kalerkantho

শুক্রবার । ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৫ রবিউস সানি          

বিয়ের ১৮ দিন পরই স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগ

বাবার বাড়িতে গিয়েও রক্ষা হয়নি মীমের

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৩ নভেম্বর, ২০১৯ ০৪:৩৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মাত্র ১৮ দিন আগে বিয়ে হয় কলেজছাত্রী আসমা আক্তার মীম (১৮) ও মোটর মেকানিক শামীমের (২৫)। বিয়ের পর থেকে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের চনপাড়ায় স্বামীর সঙ্গেই থাকতেন মীম। গত শনিবার হঠাৎই তিনি স্বামীর বাড়ি থেকে রাজধানীর ডেমরার কোনাপাড়ায় বাবার বাড়িতে চলে আসেন। সেখানে গতকাল মঙ্গলবার তাঁকে পিটিয়ে ও শ্বাসরোধে হত্যার অভিযোগ উঠেছে স্বামীর বিরুদ্ধে। স্বজনদের অভিযোগ, স্বামীর নির্যাতনে অতিষ্ঠ হয়ে বাবার বাড়িতে এসেছিলেন মীম।

মীম বাঁশেরপুলের তোলা হাজির বাড়ির ভাড়াটিয়া মো. হবি কাজীর মেয়ে ও ডেমরা মান্নান উচ্চ বিদ্যালয় অ্যান্ড কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্রী। গত ২৫ অক্টোবর পারিবারিকভাবে বিয়ে হয় মীম ও শামীমের। তিন বোন ও এক ভাইয়ের মধ্যে সবার বড় মীম বিয়ের পর থেকে কলেজে যাতায়াত বন্ধ করে দেন।

মো. হবি কাজী বলেন, শনিবার মীম স্বামীর বাড়ি থেকে তাঁর বাসায় আসেন। তখন এমনিই বেড়াতে এসেছেন বলে জানান। গতকাল সকাল ৯টার দিকে শামীমও বাসায় আসেন। পরে তিনি (বাবা) ব্যাবসায়িক কাজে বাইরে গেলে জানতে পারেন, দুপুরে শামীম বাড়ির দ্বিতীয় তলায় কক্ষের ভেতরে মীমকে পিটিয়ে আহত করেন। মীমের বোন সুমাইয়া বিষয়টি টের পেলে শামীম দৌড়ে পালিয়ে যান। মীমকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিলে চিকিত্সক বিকেল ৩টার দিকে তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

ডেমরা থানার ওসি মো. সিদ্দিকুর রহমান বলেন, ‘হাসপাতালে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। নিহতের শরীরের বিভিন্ন জায়গায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে বলে জানতে পেরেছি। তবে প্রাথমিকভাবে স্বজনরা হত্যাকাণ্ডের কারণ জানাতে পারেননি। মীমের স্বামীকে গ্রেপ্তার করা গেলে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানা যাবে বলে আশা করছি।’ এ ঘটনায় হত্যা মামলা প্রক্রিয়াধীন বলে জানান ওসি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা