kalerkantho

শনিবার । ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৯ রবিউস সানি ১৪৪১     

তিন শর্তে ক্লাসে ফিরবেন বুয়েট শিক্ষার্থীরা

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

১৪ নভেম্বর, ২০১৯ ২২:৫১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



তিন শর্তে ক্লাসে ফিরবেন বুয়েট শিক্ষার্থীরা

বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যাকান্ডের পর থেকেই ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে আন্দোলন করে আসছেন শিক্ষার্থীরা। এতে ৬ অক্টোবর থেকে স্থবির হয়ে পড়েছে বুয়েটের শিক্ষা কার্যক্রম। অভিযুক্তদের বিচারসহ দশ দাবিতে আন্দোলন অব্যাহত রাখেন শিক্ষার্থীরা। তবে হত্যা মামলায় অভিযোগপত্র দাখিলের পর এখন শিক্ষার্থীরা নূন্যতম তিন দাবির পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন চাচ্ছেন। আর তিন শর্ত পূরণ হলেই ক্লাস-পরীক্ষায় ফেরার ঘোষণা দিয়েছেন তারা।

বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে চারটায় বুয়েট শহীদ মিনারের পাদদেশে শিক্ষার্থীরা এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন। আন্দোলনে থাকা শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী অনিরুদ্ধ গাঙ্গুলী বক্তব্য রাখেন। তিনি জানান, তিনটি দাবি পূরণ হলেই শিক্ষার্থীরা ক্লাসে ফিরে যেতে রাজি। সেগুলো হলো- চার্জশিটের ভিত্তিতে অভিযুক্তদের স্থায়ীভাবে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিস্কার। আহসানউল্লাহ, তিতুমীর ও সোহরাওয়ার্দী হলে র‍্যাগিংয়ের ঘটনায় অপরাধীদের মাত্রা অনুযায়ী শাস্তি দেয়া। সাংগঠনিক ছাত্র রাজনীতি ও র‍্যাগের জন্য সুস্পষ্টভাবে ক্যাটাগরি ভাগ করে শাস্তির নীতিমালা করা। আর এ নীতিমালা বুয়েটের একাডেমিক কাউন্সিল ও সিন্ডিকেট থেকে অনুমোদন করে অর্ডিনেন্সে অন্তর্ভুক্ত করার পদক্ষেপ গ্রহন।
 
অনিরুদ্ধ গাঙ্গুলী বলেন, 'উল্লিখিত তিনটি দাবির মধ্যে প্রথম ও দ্বিতীয় দাবি পূরণ হলে আমরা আসন্ন টার্ম ফাইনাল পরীক্ষার তারিখ গ্রহণ করতে সম্মত হব। টার্ম ফাইনাল পরীক্ষা শুরু হওয়ার অন্তঃত এক সপ্তাহ আগে তিন নম্বর দাবি পূরণ করলে আমরা পরীক্ষায় বসবো। অন্যথায় বুয়েট প্রশাসন আন্তরিক নয় এবং প্রতিশ্রুতি রক্ষা করতে ব্যর্থ হয়েছে বলে ধরে নিয়ে পরীক্ষায় বসতে অসম্মতি জানাবো।’

শিক্ষার্থীরা বলেন, ‘বুয়েটের একাডেমিক ও পরীক্ষা কার্যক্রম শুরু হওয়ার ব্যাপারে আমরা চিন্তিত। দ্রুত সময়ের মধ্যে একাডেমিক ও পরীক্ষায় আমরা ফিরে যেতে চাই। একারণেই গত ১৫ অক্টোবর মাঠ পর্যায়ের আন্দোলন থেকে সরে এসেছি। প্রশাসনের সঙ্গে বারবার আলোচনার মাধ্যমে ক্যাম্পাসে সুষ্ঠু ও নিরাপদ পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে সর্বোচ্চ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। কিন্তু তা সত্ত্বেও প্রশাসনের পক্ষ থেকে সদিচ্ছা ও পর্যাপ্ত পদক্ষেপের অভাব লক্ষ্য করা যাচ্ছে। ’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা