kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

সরকারি হজ ব্যবস্থাপনায় আরও জবাবদিহি দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৭ অক্টোবর, ২০১৯ ২১:৫৪ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সরকারি হজ ব্যবস্থাপনায় আরও জবাবদিহি দাবি

বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হজ আয়োজনকারীরা দোষ-ত্রুটি করলে তাদের বিরুদ্ধে সরকার ব্যবস্থা নেয়। কিন্তু সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজে গিয়ে সমস্যায় পড়লে তার প্রতিকার পাওয়া যায় না। এমনকি অভিযোগ পর্যন্ত নেওয়া হয় না। এমন অভিযোগ করেছেন হজ এজেন্সিস এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (হাব)-এর সভাপতি এম শাহাদত হোসাইন তসলিম।

আজ বৃহস্পতিবার ঢাকার অফিসার্স ক্লাবে ‘হজ ব্যবস্থাপনা বিষয়ক কর্মশালা-২০১৯’ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এমন অভিযোগ করেন তসলিম। অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব অ্যাডভোকেট শেখ আব্দুলল্লাহ। কর্মশালায় দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, গতবার সোয়ালাখের বেশি বাংলাদেশি হজ করেছেন। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি অর্থাৎ ২৩ শতাংশ হজ যাত্রী ছিলেন চট্টগ্রাম বিভাগের। সবচেয়ে কম গেছেন সিলেট থেকে (২%)। হজযাত্রীদের মধ্যে ৩৪ শতাংশ গৃহিনী এবং ৪০ শতাংশ ব্যবসায়ী। মোট হজযাত্রীদের মধ্যে পুরুষ ছিলেন ৬৩ শতাংশ এবং নারী ছিলেন ৩৭ শতাংশ।

শাহাদত হোসাইন তসলিম তার বক্তব্যে বলেন, বেসরকারি হজ ব্যবস্থাপনার যারা ইচ্ছাকৃত সমস্যা তৈরি করেন তাদের বিরুদ্ধে সরকার ব্যবস্থা নিক। কিন্তু যেসব বিষয় সৌদি আরবের কর্তৃপক্ষের কারণে হয় তার জন্য আমাদেরকে (হজ এজেন্সিকে) দায়ী করা ঠিক নয়। তিনি বলেন, হাব সরকারের সব ইতিবাচক পদক্ষেপের সঙ্গে আছে। কিন্তু সরকার যেসব হাজীদের সেবা দেয় সেসব বিষয়েও যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়া উচিত। তিনি জানান, সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজ করে আসা অনেকে তাদের কাছে অভিযোগ করেন। কিন্তু কোনো প্রতিকার তারা দিতে পারেন না।

২০২০ সালের হজ ব্যবস্থাপনা সহজ করতে গতকালের কর্মশালার আয়োজন করে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শেখ আব্দুলল্লাহ বলেন, হজ ব্যবস্থাপনার ছোটখাটো যেসব ত্রুটি রয়েছে সেগুলো কাটিয়ে উঠে আগামী বছর সর্বোত্তম মানের হজসেবা উপহার দিতে চাই। 

তিনি বলেন, হজ সম্পর্কিত আলোচনায় বিভিন্নজনের কাছ থেকে আমরা যেসব ত্রুটির কথা শুনে থাকি,তার অন্যতম হলো- হজ ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত আইনের অভাব, ঢাকা এবং জেদ্দা হজ অফিসের পুরাতন জনবল কাঠামো, সৌদি আরবে অপর্যাপ্ত বাংলাদেশি মেডিকেল সেন্টার, বেসরকারি হজ এজেন্সির হাজি সংগ্রহে অসম ও অস্বচ্ছ প্রতিযোগিতা, বেসরকারি হজযাত্রীর ক্ষেত্রে মধ্যস্বত্বভোগীদের হস্তক্ষেপ ও দৌরাত্ম্য সুষ্ঠু হজ ব্যবস্থাপনার অন্তরায়। এসব সীমাবদ্ধতাগুলো উত্তরণে আমরা যথাযথ ব্যবস্থা নেব।

কর্মশালায় বলা হয়েছে, হজ সংক্রান্ত সৌদি সরকারের কিছু নিয়ম হজযাত্রীর অনুকূলে নয়। আর ক্ষেত্রবিশেষ হজ কার্যক্রমের সঙ্গে নিয়োজিত সৌদি আরবের বিভিন্ন সংস্থার অসহযোগিতার কারণে হজযাত্রীদের বেশ কষ্ট শিকার করতে হয়। সরকার সৌদি কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে এ সব সমস্যার সমাধান করবে বলে প্রতিমন্ত্রী জানান। ধর্ম সচিব মো. আনিছুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন- ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য সৈয়দ নজিবুল বাশার মাইজভান্ডারি, মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরি, বেগম রত্না আহমেদ। অনুষ্ঠানে হজ ব্যবস্থাপনা সম্পর্কিত প্রেজেন্টেশন উপস্থাপন করেন ধর্ম মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম-সচিব এবিএম আমিন উলল্লাহ নুরী। কর্মশালায় হজ এজেন্সির মালিক, আলেম-উলামা, সাংবাদিকসহ হজ ব্যবস্থাপনা সম্পর্কিত বিভিন্ন স্তরের ব্যক্তিরা অংশ নিয়েছেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা