kalerkantho

বুধবার । ২০ নভেম্বর ২০১৯। ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২২ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

‘পরাধীন মানুষের বেদনা বাংলাদেশ গভীরভাবে অনুভব করে’

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৭ অক্টোবর, ২০১৯ ০৮:২৫ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



‘পরাধীন মানুষের বেদনা বাংলাদেশ গভীরভাবে অনুভব করে’

“দীর্ঘ প্রায় দুইশত বছর ঔপনিবেশিক শাসনের অধীনে থাকার কারণে বিদেশি দখল ও ঔপনিবেশিক পরাধীনতার অধীনে থাকা মানুষের বেদনা বাংলাদেশ গভীরভাবে অনুভব করে” আজ ৭৪তম জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৪র্থ কমিটির আওতায় ‘ঔপনিবেশিকতা বিলোপ’ বিষয়ক সাধারণ বিতর্কে অংশ নিয়ে একথা বলেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সদস্য আব্দুল মজিদ খান এমপি।

সাম্রাজ্যবাদ, ঔপনিবেশিকতাবাদ ও বর্ণবাদের বিরুদ্ধে ন্যায্য সংগ্রামের অংশ হিসেবে বিশ্বের শোষিত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর যে সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা বাংলাদেশের রয়েছে তা উল্লেখ করেন সংসদ সদস্য আব্দুল মজিদ খান। তিনি বলেন, “জাতিসংঘে ১৯৭৪ সালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রদত্ত প্রথম ভাষণেও এই সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতার কথা প্রতিধ্বনিত হয়েছিল। আর এ সকল কারণেই বাংলাদেশ জাতিসংঘ সনদ ও জাতিসংঘের অন্যান্য প্রবিধান অনুযায়ী সর্বদাই ঔপনিবেশিক শাসনের অধীনে থাকা জনগণের আত্মনিয়ন্ত্রণ অধিকার রক্ষার্থে কাজ করে যাচ্ছে”।

দীর্ঘ সাত দশকেরও বেশি সময় ধরে ঔপনিবেশিকতাবাদ বিলোপের মাধ্যমে জাতিসংঘ বিশ্বের মানচিত্রে যে ইতিবাচক পরিবর্তন এনেছে তার জন্য জাতিসংঘের উচ্চ প্রশংসা করেন বাংলাদেশের এই সংসদ সদস্য। পাশাপাশি তিনি মন্তব্য করেন, এখনও বিশ্বে ১৭টি আত্মনিয়ন্ত্রণ অধিকারবিহীন অঞ্চল রয়েছে যারা পরাধীনতার গ্লানি থেকে মুক্তির জন্য লড়াই করে যাচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “ঔপনিবেশিক শাসন থেকে মুক্ত করার মতো অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করতে জাতিসংঘের ‘ঔপনিবেশিকতা বিলোপ’ বিষয়ক বিশেষ কমিটি (সি-২৪) কে আত্ম-নিয়ন্ত্রণ অধিকার বিহীন ও বিদেশী দখলের অধীনে থাকা এ সকল অঞ্চলসমূহের মানুষের রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, সামাজিক ও শিক্ষাগত অগ্রসরতার ন্যায়সঙ্গত অধিকার রক্ষায় অবশ্যই নিরবচ্ছিন্ন ও অর্থবহ দৃষ্টিকোন থেকে কাজ করে যেতে হবে”।

এজেন্ডা ২০৩০-এর মর্মবাণী ধারণ করে বিশ্বের যে সকল অঞ্চল এখনও ঔপনিবেশিক শাসনের অধীনে রয়েছে তা থেকে ঐ সকল অঞ্চলকে মুক্ত করতে জাতিসংঘ স্বীয় দায়িত্ব পালনে কোনো পদক্ষেপই বাদ রাখবে না মর্মে দৃঢ় আশাবাদ ব্যক্ত করেন আব্দুল মজিদ খান এমপি।

জাতিসংঘ সনদ ও জাতিসংঘের সংশ্লিষ্ট প্রবিধানসমূহের প্রতি উপনিবেশগুলোর শাসক শক্তির দায়বদ্ধতা রয়েছে মর্মে স্মরণ করিয়ে দেন তিনি। পাশাপাশি আত্মনিয়ন্ত্রণ অধিকার বিহীন এই অঞ্চলগুলোর মুক্তির লক্ষ্যে জাতিসংঘকে পূর্ণ সমর্থন ও সহযোগিতা করতে শাসক দেশসমূহের প্রতি আহ্বান জানান সংসদ সদস্য আব্দুল মজিদ খান।

উল্লেখ্য বাংলাদেশের এই এমপি জাতিসংঘের চলতি ৭৪তম অধিবেশনের বিভিন্ন কমিটির কাজে অংশ নিতে নিউ ইয়র্ক অবস্থান করছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা