kalerkantho

মঙ্গলবার । ২২ অক্টোবর ২০১৯। ৬ কাতির্ক ১৪২৬। ২২ সফর ১৪৪১              

ইয়াবা ভাগাভাগির সময় গ্রেপ্তার পাঁচ পুলিশের সবাই কারাগারে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ২০:১৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ইয়াবা ভাগাভাগির সময় গ্রেপ্তার পাঁচ পুলিশের সবাই কারাগারে

ইয়াবা কারবারির কাছ থেকে ইয়াবা উদ্ধার করে নিজেদের মধ্যে ভাগবাটোয়ারা করার সময় গ্রেপ্তার পাঁচ পুলিশের সবাই এখন কারাগারে। রবিবার রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে গুলশান থানার এএসআই মাসুদ আহমেদ মিয়াজী, এপিবিএনের কনস্টেবল প্রশান্ত মন্ডল ও নায়েক মো. জাহাঙ্গীর আলমকে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করলে মহানগর হাকিম সাদবীর ইয়াসির আহসান চৌধুরী তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

গত শুক্রবার এই তিন পুলিশকে দ্বিতীয় দফা রিমান্ডে নেওয়া হয়। গতকাল শনিবার এপিবিএনের কনস্টেবল মো. রনি মোল্যা ও মো. শরিফুল ইসলামকে দ্বিতীয় দফা রিমান্ড শেষে আদালতে হাজির করার পর তাদেরও কারাগারে পাঠানো হয়।

রিমান্ড প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইয়াবা কারবারিদের কাছ থেকে ইয়াবা জব্দ করে পুলিশের এই পাঁচ সদস্য নিজেদের মধ্যে ভাগাভাগি করতেন। এরপর ইয়াবাসেবীদের কাছে সেগুলো বিক্রি করতেন। আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদ ও তদন্তে এসব জানা গেছে।

গত ১৫ সেপ্টেম্বর এপিবিএনের উত্তরার ব্যারাক থেকে চার তিনি কনস্টেবল ও এক নায়েক এবং গুলশান থানা থেকে এএসআইকে গ্রেপ্তার করা হয়। ওইদিন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ জানতে পারে উত্তরার এপিবিএন-১ সদর দপ্তরের ব্যারাক ভবনের চতুর্থ তলার বাথরুমের সামনে কয়েকজন পুলিশ সদস্য ইয়াবার ভাগবাটোয়ারা করছেন। তখনই তাঁদের বিরুদ্ধে অভিযানের সিদ্ধান্ত নেয় এপিবিএন। ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের অনুমতি নিয়ে একটি টহলদল ঘটনাস্থলে গিয়ে কনস্টেবল প্রশান্ত মন্ডল, কনস্টেবল রনি মোল্যা ও কনস্টেবল শরিফুল ইসলামকে দেখে তাঁদের তল্লাশি করে। তখন কনস্টেবল প্রশান্ত মন্ডলের প্যান্টের পকেট থেকে ১৫৮ পিস এবং ট্রাংক থেকে ৩৯৪ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। তাঁর দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে কনস্টেবল শরিফুলকে ইয়াবা বিক্রির নগদ ১৫ হাজার টাকাসহ গ্রেপ্তার করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে শরিফুল জানান, তিনি কনস্টেবল রনি মোল্যার কাছ থেকে সাড়ে ১৮ হাজার টাকায় ১৫০ পিস ইয়াবা কিনেছেন। পরে রনিকেও গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

এদিকে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে কনস্টেবল প্রশান্ত আরো জানান, গত ১১ সেপ্টেম্বর সকাল সাড়ে ৬টায় গুলশানের গুদারাঘাট চেকপোস্টে একটি মোটর সাইকেল তল্লাশি করে আরোহীর কাছ থেকে ৩৫০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করে গুলশানের এএসআই মাসুদ মিয়াজী ও এপিবিএনের নায়েক জাহাঙ্গীর আলম নিজেদের মধ্যে ভাগবাটোয়ারা করে বিক্রির সিদ্ধান্ত নেন। পরে পুলিশ বাদি হয়ে তাঁদের পাঁচজনের বিরুদ্ধেই ২০১৮ সালের মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের ৩৬ (১) ও ৪১ ধারায় মামলা করে।

উল্লেখ্য, কনস্টেবল প্রশান্তর কাছ থেকে উদ্ধার করা ইয়াবা আরো বিভিন্ন স্থান থেকে জব্দ করা হয়েছিল বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা স্বীকার করেছেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা