kalerkantho

রবিবার। ১৭ নভেম্বর ২০১৯। ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

'আমরা রাস্তায় সেন্সর বসিয়ে স্মার্ট কার পার্কিং সিস্টেমে যাচ্ছি'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২১ অক্টোবর, ২০১৯ ১৮:২৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



'আমরা রাস্তায় সেন্সর বসিয়ে স্মার্ট কার পার্কিং সিস্টেমে যাচ্ছি'

স্মার্ট কার পার্কিং সিস্টেমের আওতায় আসছে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি)।

মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম আজ সোমবার রাজধানীর উত্তরায় সড়ক উন্নয়ন কাজের উদ্বোধনকালে বলেন, জনগণের টাকায় রাস্তা করছি, আর সেই রাস্তায় গাড়ি পার্কিং করে রাখবেন এটা হবে না। আমরা রাস্তায় সেন্সর বসিয়ে স্মার্ট কার পার্কিং সিস্টেমে যাচ্ছি। রাস্তায় গাড়ি পার্ক করলেই আমাদের কাছে সমস্ত তথ্য চলে আসবে। নির্দিষ্ট চার্জ দিয়ে গাড়ি রাস্তায় রাখতে পারবেন।

মেয়র উত্তরা ৪ নম্বর সেক্টরের ৩ নম্বর সড়কের সড়ক উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন করেন।

ইম্প্রোভমেন্ট এন্ড কনস্ট্রাকশন অব রোড উইথ ড্রেন এন্ড ফুটপাথ এ্যাট উত্তরা প্রকল্পের আওতায় মোট ২.৮৭৪ কিলোমিটার সড়ক, ৪.৯৪৮ কিলোমিটার ফুটপাত, ৪.৯৪৮ কি.মি. কিলোমিটার আরসিসি নর্দমা এবং ১০৫০ মিলিমিটার ডায়াপাইপ বিশিষ্ট ৪০০ মিটার নর্দমা নির্মাণ করা হবে। প্রায় ১৭ কোটি ৯৫ লাখ টাকা ব্যয়ে প্রকল্পটির কাজ আগামী বছরের মে মাসের মধ্যে শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মাইশা কনট্রাকশন (প্রা.) লি. কাজটি সম্পাদনের দায়িত্ব পায়।

উদ্বোধন অনুষ্ঠানে মেয়র বলেন, যে সকল রাস্তা করা হচ্ছে, সেগুলোতে আগে পানি নিষ্কাশন নিশ্চিত করছি। পানি নিষ্কাশন না হলে রাস্তা বানাতে টাকা ঢেলে লাভ নেই।

কাজের মান ঠিক রাখতে ঠিকাদারদের প্রতি নির্দেশ দিয়ে মেয়র বলেন, কাজ তদারকি করার জন্য তৃতীয় পক্ষকে দায়িত্ব দেয়া হবে। তারা যে কোনো সময় রাস্তার নমুনা কাটিং করে বুয়েটে পাঠাবে। যদি উপকরণগুলো না ঠিক থাকে, অর্থাৎ কাজের মান খারাপ হলে ডিএনসিসি বিল দেবে না।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন। তিনি বলেন, ডিএনসিসির সকল কাজে এলাকার সংসদ সদস্য হিসেবে আমি সহযোগিতার আশ্বাস দিচ্ছি।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে প্রধান প্রকৌশলী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাঈদ আহমেদ ও আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা জুলকার নায়ন উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা