kalerkantho

রবিবার । ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১০ রবিউস সানি ১৪৪১     

প্রতারণার অভিযোগ

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের কর্মচারী আরিফ আটক

০ র‍্যাবের অভিযান, জাল সনদ জব্দ

নিজস্ব প্রতিবেদক    

৩ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০৪:০১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের কর্মচারী আরিফ আটক

জাল সনদ ও চিকিৎসকের নামে ভুয়া সিল বানিয়ে জালিয়াতির অভিযোগে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের নার্সিং কলেজে অভিযান চালিয়ে একজনকে আটক করেছে র‍্যাব। আটক ব্যক্তির নাম মোহাম্মদ আরিফ। গতকাল সোমবার দুপুরে তাঁর কাছ থেকে এসব জাল সনদ ও সিল জব্দ করা হয়।

অভিযানের বিষয়ে র‍্যাব-১০-এর মেজর জাহাঙ্গীর আলম কালের কণ্ঠকে বলেন, আটক আরিফ ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী। তিনি একটি সংঘবদ্ধ প্রতারক চক্রের সদস্য। টাকার বিনিময়ে ঢাকা মেডিক্যাল নার্সিং কলেজের জাল সার্টিফিকেট ও সিল-প্যাড বিক্রি করতেন তিনি। 

র‍্যাব কর্মকর্তা মেজর জাহাঙ্গীর বলেন, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের ঊর্ধ্বতনদের কাছেও আরিফের বিরুদ্ধে জালিয়াতির তথ্য ছিল। তাঁর কর্মকাণ্ডে নজরদারি করা হচ্ছিল। তথ্যের সত্যতা মিললে গতকাল সোমবার ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের মহিলা হোস্টেলের গ্যারেজে অভিযান চালিয়ে জাল সনদ ও চিকিত্সকদের সিল-প্যাডসহ তাঁকে আটক করা হয়। শুধু আরিফ নন, এই জালিয়াতচক্রে আরো অনেকে জড়িত। তাদেরও আটকের চেষ্টা চলছে। 

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের ওয়ার্ডবয় আরিফসহ একটি চক্র প্রতারণামূলক এই কাজে দীর্ঘদিন ধরে তত্পর। তারা জাল ও ভুয়া মেডিক্যাল সনদ, ছুটি, মেডিক্যাল লিভ কিংবা পুলিশি মামলায় ‘ইনজুরি’ প্রতিবেদনের জন্য ভুয়া সনদ সরবরাহ করে আসছিল। এ ধরনের জালিয়াতির মাধ্যমে চক্রের সদস্যরা হাতিয়ে নিত মোটা অঙ্কের টাকা।

ঢামেক হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কেউ এই চক্রের সঙ্গে জড়িত আছে কি না জানতে চাইলে মেজর জাহাঙ্গীর বলেন, আরো তদন্তের পর এ বিষয়ে জানা যাবে। তবে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আটক আরিফ এ ধরনের প্রতারণার সঙ্গে জড়িত থাকার দায় স্বীকার করেছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা