kalerkantho

শুক্রবার । ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৮ রবিউস সানি ১৪৪১     

ডিআইজি প্রিজন পার্থ'র বিরুদ্ধে প্রতিবেদন ২৮ জানুয়ারি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২১ নভেম্বর, ২০১৯ ২২:০২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ডিআইজি প্রিজন পার্থ'র বিরুদ্ধে প্রতিবেদন ২৮ জানুয়ারি

অনিয়ম, দুর্নীতি ও মানিলন্ডারিংয়ের অভিযোগে সিলেট কারাগারের বরখাস্তকৃত ডিআইজি (প্রিজন) পার্থ গোপাল বনিকের বিরুদ্ধে করা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য আগামী বছর ২৮ জানুয়ারি দিন ধার্য করা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার ঢাকা মহানগর দায়রা জজ ও জ্যেষ্ঠ বিশেষ জজ আদালতের বিচারক কে এম ইমরুল কায়েস এই তারিখ ধার্য করেন।

বৃহস্পতিবার প্রতিবেদন দাখিলের জন্য দিন ধার্য ছিল। কিন্তু দুর্নীতি দমন কমিশন প্রতিবেদন দাখিল না করায় আদালত নতুন তারিখ ধার্য করেন। গত ২৯ জুলাই একই আদালতে পার্থকে হাজির করলে তার জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

আগের দিন ২৮ জুলাই বিকেলে রাজধানীর ভূতেরগলি এলাকায় তার বাসায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) বিশেষ টিম। বাসায় অভিযান চালানোর সময় ওই বাসা থেকে ৮০ লাখ টাকা উদ্ধার করা হয়।

পার্থ বনিকের বিরুদ্ধে ঘুষ, দুর্নীতি ও জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদের তথ্য পেয়ে তার বিরুদ্ধে তদন্ত চলছিলো। গত ২৮ জুলাই পার্থকে দুদকের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে জিজ্ঞাসাবাদ চলছিল। এ সময় দুদক জানাতে পারে পার্থ'র বাসায় নগদ টাকা রয়েছে। এমন তথ্যের ভিত্তিতে পার্থকে নিয়ে অভিযানে বের হন দুদক কর্মকর্তারা। কর্মকর্তা ইউসুফের নেতৃত্বে দুদকের একটি দল পার্থকে নিয়ে তার বাসায় যান।
পরে পার্থ'র বাসা থেকে নগদ ৩০ লাখ টাকা উদ্ধার হয়। আর ৫০ লাখ টাকার একটি বস্তা পার্থর স্ত্রী পাশের বাসার ছাদে ফেলে দেন। ওই ছাদ থেকেও টাকার বস্তাটি উদ্ধার করেন দুদক কর্মকর্তারা। এরপর পার্থকে গ্রেপ্তার করে দুদকের প্রধান কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। ৮০ লাখ টাকা বেআইনভাবে রাখার জন্য কলাবাগান থানায় মানি লন্ডারিংয়ের মামলা হয়।

মামলায় বলা হয়েছে, পার্থ'র বাসা থেকে উদ্ধারকৃত সব টাকাই অবৈধভাবে অর্জিত এবং এই টাকা পাচারের জন্য তিনি রেখেছিলেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা