kalerkantho

বুধবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৩ রবিউস সানি     

অপ্রয়োজনে হানাহানি ক্ষতিকর কাজ থেকে দূরে থাকতে হবে: গণপূর্তমন্ত্রী

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২০ নভেম্বর, ২০১৯ ১১:৩৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



অপ্রয়োজনে হানাহানি ক্ষতিকর কাজ থেকে দূরে থাকতে হবে: গণপূর্তমন্ত্রী

গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী অ্যাডভোকেট শ ম রেজাউল করীম এমপি বলেছেন, জীবন বড় লম্বা নয়। একদিন মরে যেতে হবে। কেউ গ্যারান্টি দিয়ে বলতে পারবে না যে এই জীবন নিয়ে বাড়ি ফিরে যেতে পারবো। কিন্তু এই জীবনে যতটুকু রেখে যাওয়া যায় ততটুকুই পরিপূর্ণতা দেবে। তাই অপ্রয়োজনে হানাহানি, সমালোচনা, ক্ষতিকর কাজ থেকে দূরে থাকা দরকার। তাই সৃষ্টির শ্রেষ্ট জীব মানুষের জীবন ও কর্মকাণ্ড হোক সকলের কল্যাণ কামনায়।  

সুপ্রিম কোর্টের বিভিন্ন চাঞ্চল্যকর মামলায় দেওয়া রায়, আদেশ বা সিদ্ধান্ত ও বিভিন্ন আইন সংক্রান্ত অন্যান্য বিষয়াদী অন্তর্ভুক্ত করে ল’ চেম্বার ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (এলসিএমএস) নামে একটি ওয়েবসাইট (http://www.lcmsbd.com) ভিত্তিক সফটওয়্যারের আপডেট ভার্সন উদ্বোধন অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে এ কথা বলেন শ ম রেজাউল করিম। 

গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি ভবনের শহীদ শফিউর রহমান মিলনায়তনে উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন। ছিদ্দিক এন্টারপ্রাইজ লিমিটেডের উদ্যোগে এ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট এএম আমিন উদ্দিন। অনুষ্ঠানে সমিতির সম্পাদক এএম মাহবুবউদ্দিন খোকন বক্তব্য দেন। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সমিতির সহসম্পাদক শরীফ ইউ আহমেদ।

শ ম রেজাউল করিম বলেন, একটি দেশের বিচারব্যবস্থা সেই দেশের অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের মানদণ্ডের মাপকাঠি। বিশ্বের অনেক দেশের বিচার ব্যবস্থার চেয়ে আমাদের দেশের বিচারব্যবস্থা অনেক অনেক উন্নত। আমাদের বিচার বিভাগ যাতে প্রশ্নবিদ্ধ না হয় সেজন্য সকলেরই একসঙ্গে কাজ করা দরকার। 

তিনি বলেন, বিচার বিভাগের সমালোচনা করা যাবে, তবে সেটা হতে হবে গঠনমূলক। ঢালাওভাবে নয়। কিন্তু দেখা যায়, কেউ কেউ রায় পক্ষে গেলে স্বাগত জানাই। আর বিপক্ষে গেলে বলা হয়, আজ্ঞাবহ রায় দেওয়া হয়েছে। আমাদের এই ধারণা ও প্রবণতা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। শেষ আশ্রয়স্থল এই উচ্চ আদালত। সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্টের প্রতি যদি মানুষের আস্থা নষ্ট হয়ে যায় তবে এই ক্ষতি আমার-আপনার সকলের। 

তিনি বলেন, সকলে মিলে একটি দল আওয়ামী লীগ বা বিএনপি করবো না- এটাই স্বাভাবিক। কে কোনো দল করবে সেটা ভিন্ন। ভিন্নমত থাকবে এটাই স্বাভাবিক। একটি কথা মনে রাখতে হবে, সমাজব্যবস্থায় নৈতিক মূল্যবোধের চরম অবক্ষয় হয়েছে। এই সঙ্গে আমার যেন গা ভাসিয়ে না দেই। যে যার অবস্থানে থেকে বিচার বিভাগের মর্যাদা রক্ষায় কাজ করি। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা