kalerkantho

শনিবার । ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৬ রবিউস সানি               

বাম গণতান্ত্রিক জোটের নেতৃবৃন্দ বললেন

৩০ ডিসেম্বরকে ‘কালো দিবস’ হিসেবে পালন করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৮ নভেম্বর, ২০১৯ ১৮:৪৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



৩০ ডিসেম্বরকে ‘কালো দিবস’ হিসেবে পালন করুন

আগামী ৩০ ডিসেম্বর একাদশ সংসদ নির্বাচনের বর্ষপূর্তির দিনটিকে কালো দিবস হিসেবে পালনের জন্য দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছে বাম গণতান্ত্রিক জোট। জোটের নেতৃবৃন্দ বলেছেন, ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বরের নজিরবিহীন ভোট ডাকাতির মাধ্যমে গণতন্ত্র হত্যা করা হয়েছে। তাই জনগণের ভোটাধিকার পুনঃপ্রতিষ্ঠায় দেশবাসীকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

আজ সোমবার রাজধানীর পুরানা পল্টনস্থ মৈত্রী মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে এই আহ্বান জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বাম জোটের সমন্বয়ক সিপিবির প্রেসিডিয়াম সদস্য আবদুল্লাহ ক্বাফী রতন। উপস্থিত ছিলেন সিপিবির সাধারণ সম্পাদক মো. শাহ আলম, বাসদ সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামান, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক, বাসদ (মার্কসবাদী)’র শুভ্রাংশু চক্রবর্তী, ইউসিএলবির অধ্যাপক আব্দুস সাত্তার, গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির মোশরেফা মিশু, গণসংহতি আন্দোলনের মনিরউদ্দিন পাপ্পু।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, আগামী ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের এক বছর পূর্তি হবে। ভোট কারচুপি, জালিয়াতি, ইলেকশন ইঞ্জিনিয়ারিং, মিডিয়া ক্যু ইত্যাদি সকল বিষয়কে ছাপিয়ে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ছিল ভোটের আগের রাতে ভোট বাক্স ভরে রাখার ‘নৈশকালীন নির্বাচনে’র এক নতুন কীর্তি। যা আমাদের অঙ্গীকার, প্রাতিষ্ঠানিক শৃঙ্খলা, নৈতিকতা, মূল্যবোধ ও সংস্কৃতিকে চরমভাবে আঘাত করেছে। দেশের নির্বাচনের ইতিহাসে একাদশ সংসদ নির্বাচনের দিন ৩০ ডিসেম্বর একটি কালো দিবস হিসেবে চিহ্নিত হয়ে থাকবে।

আরো বলা হয়, বর্তমান সরকারের আমলে ঘুষ, দুর্নীতি, লুটপাট, শেয়ারবাজার লুট, খেলাপী ঋণ প্রভৃতির মাধ্যমে লক্ষ লক্ষ কোটি টাকা বিদেশে পাচার হয়েছে। ক্যাসিনোর নামে হাজার হাজার কোটি টাকা লুটে নিয়েছে আওয়ামী যুবলীগের নেতারা। সরকারি কেনা-কাটায় গত এক বছরে উন্মোচিত হয়েছে বালিশ, পর্দা, টিন, মেডিক্যাল সরঞ্জাম প্রভৃতি দুর্নীতির একের পর এক ভয়াবহ চিত্র।

পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলো দুর্নীতির আখড়াতে পরিণত হয়েছে। উপাচার্য ও প্রশাসনের নানা ধরনের দুর্নীতি প্রকাশিত হচ্ছে। সরকারের শুদ্ধি অভিযান কয়েকজন চুনোপুঁটি ধরার মধ্য দিয়ে মুখ থুবড়ে পড়েছে। নারী ও শিশু নিপীড়ন-হত্যাকাণ্ড ভয়াবহ রূপ নিয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়গুলো ছাত্রলীগের টর্চার সেলে পরিণত হয়েছে। এই অবস্থার পরিবর্তনে ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে।

কর্মসূচি : সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, জনগণের ভোটাধিকার হরণের প্রতিবাদে আগামী ৩০ ডিসেম্বর সারা দেশে উপজেলা পর্যায়ে জোটের শরিক দলসমূহের কার্যালয়ে ‘কালো পতাকা উত্তোলন, কালো ব্যাজ ধারণ ও কালো পতাকা মিছিল’ অনুষ্ঠিত হবে। ঢাকায় কেন্দ্রীয় সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। এ ছাড়া আগামী ২১ নভেম্বর বৃহস্পতিবার বিকেল ৪টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে পেঁয়াজ, চালসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম বৃদ্ধি ও সরকারের ক্ষমাহীন নিষ্ক্রিয়তার প্রতিবাদে সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা