kalerkantho

সোমবার । ১৮ নভেম্বর ২০১৯। ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

কাউন্সিলর রাজীব রিমান্ডে

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২১ অক্টোবর, ২০১৯ ০১:১৪ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কাউন্সিলর রাজীব রিমান্ডে

কাউন্সিলর তারেকুজ্জামান রাজীব

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ৩৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর তারেকুজ্জামান রাজীবের বিরুদ্ধে অস্ত্র ও মাদক মামলায় ৭ দিন করে মোট ১৪ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। রবিবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে শুনানি শেষে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট বেগম ইয়াসমীন আরা এ আদেশ দেন।

রবিবার রাত ১১টার দিকে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মাদক ও অস্ত্র আইনের দুই মামলায় আসামি রাজীবকে আদালতে তোলেন। মামলার তদন্তের স্বার্থে ১০ দিন করে দুই মামলায় মোট ২০ দিন রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদের আবেদন করেন। এ সময় আসামিপক্ষের আইনজীবীরা রিমান্ড নামঞ্জুর ও আসামির জামিন চেয়ে আবেদন করেন। অপরদিকে রাষ্ট্রপক্ষ এ জামিনের বিরোধিতা করেন। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আদালত জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে ৭ দিন করে ১৪ দিনের রিমান্ডের আদেশ দেন।

এর আগে শনিবার (১৯ অক্টোবর) রাত সাড়ে ৯টার দিকে ভাটারা এলাকার একটি বাড়ি থেকে কাউন্সিলর রাজীবকে আটক করে র‌্যাব। এ সময় তার কাছ থেকে একটি বিদেশি পিস্তল, তিন রাউন্ড গুলি, একটি ম্যাগজিন, ৭ বোতল বিদেশি মদ ও ৩৩ হাজার নগদ টাকা জব্দ করা হয়। 
এরপর তাকে নিয়ে মোহাম্মদপুরে নিজ বাসায় ও অফিসে অভিযান চালায় র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত। সেখানে ৫ কোটি টাকার বিভিন্ন ব্যাংকের চেকবই জব্দ করা হয়। রবিবার (২০ অক্টোবর) বিকেলে ভাটারা থানায় অস্ত্র ও মাদক আইনে দুটি মামলা হয় রাজীবের বিরুদ্ধে। সেই মামলায় রাজীবকে রিমান্ড চেয়ে আদালতে তোলা হয়।

উল্লেখ্য, ২০১৫ সালে ডিএনসিসির ৩৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার আগে দৃশ্যমান কোনো ব্যবসাই ছিল না মোহাম্মদপুরের তারেকুজ্জামান রাজীবের। বর্তমানেও কাউন্সিলর হিসেবে সরকারি সম্মানির বাইরে কোনো আয়ের উৎস নেই। তবুও সম্পদের পাহাড় গড়েছেন স্বঘোষিত ‘জনতার কাউন্সিলর’ রাজীব।

২০১৫ সালে কাউন্সিলর নির্বাচনে তিনি ছিলেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী। দলীয় প্রার্থী ও মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি শেখ বজলুর রহমানকে হারিয়ে তিনি নির্বাচিত হন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা