনের বিচারের মুখোমুখিও হতে হয়নি। এসব অবান্তর ও অপপ্রচার।’ এ ধরনের গুজব না ছড়াতে আহ্বানও জানিয়েছেন তিনি।

গত ১৭ অক্টোবর ভারতের সীমান্তরেখা অতিক্রম করে কয়েকজন জেলে বাংলাদেশের সীমানায় প্রবেশ করে। তারা রাজশাহীর চারঘাটের ভিতরে পদ্মানদীতে প্রবেশ করে ইলিশ মাছ শিকার করতে থাকে। ওই সময় বাংলাদেশের আইন অনুযায়ী নদীতে মা ইলিশ রক্ষায় ইলিশ শিকারের বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান চলছিলো। মা ইলিশ শিকারের সময় ভ্রাম্যমাণ আদালত চার জেলেকে আটক করে।

এ সময় ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ সদস্যরা এসে তিন জেলেকে ছিনিয়ে নেয়। অপর জেলে প্রণব মণ্ডলকে ছিনিয়ে নেওয়ার জন্য বিএসএফ সদস্যরা বিজিবিকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়। এ সময় বিজিবি পাল্টা গুলি চালালে বিএসএফ সদস্য বিজয় ভান সিং নিহত এবং আহত হন আরেক বিএসএফ সদস্য রাজবীর সিং।

এরপর রাজশাহী বিজিবির অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল ফেরদৌস জিয়াউদ্দিন মাহমুদ সংবাদ সম্মেলন করে প্রকৃত ঘটনা তুলে ধরলে বিভিন্ন মিডিয়ায় তার বক্তব্যের ভিডিও প্রচার এবং ভাইরাল হতে থাকে। এরপর অনেকেই তাকে ‘জাতীয় বীর’ হিসেবে উল্লেখ করতে থাকেন। এর ফলে অনলাইনে প্রশংসায় ভাসতে থাকেন বিজিবি অধিনায়ক।

ওই ঘটনার পর সংবাদ সম্মেলনে লেফটেন্যান্ট কর্নেল ফেরদৌস জিয়াউদ্দিন মাহমুদ বিএসএফের বক্তব্যের কড়া প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, ‘আমরা ডেকে নিয়ে এসে কাছে আনার পর গুলি করে তাদের মেরে ফেলবো-একটা বাহিনীর সাথে সম্পর্ক অবনতি করবো-এমনটা হতে পারে না। জাতিগতভাবে আমরা মদ্যপ নই এবং আমরা মানসিকভাবেও সবাই সুস্থ। আমরা একটা বাহিনীর সাথে সম্পর্ক অবনতি করার মত কোন ঘটনাও ঘটাই নি।’

এদিকে সম্প্রতি অনলাইনে গুজব ছড়ানো হচ্ছে লেফটেন্যান্ট কর্নেল ফেরদৌস জিয়াউদ্দিন মাহমুদকে বিচারের মুখোমুখি করা হচ্ছে। কিন্তু বাস্তবে এ ধরনের সংবাদের কোনো ভিত্তি নেই। একটি মহল এই গুজব ছড়াচ্ছে অসৎ উদ্দেশ্যে। লেফটেন্যান্ট কর্নেল ফেরদৌস জিয়াউদ্দিন মাহমুদ বলেন, ‘আমাকে নিয়ে কেউ অপপ্রচার করবেন না। আমি স্বপদে রাজশাহী ব্যাটলিয়ন বিজিবির অধিনায়ক পদেই আছি। আমাকে কেউ বরখাস্ত করেনি। কোনো শাস্তির মুখোমুখিও হতে হয়নি।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা