kalerkantho

বুধবার । ২০ নভেম্বর ২০১৯। ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২২ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

যুক্তরাষ্ট্রে পিএইচডি করতে গিয়ে গুলিতে খুন, ফিরোজের লাশ ফিরবে চাঁদার অর্থে

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ২০:০৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



যুক্তরাষ্ট্রে পিএইচডি করতে গিয়ে গুলিতে খুন, ফিরোজের লাশ ফিরবে চাঁদার অর্থে

যুক্তরাষ্ট্রের লুইজিয়ানা স্টেট ইউনিভার্সিটিতে পড়াশোনার ফাঁকে বাংলাদেশি ছাত্র মো. ফিরোজ-উল-আমিন রিয়েল ইস্ট বাটন রাফ এলাকার লাকি’স ভালেরো গ্যাস স্টেশনে কাজ করতেন। শনিবার ভোর সাড়ে ৩টার দিকে রাজ্যের ওই গ্যাস স্টেশনে ডাকাতি করতে গিয়ে তাকে গুলি করে হত্যা করে এক দুর্বৃত্ত।

ফিরোজের মরদেহ দেশে আনার জন্য তহবিল সংগ্রহ করা হচ্ছে। এখন পর্যন্ত ৩৮৪ জন ১৮ হাজার ৪৪৮ ডলার তহবিল সংগ্রহ করা হয়েছে।

এলএসইউতে বাংলাদেশি ছাত্র সমিতির (বিএসএ) প্রোগ্রাম সমন্বয়কারী মোঃ তানভীর আহমেদ সরকার তহবিল সংগ্রহ করার জন্য গোফান্ডমি ওয়েবসাইটে লিখেছেন, আমরা গভীর শোক জানিয়েছি যে আমাদের সবচেয়ে প্রিয় বন্ধু মোঃ ফিরোজ উল আমিনকে (২৯) শনিবার সকালে লুইসিয়ানার ব্যাটন রাউজে ডাকাতির সময় গুলিবিদ্ধ হত্যা করা হয়েছিল। তিনি লুইসিয়ানা স্টেট বিশ্ববিদ্যালয়ের (এলএসইউ) কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে পিএইচডি শিক্ষার্থী ছিলেন।

ফিরোজ ছিলেন একজন নিবেদিত গবেষক এবং একজন বিনীত ও বিনয়ী ব্যক্তিও। তিনি ছিলেন তাঁর পরিবারের একমাত্র ছেলে। গত বছর তার বাবার চলে যাওয়ায় তার পরিবার ইতিমধ্যে দুঃখ পেয়েছিল এবং এখন ফিরোজের নিজের এবং তাদের আকাঙ্ক্ষা দুঃখজনকভাবে শেষ হয়েছে।

এই তহবিল সংগ্রহটি হ'ল লুইসিয়ায় তাঁর শেষকৃত্যের ব্যয় কাটাতে, তার মরদেহটি বাংলাদেশে পরিবারের কাছে প্রেরণ করা এবং শোকের পরিবারকে আর্থিকভাবে সহায়তা করা। এই দৃষ্টিকোণে, আমরা আন্তরিকভাবে আপনাকে এই বিষয়ে এগিয়ে আসার অনুরোধ করছি। আমরা আপনার সমস্ত সাহায্যের প্রশংসা করি।

ওয়েবসাইটে বলা হয়, ফিরোজের জন্য তাদের এই তহবিল সংগ্রহের লক্ষ্য হলো ৩০ হাজার ডলার। ফিরোজের মরদেহ পাঠানোর পর অতিরিক্ত তহবিল অনুদান হিসাবে সরাসরি তার পরিবারের কাছে পাঠানো হবে।

ফিরোজ লুইজিয়ানায় যাওয়ার আগে ঢাকার জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তার স্নাতক সম্পন্ন করেন। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা